যৌন হয়রানির অভিযোগে বরখাস্ত ঢাকা স্টেট কলেজের শিক্ষক রেজাউল
প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৯, ১৫:২৬
যৌন হয়রানির অভিযোগে বরখাস্ত ঢাকা স্টেট কলেজের শিক্ষক রেজাউল
খলিলুর রহমান
প্রিন্ট অ-অ+

ঢাকা স্টেট কলেজের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ রেজাউল হকের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ তুলেছে ওই কলেজের ছাত্রীরা। অভিযোগের ভিত্তিতে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। প্রাথমিক তদন্ত সাপেক্ষে ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্তও করা হয়েছে।


জানা গেছে, রেজাউল হক দীর্ঘ দিন ধরেই কলেজের ছাত্রীদের সঙ্গে অশালীন আচরণ করতেন। তবে ভয়ে ছাত্রীরা কোনো কথা বলতো না। এক পর্যায়ে ২০০৮ সালে এক ছাত্রীর অভিভাবক তার বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দাখিল করে। পরবর্তীতে সেই অভিযোগ সুকৌশলে মোকাবেলা করে পার পেয়ে যান তিনি। শুধু তাই নয়, সেই সময় ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে ওই অভিযোগ ধামাচাপা দিয়ে দেন তিনি।


২০০৮ সালের অভিযোগের পর কিছু দিন এমন কার্যক্রম থেকে বিরত থাকলেও ফের ছাত্রীদের সাথে একই আচরণ শুরু করেন। এরপর ২০১৮ সালের ৫ সেপ্টেম্বর কলেজের ব্যবসা শাখার ৪৯ ছাত্রী এক হয়ে কলেজ অধ্যক্ষ বরাবারে একটি লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন।


ছাত্রীরা মানসিক ও শারীরিক নিরাপত্তার কথা উল্লেখ করেন ওই অভিযোগপত্রে।


তারা জানান, শিক্ষক রেজাউল হক শ্রেণি কক্ষে ছাত্রীদের সঙ্গে অস্বস্তিকর এবং অপমানজনক আচরণ করেন। ওই আচরণের কারণে ছাত্রীরা মানসিকভাবে বিপর্যন্ত।


শুধু তা-ই নয়, অভিযোগপত্রে ছাত্রীরা শিক্ষক রেজাউল হকের অশালীন আচরণের কিছু নমুনাও তুলে ধরেন।


ছাত্রীরা জানান, রেজাউল ছাত্রীদের বিশেষ বিশেষ স্থানে বাজেভাবে স্পর্শ করতেন। এছাড়া ক্লাসে পড়ানোর সময়ও বাজে উদাহরণ দিতেন, যা কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।


এছাড়াও ছাত্রীদের দিকে খারাপ দৃষ্টিকে তাকানো, ছাত্রীরা ক্লাসে চলাফেরা করার সময় বিভিন্নভাবে তাদের ছোয়াঁর চেষ্টা করা, বিভিন্ন সময় ছাত্রীদের জুতার সাথে তুলনা করাসহ নানাভাবে অসুভ আচরণ করেন রেজাউল।


তবে এসব আচরণের বিরুদ্ধে কথা বলা বা কলেজ কর্তৃপক্ষের কাছে বিচার দিলে ওই ছাত্রীদের ভিডিও বানানো হবে বলেও হুমকি দেন তিনি।


একই অভিযোগের ভিত্তিতে ২০১৮ সালের ২৩ সেপ্টম্বর কলেজ অধ্যক্ষের কাছে আরেকটি অভিযোগ করেন আরো পাঁচ শিক্ষার্থী। ৪৯ জন ছাত্রীর মতো তারাও রেজাউল হকের অশালীন আচরণের কথা অভিযোগপত্রে উল্লেখ করেছেন।


এ ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত শিক্ষক মোহম্মদ রেজাউল হকের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কোনো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।


এদিকে এসব অভিযোগের ভিত্তিতে কলেজ কর্তৃপক্ষ পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে এবং ১০ দিনের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার নিদের্শনা দেয়া হয়। পরবর্তীতে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার পর ২০১৮ সালের ১২ সেপ্টেম্বর রেজাউল হককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।


বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা স্টেট কলেজের অধ্যক্ষ দিলওয়ারা ইসলাম বিবার্তাকে বলেন, শিক্ষার্থীদের অভিযোগের ভিত্তিতে প্রথমে কলেজে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। সেই কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী তাকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। তবে বিষয়টি তদন্তের জন্য উচ্চ পর্যায়ে আরেকটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সেই কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর চুড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।


চুড়ান্ত তদন্ত কমিটির প্রধান সহকারী অধ্যাপক খান রফিকুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিবার্তাকে বলেন, তদন্ত কাজ প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। তদন্ত শেষ হলে প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে।


তবে কবে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়া হবে সেটা বলতে পারেননি তিনি।


বিবার্তা/খলিল

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

বি-৮, ইউরেকা হোমস, ২/এফ/১, 

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com