মৃত নারীর জরায়ু প্রতিস্থাপন থেকে প্রথম শিশুর জন্ম
প্রকাশ : ০৫ ডিসেম্বর ২০১৮, ১৫:৪৪
মৃত নারীর জরায়ু প্রতিস্থাপন থেকে প্রথম শিশুর জন্ম
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

মৃত নারীর শরীর থেকে নেয়া জরায়ু প্রতিস্থাপনের পর সফলভাবে একটি মেয়ে শিশুর জন্ম হয়েছে। এর আগে জীবিত নারীর দান করা জরায়ু প্রতিস্থাপনের পর শিশুর জন্ম হলেও, মৃত নারীর জরায়ু ব্যবহার করে শিশু জন্মের ঘটনা এই প্রথম।


এই সফলতা বন্ধ্যা নারীদের সন্তান জন্ম দেয়ার সম্ভাবনা অনেক বাড়িয়ে দিয়েছে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা।


টানা ১০ ঘণ্টা অপারেশনের পর ব্রাজিলের সাও পাওলোতে ২০১৬ সালে ওই জরায়ুটি প্রতিস্থাপিত হয়। যার শরীরে সেটি স্থাপন করা হয়েছিল, তার শরীরে জন্ম থেকেই জরায়ু ছিল না।


এ পর্যন্ত জীবিত নারীদের শরীর থেকে ৩৯টি জরায়ু প্রতিস্থাপন করা হয়েছে। অনেক ক্ষেত্রে মা তাদের কন্যাকে জরায়ু দান করেছেন। এ রকম প্রতিস্থাপনের পর ১১টি শিশুর জন্ম হয়েছে।


তবে কোন মৃত নারীর শরীর থেকে নেয়া জরায়ুতে বাচ্চা জন্মের ঘটনা এবারই প্রথম। এর আগে যতবার চেষ্টা করা হয়েছে, সেটি ব্যর্থ অথবা গর্ভপাত হয়ে গেছে।


যে নারীর জরায়ু প্রতিস্থাপন করা হয়েছে তিনি ৪০ বছর বয়সে মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণে মারা যান। তার তিনটি সন্তান রয়েছে। আর যে নারীর শরীরে জরায়ু স্থাপন করা হয়, তার যৌনাঙ্গ ও গর্ভাশয় ঠিকভাবে গঠিত হয়নি। তবে তার ডিম্বাশয় ঠিক ছিল। বিশ্বে প্রতি ৪৫০০ জনের মধ্যে একজন নারী এই সমস্যায় ভুগছেন।


চিকিৎসকরা সেখান থেকে ডিম্বাণু নিয়ে সম্ভাব্য পিতার ভ্রূণের সঙ্গে নিষিক্ত করে এবং সেটি হিমায়িত করে রাখে। সেই নারীকে এমন ওষুধ দেয়া হয় যা তার শরীরের রোগ ক্ষমতাকে দুর্বল করে ফেলে, যাতে জরায়ু প্রতিস্থাপনে কোনো বাধা তৈরি না হয়। এর দেড় মাস পর থেকে তার মাসিক হতে শুরু করে।


প্রায় সাত মাস পর নিষিক্ত ডিম্বাণুটি ৩২ বছর বয়সী ওই নারীর জরায়ুতে স্থাপন করা হয়। সবমিলিয়ে স্বাভাবিক গর্ভধারণের পর ২০১৭ সালের ১৫ ডিসেম্বর সিজারিয়ান অপারেশনের পর তিনি আড়াই কেজি ওজনের একটি শিশুর মা হন।


সাও পাওলোর ক্লিনিক্‌স হাসপাতালের চিকিৎসক ড. ডানি ইযেনবার্গ বলেছেন, জীবিত নারীদের শরীর থেকে জরায়ু প্রতিস্থাপন ছিল চিকিৎসা বিজ্ঞানের জন্য একটি যুগান্তকারী ব্যাপার, যার ফলে অনেক নারী মা হওয়ার সুযোগ পেয়েছেন। কিন্তু জীবিত দাতাদের ক্ষেত্রে সমস্যা হলো এরকম দাতা দুর্লভ।


তিনি বলেন, তবে মৃত শরীর থেকে জরায়ু সংগ্রহ করে প্রতিস্থাপন করতে পারাটা অত্যন্ত চমৎকার একটা ব্যাপার।


এই সফলতা আরো অনেক বেশি দাতা পাওয়ার সুযোগ সৃষ্টি করেছে, খরচ কমাবে এবং জীবিত দাতাদের ক্ষেত্রে অস্ত্রোপচারের ঝুঁকি হ্রাস করবে। সূত্র: বিবিসি


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com