মেলান্দহে রাসেলের 'বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বিদ্যুৎ'
প্রকাশ : ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ২০:৪০
মেলান্দহে রাসেলের 'বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বিদ্যুৎ'
জামালপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

জামালপুরে মেলান্দহে রাসেল ইকবাল নামে এক যুবক বিশেষ কায়দায় বিদ্যুৎ উৎপাদনের পদ্ধতি উদ্ভাবন করে চমক সৃষ্টি করেছেন । রাসেলের উদ্ভাবন দেখার জন্য শত শত লোক তার বাড়িতে ভিড় জমাচ্ছে।


জামালপু্রের মেলান্দহ উপজেলার ফুলকোচা ইউনিয়নের রেখির পাড়া গ্রামের মরহুম আফসার আলীর ছোট ছেলে রাসেল ইকবাল দীর্ঘ ৭বছর গবেষণার পর বিশেষ কায়দায় ৫০০ ওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে সক্ষম হয়েছেন। তার বাড়িতে গিয়ে দেখা গেছে, জেনারেটরের বিকল্প ৬০ ভোল্টেজের ব্যাটারীর সাহায্যে শুধু সুইচ অন-অফ’র কাজ করছে। ব্যাটারী অটোচার্জ হয়ে চাকা ঘুরলেই উৎপাদিত বিদ্যুত সাপ্লাই হচ্ছে। এ বিদ্যুতের মাধ্যমে বাড়িতে ৬টি ফ্যান, ১০টি বাতি, একটি কালার টিভি ও ফ্রিজ চলছে। এই বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে ৭০ হাজার টাকার মতো খরচ হয়েছে। রাসেল তার এ বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্পের নাম দিয়েছেন 'বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের বিদ্যুৎ'।


ক্ষুদে বিজ্ঞানী রাসেল জানান, সাইকেল মেকানিকের দোকান থেকে বলপেনের নিপ কেটে মটর তৈরী করে তাঁর নিজের ব্যবহারিক সাইকেলের চাকায় ফিটিং করেন। তা থেকে ঘর্ষণে বিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়ে রং-বেরংয়ের সিগন্যাল লাইট জ্বলতে থাকে। এছাড়াও শ্যালো ইঞ্জিনে ড্রেজারে বাড়ির ভিটার মাটি কাটতে হঠাৎ পাইপের পানি চাপে মেশিন উল্টো ঘুরতে থাকলে রাসেল বিদ্যুৎ উদ্ভাবনের চিন্তা করেন। বছরে বছরের পর গবেষণার পর প্রথম লাইট জ্বালাতে সক্ষম হন তিনি। এরপর আর গবেষণা না থামিয়ে অবশেষে এ বিদ্যুৎ উদ্ভাবন করেন। তার এ উদ্ভাবিত বিদ্যুৎ পরিবেশবান্ধব, এটি উৎপাদন করতে গ্যাস বা তেল বা জ্বালানির প্রয়োজন হয় না।


ক্ষুদে বিজ্ঞানী রাসেলের অভিমত, তার এ প্রজেক্ট বাণিজ্যিকভাবে চালু করলে স্বল্প খরচে একটি জেলার বিদ্যুতের চাহিদা মেটানো যাবে। খরচের টাকা গ্রাহকের দুই/তিন মাসের বিদুৎ বিলেই উঠে যাবে। এর পর আর উৎপাদন খরচ হবে না। তার এ বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রজেক্ট পরিচালিত করতে বেশি লোকবল প্রয়োজন হবে না। দুই এক জনই যথেষ্ট।



তিনি আরো জানান, সরকার যদি তার উদ্ভাবিত বিদ্যুৎ প্রকল্প নিয়ে ভাবে, তাহলে দেশের শহর, গ্রামগঞ্জের বিদ্যুৎ চাহিদা পূরণে কাজ করবে এ প্রকল্প। এছাড়া দুর্গম অঞ্চলে যেখানে সাধারণ বিদ্যুৎ পৌঁছে দেয়া সম্ভবই না; সেখানে এই বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রকল্প বাস্তবায়ন করলে আলোকিত হবে গ্রামের পর গ্রাম।


বিবার্তা/কামরুল/হুমায়ুন

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com