লামায় জাল দলিলে জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ
প্রকাশ : ১১ অক্টোবর ২০১৬, ১০:৪৭
লামায় জাল দলিলে জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ
লামা প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

বান্দরবানের লামা উপজেলায় জাল দলিল সৃজন করে মো. ফয়েজুল করিম নামে এক কৃষকের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করে চলেছে সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র। শুধু তাই নয়, জমি জবরদখলে নিতে কৃষক পরিবারের ওপর একাধিকবার হামলা ও সৃজিত গাছ কেটে নেয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভোগদখলীয় জমি রক্ষাসহ হামলা ও হয়রানিমূলক মিথ্যা মামলা থেকে প্রতিকার চেয়ে বান্দরবান জেলা প্রশাসকসহ প্রশাসনের বিভিন্ন দপ্তরের হস্তক্ষেপ কামনা করেন অসহায় কৃষক ফয়েজুল করিম।


অভিযোগে জানা যায়, লামা উপজেলার ফাইতং ইউনিয়নের বাসিন্দা আপিংসি মার্মা ১৯৯৫ইং সালের ৫ নভেম্বর বান্দরবান জেলা প্রশাসকের এক আদেশে ওয়ারিশসূত্রে ৩০৬নং ফাইতং মৌজার ১৪নং খতিয়ান মূলে এক একর সাতান্ন শতক প্রথম শ্রেণী জমির মালিক হন। পরবর্তীতে আপিংসি মার্মা এই জমি হতে ১০/৯৮নং ছাফ কবলা দলিল মূলে এক একর চল্লিশ শতক জমি মংচানু মার্মা নামের এক ব্যক্তির নিকট বিক্রি করেন। বাকি সতের শতকসহ সুইচিং মার্মার কাছ থেকে আরও এক একর প্রথম শ্রেণীর জমি বড় মুসলিম পাড়ার বাসিন্দা মরহুম নুরুল হুদার ছেলে কৃষক ফয়েজুল করিম কিনেন। সে সময় থেকে কেনা জমিতে বসতভিটা ও দোকানঘর নির্মাণসহ বাগান বানিয়ে পরিবারপরিজন নিয়ে ভোগ করে আসছেন কৃষক ফয়েজুল করিম।


১০-১১ বছর পর ফাইতং এলাকার বড় মুসলিম পাড়ার বাসিন্দা মো. শফির ছেলে হেলাল উদ্দিন, আবদুর রহমানের ছেলে সাকের আহমদ ও চকরিয়া উপজেলার বাসিন্দা আবু বক্কর ছিদ্দিকের ছেলে জেয়াবুল কবিরের লোলুপ দৃষ্টি পড়ে। তারা এ জমি জবর দখলে নিতে সংঘবদ্ধ হয়ে ২০০৬ সালে ৪৯৪/০৬নং বায়নানামা মূলে আঠাত্তর শতক জমি ক্রয়ের একখানা বায়নানামা বানায়। চক্রটি প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে দলিলে দাগ নং- ১৫৫৫ লিখা থাকলেও পরবর্তীতে দলিলের মূল বালামে দুর্নীতির মাধ্যমে কর্তৃপক্ষকে ম্যানেজ করে ১৫৫৫ দাগের স্থলে ১৬৫৫ লিখে নেন। এবং মিস মামলা মূলে জমি নামজারি করার আবেদন করেন। জাল বায়নানামা হওয়ায় ২০০৭ সালে বান্দরবান জেলা প্রশাসক মিস মামলাটি বাতিল করে দেন। এরপর থেকে শুরু হয় কৃষক ফয়েজুল করিমের জমি জবরদখলের উদ্দেশ্যে হামলা ও মামলা।


তারা গত কয়েক বছরে কৃষকের বিরুদ্ধে লামা, বান্দরবান সদর, কক্সবাজার সদর ও চকরিয়া উপজেলায় প্রায় ১৪-১৫টি মামলা করেন। এসব মামলা তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হয় বলে জানায় কৃষক ফয়েজুল করিম। পরবর্তীতে বিভিন্ন সময় ওই চক্রটি জমি জবর দখলের চেষ্টা করলে ফয়েজুল করিম ২০০৮ সালে লামা উপজেলা নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও বান্দরবান জেলা জজ কোর্টে ১৪৪ ধারায় নিষেধাজ্ঞা চেয়ে মামলা করলে আদালত ওই জমির ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। কিন্তু সংঘবদ্ধ চক্রটি আদালতের নিষেধাজ্ঞাকেও উপেক্ষা করে বিভিন্ন সময় জমি জবরদখলে নিতে হামলা অব্যাহত রেখেছে।


এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৫ সালে ২ মে সকালে হেলালের নেতৃত্বে আরও ৮-১০ জন অস্ত্রেশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে কৃষক ফয়েজুল করিমের সৃজিত ৩০টি একাশিয়া, ১৫টি সেগুন ও ২০০টি বাঁশ গাছ কেটে নিয়ে যায়। এদিকে চক্রটির সৃজিত ভুয়া জাল দলিল বাতিলের জন্য জমির মূল মালিক আপিংসি মার্মা ২০০৭ সালের ১১ জুলাই বান্দরবান জর্জ আদালতে আবেদন করেন। তিনি মারা যাওয়ার পর তার ওয়ারিশগনও ওই ভুয়া বায়নানামা দলিল বাতিলের জন্য পুনরায় বান্দরবান জেলা জজ আদালতে আবেদন করে; যা বিচারাধীন।


এ বিষয়ে স্থানীয় বাসিন্দা নুরুল আলম (৬০), মোবারক হোসেন (৩০) ও সাইফুল ইসলামসহ (৩০) আরও অনেকে সাংবাদিকদের বলেন, ১৯৯৫ সালে ফয়েজুল করিম আপিংসি মার্মা ও তার বড় ভাই সুইচিং মার্মার কাছ থেকে জমি কিনে সেখানে দোকান ও বসতঘর নির্মাণ করে ভোগ করে আসছেন। সম্প্রতি সংঘবদ্ধ একটি চক্র ওই জমি জবরদখলে নেয়ার জন্য কৃষক ফয়েজুল করিমে উপর হামলাসহ বিভিন্নভাবে হয়রানি করছে।


দলিল লিখক চিত্ত রঞ্জন বড়ুয়া বলেন, হেলাল উদ্দিনগং কৌশলে বায়নানামা করার সময় ২০০১ সালের পুরাতন জমাবন্দি ব্যবহার করার কারণে বিষয়টি চোখে পড়েনি। আর মূল বালামে ঘষামাজা করে দাগ পরিবর্তন করার দায় আমার নয়। এদিকে অভিযুক্ত হেলাল উদ্দিন তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেন।


ফাইতং ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য থোয়াইহ্লা মার্মা জানান, তার বাবা আপিংসি মার্মার কাছ থেকে কৃষক ফয়েজুল করিম ১৪নং খতিয়ানের ১৭ শতক জমি ক্রয় করেন এবং ক্রয়কৃত জমি ১৯৯৫ সাল থেকে ভোগ দখল করে আসছেন। তিনি আরও বলেন, তার বাবা হেলাল উদ্দিন গংদের নিকট কোন জমি বিক্রি করেননি। তারা কি মূলে ২০০৭ সাল থেকে ফয়েজুল করিমের জমি দাবি করছে, তা বোধগম্য নয়। তাদের সৃজিত জাল দলিল বাতিলের জন্য বান্দরবান জজ আদালতে আবেদন করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।


বিবার্তা/আরমান/জিয়া


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com