বিশ্বব্যাংকের অভিযোগ, শেখ হাসিনার বিজয়
প্রকাশ : ২৯ মে ২০১৭, ১৫:৫৯
বিশ্বব্যাংকের অভিযোগ, শেখ হাসিনার বিজয়
​হায়দার মোহাম্মাদ জিতু
প্রিন্ট অ-অ+

জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বৈশ্বিক অর্থনীতিতে বাংলাদেশ এখন এক বিস্ময় রাষ্ট্র। নিত্যনতুন চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা আর দিনবদলের মশাল হাতে বৈশ্বিক চাপকে উপেক্ষা করে এই রাষ্ট্রটি তাদের উন্নয়নের ধারাকে এমনভাবে অব্যাহত রেখেছে যে, তা এখন অন্যান্য রাষ্ট্রের কাছে উদাহরণস্বরূপ।


ধারাবাহিক সাফল্যের এই ‘মাতা রাষ্ট্র’ কিছুদিন পূর্বে বিশ্বব্যাংকের দ্বারা যেভাবে কলঙ্কিত হতে ধরেছিল তাতে বাঙ্গালী হিসেবে ভীষণ কষ্ট অনুভব করেছিলাম। তবে আশ্চর্যের সাথে এও দেখেছিলাম তাদের কলঙ্ক জুড়ে দেবার বেকায়দাপূর্ণ কায়দায় এখানকার কিছু মানুষও বেশ আহ্লাদিত ছিলেন।


‘পদ্মা সেতু’ নিয়ে বাংলাদেশের প্রতি বিশ্বব্যাংকের দুর্নীতির অভিযোগ, অনেকটাই ঘোলা জলে মাছ শিকারের মতন। এই উক্তির পক্ষে যুক্তি হল, নিজেদের দায়িত্বশীল বলে ভাবা একটি প্রতিষ্ঠান কখনোই কোনো রকমের তদন্ত ছাড়া কোনো রাষ্ট্র সম্পর্কে এমন তীর্যক আঙ্গুল তুলতে পারে না, যা বিশ্বব্যাংক করেছে।


তবে বিশ্বব্যাংকের অতীত আচরণ সম্পর্কে জানলে বোধ করি আপনার খারাপ লাগার সীমানা অনেকাংশেই দমে যাবে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে হয়তো মনে হবে, বিশ্বব্যাংকের মতো প্রতিষ্ঠান যার বন্ধু তাদের আবার শত্রুর কি প্রয়োজন ?


উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, ১৯৮৬ সাল তারা ২ কোটি ২০ লাখ ডলারের একটা চিংড়ি প্রকল্প নিয়ে আসে বাংলাদেশের দক্ষিণবঙ্গের মানুষদের জন্যে। এতে অতি উৎসাহী কিছু মানুষ তাদের আবাদি জমিতেও বাঁধ দিয়ে শুরু করে চিংড়ি চাষ। তবে মূল ধোঁকাটা এখানে নয়, অন্যখানে। তারা সে সময়কার সরকারকে পরামর্শ দেয় পাটকল বন্ধ করে এই একটি বিষয়ের প্রতি পূর্ণ মনযোগী হতে।


বিদেশি প্রভুতে বশ সেই সরকার তখন দেশের সর্ববৃহৎ পাটকল আদমজী বন্ধ করে দেয়, যেখানে প্রায় এক লাখের মতো মানুষের কর্মসংস্থান ছিল। বিশ্বব্যাংকের পরামর্শেই দেশের রেলপথের আজ এই অবস্থা। কারণ, তাদের পরামর্শ ও সহযোগিতার খাত ছিল শুধুমাত্র সড়কপথ।


উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের জন্যে পারস্পরিক সহযোগিতা জরুরী। তবে সেই সহযোগিতা পাবার জন্যে যদি নিজেদের সার্বভৌমত্ব বিকিয়ে দিতে হয় তবে সেটা না করাটাই বুদ্ধিমানের কাজ। ইতিহাস বলে, বিশ্বব্যাংকের প্রথম ঋণগ্রহীতা দেশ ফ্রান্সকে এই ব্যাংক থেকে ঋণ গ্রহণকালে তাদের দেশীয় বাজেট পর্যন্ত বদলাতে হয়েছিল।



লেখক :হায়দার মোহাম্মাদ জিতু


তবে আমাদের শক্তিমত্তার জায়গা জননেত্রী শেখ হাসিনা। তাঁর ইস্পাতসম চিন্তা-কর্মে বিশ্বব্যাংকের দুর্নীতির অভিযোগকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে বাংলাদেশ এখন নিজেদের অর্থায়নেই বাস্তবায়নের করছে স্বপ্নের ‘পদ্মা সেতু’ এবং উদ্দীপনার কথা হল, এর এখন প্রায় ৪৪ ভাগ কাজ শেষের দিকে।


শুধু তাই নয়, আজ বিশ্বদরবারে প্রমাণিত হয়েছে, বাংলাদেশের বিরুদ্ধে করা বিশ্বব্যাংকের দুর্নীতির অভিযোগ মিথ্যা ছিল। পাশাপাশি জননেত্রী শেখ হাসিনা এও প্রমাণ করেছে্‌ যূথবদ্ধ বাঙ্গালীকে দাবিয়ে রাখে এমন সাধ্য কারো নেই।


বিশ্বব্যাংককে প্রণোদনা কিংবা প্যাকেজ সম্পর্কে জানলে তাকে সাক্ষাৎ একখানা শোষণাগার ছাড়া আর কিছু মনে হবে না। কারণ, কঠিন শর্তের পাটাতনে দরিদ্র দেশগুলিকে এরা যেভাবে শোষণ করে তা সম্মুখ আগ্রাসন থেকে কোনো ক্ষেত্রে কম নয় এবং বলতে পারেন, তাদের শর্তগুলি বহুলাংশেই বিশ্বব্যাংকের পৃষ্ঠপোষকদের কোষাগার ভরানোর সূক্ষ্ম চাল।


কারণস্বরূপ, আপনি যদি বিশ্বব্যাংকের সহায়তা নেন তবে আপনাকে বিদেশি কর্পোরেটগুলোকে শুল্কমুক্ত কেনাকাটার সুযোগ, ইচ্ছামত তাদের মুনাফা সরানোর সুযোগ এবং সরকারি কাজে বিদেশিদের অংশগ্রহণের সুযোগ দিতে হবে। অর্থাৎ, এ যেন খাল কেটে কুমির নয় একেবারে ডায়নোসর নিয়ে আসার মতো অবস্থা।


বিশ্বব্যাংকের এই কুটিলতাপূর্ণ চাল ল্যাট্রিন আমেরিকার দেশগুলো হয়তো আগেই বুঝতে পেরেছিল। তাই তারা এই ফুটো ছাতার তল থেকে আগেভাগেই বেরিয়ে গেছে। এর পর থেকে তাদের শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ প্রায় সকল খাতেই উন্নয়ন পূর্বের থেকে বেশি হারে হয়েছে।


বিশ্বব্যাংকের প্রতি আমাদের কোনো বিদ্বেষ নেই। তবে আমাদের মতো একটি উন্নয়নশীল রাষ্ট্র যখন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দূর্বার গতিতে এগিয়ে চলছে তখন তাদের এমন দায়িত্বজ্ঞানহীন মিথ্যাচার আমাদের সত্যিই বিব্রত করেছে। তবে একদিক দিয়ে ভালোও হয়েছে যে তাদের সেই অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হবার সাথে সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি বাঙ্গালীসহ বিশ্ব নেতাদের ধারণা আরো স্বচ্ছ ও পরিষ্কার হয়েছে এবং এখন সবার ভেতরে একটা বিশ্বাস জন্মেছে যে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই বাঙ্গালীর সর্বোচ্চ বিজয় সম্ভব।


লেখক : সাংগঠনিক সম্পাদক, বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়


বিবার্তা/হুমায়ুন/মৌসুমী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com