মৌলবাদের বিস্তারে বিএনপি-জামায়াত লাভবান হয়
প্রকাশ : ০৩ জুলাই ২০১৭, ২২:৪৭
মৌলবাদের বিস্তারে বিএনপি-জামায়াত লাভবান হয়
ইশতিয়াক আহমেদ জয়
প্রিন্ট অ-অ+

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের জনসভায় শেখ হাসিনার উপর গ্রেনেড হামলার পর বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের বিস্তার ও প্রভাব নিয়ে ‘‘নিউইয়র্ক টাইমস’’ একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছিলো। প্রতিবেদনটির নাম ‘‘দ্য নেক্সট ইসলামিক রেভল্যুশন?’’


এই তথ্যটি উল্লেখ করার একটি বিশেষ কারণ আছে। এই প্রতিবেদনে যা যা আশঙ্কা করা হয়েছিলো তার অনেকাংশই পরবর্তী একযুগ ধরে বাংলাদেশে ঘটেছে বা ঘটার উপক্রম হয়েছে।


‘‘নিউইয়র্ক টাইমসে’’ এই বছরের শুরুর দিকে জঙ্গিবাদ নিয়ে আরও একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। তবে এই প্রতিবেদনের শিরোনাম ও অন্তর্গত বিষয়বস্তু আশার সঞ্চার করে, স্বপ্ন দেখতে সাহস যোগায়।


‘‘উই উইল গ্রো এগেইন’’ শিরোনামের এই প্রতিবেদনে জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় সরকারের ভূমিকা, জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে যুব সমাজের ভূমিকা ও যে কোন পরিস্থিতিতে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয় প্রকাশ পেয়েছে।


১২ বছরের ব্যবধানে পৃথিবীর অন্যতম প্রধান সংবাদপত্রের দুটি অনুসন্ধানী রিপোর্টের সময়কাল ও বিষয়বস্তু বিশ্লেষণ করলে দুটি খুবই প্রাসঙ্গিকভাবে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের নাম ওঠে আসে।


প্রথম রিপোর্টটিতে সন্ত্রাসবাদ বিস্তারের যে আশঙ্কা করা হয়েছিলো তার পুরো দায়ভার নির্দ্বিধায় বিএনপির। মৌলবাদ বিস্তার লাভ করলে এদেশে একমাত্র বিএনপি-জামায়াত লাভবান হয়। কারণ তাদের মূলনীতি বিশ্লেষণ করে কয়েক হাজার টুকরো মৌলবাদ খুঁজে পাওয়া যাবে।


অন্যদিকে এ বছরের শুরুতে যে রিপোর্টি প্রকাশিত হয়েছে তার এক অংশে কৃতিত্ব এদেশের জনগণকে দিলে বাকী অংশের কৃতিত্ব আওয়ামী লীগের।


এখানে আইনশৃঙ্খলা নিয়োজিত বাহিনী যে স্বচ্ছ ও যুগোপযোগী ভূমিকা রেখেছে তা শুধুমাত্র সম্ভব হয়েছে সরকারের সদিচ্ছা ও জঙ্গিবাদ নির্মূল করার দৃঢ় মানসিকতার কারণে।
পহেলা জুলাই ঢাকা অ্যাটাকের এক বছর পূর্ণ হলো।


এই অ্যাটাকে যে ক্ষতি হয়েছে তা কখনো পূরণ করা যাবে না কোনকিছুর বিনিময়ে। তবে এতো বড়ো দুর্যোগের পরেও যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছে বাংলাদেশ তা বহির্বিশ্বে উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে।


নাম উল্লেখ না করেই বলছি, অনেক উন্নত দেশও এরকম হামলার পরে এতো অল্প সময়ে ঘুরে দাঁড়াতে পারেনি। হামলার পর যে জাপান ধারণা করেছিলো এই সন্ত্রাসবাদ থামানো সম্ভব না, যে জাপান এদেশ থেকে সব ব্যবসা গুটিয়ে নেওয়ার পরিকল্পনা করেছিলো,সেই জাপানই এই সন্ত্রাসবাদ মোকাবেলা করার ক্ষেত্রে সরকারের গৃহিত পদক্ষেপের ভূয়সী প্রশংসা করেছে।


হোলি আর্টিজান হামলার বর্ষপূর্তিতে জাপানের সর্বাধিক প্রকাশিত দৈনিক "The Asahi Shimbun" বেশ বড় করে একটি রিপোর্ট করেছে নিহতদের স্মরণ করে ও জঙ্গিবাদ মোকাবেলায় সরকারের শক্ত ভূমিকার প্রশংসা করে।


"Bangladesh marks anniversary of cafe attack that killed 22" শিরোনামের এই রিপোর্টে বলা হয়েছে, বাংলাদেশের মানুষ যে দৃঢ়তার সাথে শোক সহ্য করেছে আর প্রশাসন যে সাহসীকতার সাথে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে তা আগামী বাংলাদেশের সুন্দর ভবিষ্যতের পথ দেখায়।


আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের রিপোর্ট জঙ্গিবাদের চিত্র তুলে ধরতে পারে বা পারবে, কিন্তু এইসব রিপোর্ট জঙ্গিবাদ কমাতে বা নির্মূল কখনোই করতে পারবে না। জঙ্গিবাদ নির্মূল করার জন্য প্রয়োজন সচেতনতা। প্রতিটি বাবা-মা ও অভিভাবকের খেয়াল রাখতে হবে ছেলেরা যাতে জঙ্গি না হয়। আর প্রজন্মের মেয়েরা যাতে জঙ্গিদের উপর ক্রাশ না খায়।


আমাদের মনের কথা সুকান্ত ভট্টাচার্য কবিতায় লিখেছেনঃ


‘‘সাবাস বাংলাদেশ...
এ পৃথিবী অবাক তাকিয়ে রয়
জ্বলে পুড়ে - মরে ছারখার;
তবু মাথা নোয়াবার নয়।’’


লেখক : সভাপতি, কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগ


বিবার্তা/নাজিম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com