মাসকলাই চাষে ঝুঁকছে শেরপুরের কৃষকরা
প্রকাশ : ২১ নভেম্বর ২০১৬, ১৪:২৪
মাসকলাই চাষে ঝুঁকছে শেরপুরের কৃষকরা
শেরপুর প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

এক সময় যেখানে শুধুই বালুচর ছিল কিংবা বছরে এক দুটা আবাদ করা হতো, সেখানে এখন দিগন্ত জুড়ে সবুজের সমারোহ। শেরপুরের চরাঞ্চলে বর্তমানে ব্যাপকভাবে মাসকলাই চাষ হচ্ছে। ফলে চরাঞ্চলে পাল্টে যাচ্ছে চাষাবাদের চিত্র।


মাসকলাই চাষে সার ও পানির অল্প খরচ হয়। আর মাসকলাই চাষের পর বোরো আবাদের ভালো ফলন হওয়ায় কৃষকরা চাষাবাদের চিত্র পাল্টে ফেলেছেন। এই সময়গুলোতে চরাঞ্চলে হয়তো পতিত জমি হয়ে থাকতো কিংবা কেউ কেউ স্বল্প পরিসরে আমন ধান চাষ করতো। কিন্তু এখন সবাই ঝুঁকছে মাসকলাই চাষে।



জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের সূত্রে জানা গেছে, এ বছর জেলার পাঁচটি উপজেলায় প্রায় এক হাজার হেক্টর জমিতে মাসকলাই চাষ করা হয়েছে। গত বছর ৮২০ হেক্টর জমিতে মাসকলাই চাষ করা হয়েছিল। প্রতি বিঘা জমিতে প্রায় এক হাজার টাকা খরচ হয়েছে। প্রতি বিঘাতে পাঁচ মণ করে মাসকলাই পাওয়া যাবে বলে আশা করছেন কৃষকরা। বাজার ভালো থাকলে দুই হাজার ২০০ থেকে দুই হাজার ৩০০ টাকা হারে প্রতি মণ বিক্রি করা যাবে। ডিসেম্বরের শেষে অথবা জানুয়ারির প্রথম দিকে মাসকলাই কাটা শুরু হবে।


কৃষক গোলাম মোস্তফা বলেন, বন্যার পর আমরা কলাইয়ের আবাদ করছি। আশার করি ফলন ভালাই হইবো। এরপর বোরো আবাদ করবাম। বোরোর আবাদও ভালা হইবো।


কৃষক আব্দুল হক বলেন, ‘আমি এ বছর চার বিঘা জমিতে মাসকলাই চাষ করছি। অল্প খরচে এবং অল্প সময়ে আমরা ভালা ফলন পাইয়া থাহি। বাজারে মাসকলাইয়ের চাহিদাও বেশি।’


জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আশরাফ উদ্দিন বলেন, সরকারের কৃষিবান্ধব কর্মসূচির আওতায় আমরা শেরপুর জেলায় এ বছর মাসকলাই উৎপাদন বৃদ্ধি লক্ষে ৭০০ বিঘা জমিতে ৭০০জন কৃষককে প্রণোদনার আওতায় বিনামূল্যে বারি মাস-৩’র বীজ ও রাসায়নিক সার সরবরাহ করেছি। এছাড়া কৃষক নিজেরাও উদ্বুদ্ধ হয়ে মাসকলাই চাষ করেছেন। ফসল ভালো এবং দামও ভালো পাওয়ায় শেরপুরে ব্যাপকভাবে মাসকালাইয়ের দিকে ঝুঁকছে কৃষকরা।


বিবার্তা/সানী/জেমি/জিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com