চিন পিংয়ের সফর : হিসাব মেলানোর পালা
প্রকাশ : ১৭ অক্টোবর ২০১৬, ১৬:৪২
চিন পিংয়ের সফর : হিসাব মেলানোর পালা
প্রিন্ট অ-অ+

চীনের প্রেসিডেন্ট সি চিন পিংয়ের বাংলাদেশ সফর শেষ হলো। এবার হিসাব মেলানোর পালা - আমরা কী পেলাম আর কী দিলাম।


অনেকে বলবেন, চীন অর্থনৈতিক ও ভৌগোলিক উভয়ভাবেই আমাদের চাইতে অগ্রসর দেশ। তাদেরকে আমাদের কীইবা দেয়ার আছে আর দিলেই বা কতোটুকু।


একটা সময় ছিল যখন এ কথার সারবত্তা ছিল। কিন্তু এখন সময় পাল্টেছে। বিশ্বায়নের এই যুগে প্রত্যেকেরই কিছু না কিছু দেয়ার আছে। সেই হিসেব বলা যায়, চীনের প্রেসিডেন্টের এই সফরেও দেয়া-নেয়ার বিষয় ছিল, কূটনীতির ভাষায় যাকে বলা যেতে পারে পারস্পরিকতা। এই দৃষ্টিকোণ থেকে আমরা বলতে পারি, বাংলাদেশ-চীন সম্পর্ককে নতুন মাত্রায় নিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে এই সফর একটি ইতিবাচক ঘটনা।


ইতিবাচক শুধু বাংলাদেশের জন্য নয়, চীনের জন্যও। পর্যবেক্ষকরা লক্ষ্য করেছেন, চীনের প্রেসিডেন্ট ঢাকায় আসার আগেই গণমাধ্যম মারফত বাংলাদেশের জনগণের কাছে তাঁর বক্তব্য পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। এর মাধ্যমে তিনি চীনের জনকূটনীতি এবং প্রত্যাশা ও আগ্রহের সারাংশ চমৎকারভাবে বাংলাদেশ ও এর জনগণের কাছে তুলে ধরলেন। তাছাড়া চীনের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে এবার দেশটির গুরুত্বপূর্ণ রাজনৈতিক, সরকারি ও ব্যবসায়িক নেতারাও ছিলেন। এর মাধ্যমে দুই দেশের সকল পর্যায়ের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিদের মধ্যে যোগাযোগের সুযোগ মিলল, উঁচু পর্যায়ের আলাপ ও বোঝাপড়ার পরিসর তৈরি হলো। সুতরাং কূটনৈতিক ও রাজনৈতিক বিবেচনা থেকে এই সফর যেকোনো বিচারেই খুবই সার্থক।


চীনের বর্তমান প্রেসিডেন্ট গত চার বছর ধরে দুটি কাজ করে চলেছেন, যা চীনের সঙ্গে বাইরের দুনিয়ার সম্পর্ক পুনর্নির্ধারণে ভূমিকা রাখছে। তিনি একদিকে নিজেদের উন্নয়ন প্রক্রিয়াকে টেকসই করায় সক্রিয় আছেন, অন্যদিকে বাইরের দেশগুলোর সঙ্গে নিজেদের অর্থনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করায়ও নিরন্তর কাজ করছেন। গত বছর তিনি ‘এক অঞ্চল, এক পথ’নীতির কথা পৃথিবীর সামনে উপস্থাপন করেছেন। এর মাধ্যমে চীন তার উন্নয়নের সঙ্গে এশিয়া, আফ্রিকা ও ইউরোপের বিভিন্ন অঞ্চলের উন্নয়নের যোগসূত্র রচনা করতে চাইছে। ৭০টি দেশ এই প্রক্রিয়ায় জড়িত। এ ছাড়া চীন চার হাজার কোটি ডলারের সিল্ক রোড তহবিল গঠন করেছে। এশীয় বিনিয়োগ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেছে।


এভাবে অর্থনীতির ক্ষেত্রে যে বলিষ্ঠতা তারা প্রদর্শন করেছে, তার সঙ্গে মিলিয়ে চীন বাইরের পৃথিবীর সঙ্গে বাণিজ্য শক্তিশালী করতে চায়। দেশের বাইরে বিনিয়োগ করতে চায়। এ লক্ষ্য পূরণে আন্তর্জাতিক সহযোগিতার বলয় সৃষ্টি করা জরুরি। বাংলাদেশ-চীন-ভারত-মিয়ানমার (বিসিআইএম) অর্থনৈতিক করিডর নির্মাণেও চীন আগ্রহী। বাংলাদেশও আগ্রহী। বাংলাদেশ মনে করে, এটি কেবল এ অঞ্চলের সামগ্রিক উন্নয়নকেই বেগবান করবে না, নিরাপত্তা প্রশ্নেও পারস্পরিক আস্থার পরিবেশ সৃষ্টি করবে।


আমরা ইতিমধ্যে নিম্নমধ্যম আয়ের দেশে পরিণত হয়েছি, আমরা উন্নত দেশে পরিণত হতে চাইছি। এ জন্য বাইরের পৃথিবীর সঙ্গে আমাদের আরও সংশ্লিষ্ট হওয়া দরকার। আমরা বাণিজ্য, প্রযুক্তি আমদানি, মানবসম্পদ উন্নয়ন ও বিনিয়োগ সহযোগিতায় অর্থনীতিকে আধুনিকায়ন করতে চাই। এর জন্য অন্য দেশের সঙ্গে আমাদের আদান-প্রদানের সুযোগ সৃষ্টি করা দরকার। চীন পৃথিবীর দ্বিতীয় বৃহৎ অর্থনীতির দেশ। চীনের বিশাল বাজারে আমাদের জন্য সুযোগ রয়েছে। আমাদের বড় আকারের বিনিয়োগের প্রয়োজন রয়েছে। কৃষি, জ্বালানি, প্রযুক্তি, মানবসম্পদ, কাঠামো ও পরিকাঠামো, সমুদ্র, আঞ্চলিক সংযোগ, সন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রণসহ বিস্তৃত প্রেক্ষাপটে আমাদের যোগাযোগ বাড়ানোর প্রয়োজন রয়েছে।


বাংলাদেশে চীনের প্রেসিডেন্টের সফরের মাধ্যমে যে ২৭টি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়েছে, আশা করা যায় তার ভিত্তিতে আগামী পাঁচ বছরে বাংলাদেশে ২,৪০০ কোটি অর্থাৎ বছরে প্রায় ৫০০ কোটি ডলার করে আসার সম্ভাবনা। একে কাজে লাগাতে হলে আমাদের প্রাতিষ্ঠানিক সক্ষমতা, স্বচ্ছতা ও দক্ষতাকে ঢেলে সাজাতে হবে। তবে কী শর্তে বিনিয়োগ নেব, তার নীতিগত কাঠামো আমাদের থাকা উচিত। সেই কাঠামোর ভেতরেই সহযোগিতা বাস্তবায়নের চেষ্টা করতে হবে। জাতীয় স্বার্থ রক্ষা করেই সে পথে এগোনো সম্ভব।


কেউ কেউ মনে করছেন, চীনের সঙ্গে এই মৈত্রী বাংলাদেশ-ভারত সম্পর্কে বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে। আমরা কিন্তু তা মোটেও মনে করছি না। কারণ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কূটনৈতিক প্রজ্ঞা ও সাফল্যের নজির আমরা ইতিপূর্বে দেখেছি। সমুদ্রজয়ে তিনি সফল, দারিদ্র্যজয়ে মডেল। চীনের সঙ্গে সম্পর্ককে নতুন মাত্রায় নিয়ে যাওয়ায়ও তিনিই অগ্রসৈনিক। তাঁর বলিষ্ঠ ও গতিশীল নেতৃত্বেই এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ।

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com