আ.লীগের উপ-কমিটি: কেন্দ্রীয় নেতা হওয়ার সহজ সিঁড়ি (পর্ব-১)
প্রকাশ : ০৫ আগস্ট ২০২১, ১৭:৪৮
আ.লীগের উপ-কমিটি: কেন্দ্রীয় নেতা হওয়ার সহজ সিঁড়ি (পর্ব-১)
চাঁদপুরের কচুয়া ১০নং গোহট ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ছিলেন নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী
সোহেল আহমদ
প্রিন্ট অ-অ+

মো. সোহাগ মিয়া। চাঁদপুরের কচুয়া ১০নং গোহট ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ছিলেন নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী। ২০১৯ সালে অনুষ্ঠিত পঞ্চম উপজেলা পরিষদ নির্বাচনেও কাজ করেছেন নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে। ছিলেন আনারস প্রতীকের প্রার্থীর কেন্দ্র কমিটির আহবায়ক।


এছাড়া ২০০৪ সালের দিকে বিএনপির সাবেক শিক্ষা উপমন্ত্রী আনম এহসানুল হক মিলনের অনুসারী ছিলেন সোহাগ। সে সময় নূরপুর ল্যাবরেটরি উচ্চ বিদ্যালয়ে এমপি মিলন এবং বিএনপি কর্মীদের জন্য বিশাল ভূরিভোজের আয়োজন করিয়েছিলেন তিনি। পরবর্তীতে সরকার পরিবর্তন হলে ধীরে ধীরে রূপ বদলাতে থাকেন সোহাগ। ২০১১ সালে উপজেলা যুবলীগকে ম্যানেজ করে হয়ে যান ইউনিয়ন যুবলীগের আহ্বায়ক। এরপর আর পেছন তাকাতে হয়নি তাকে। শিক্ষাগত যোগ্যতায় স্বশিক্ষিত সেই সোহাগ এখন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির সদস্য।


একই উপজেলার এনামুল হক শামীম। শিক্ষাগত যোগ্যতা এসএসসি পাস। ছিলেন চাঁদপুরের কচুয়া আশ্রাফপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। হাবিব মজুমদার জয়। চলতি বছরের শুরুর দিকেও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যার নামের পদবী থাকতো উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক। সোহাগের মতো তারা দু’জনও এখন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় তথ্য ও গবেষণা উপ-কমিটির সদস্য।