‘ইনু আ' লীগ থেকে বের হয়ে অস্ত্র হাতে ‍তুলে নিয়েছিলেন’
প্রকাশ : ১০ জুন ২০২১, ১৬:৫৯
‘ইনু আ' লীগ থেকে বের হয়ে অস্ত্র হাতে ‍তুলে নিয়েছিলেন’
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, হাসানুল হক ইনু একজন মুক্তিযোদ্ধা ছিলেন। তিনি আওয়ামী লীগ থেকে বের হয়ে অস্ত্র হাতে ‍তুলে নিয়েছিলেন। গণবাহিনী তৈরি করেছিলেন। আওয়ামী লীগের অনেককে হত্যা করেছেন, আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে সশস্ত্র প্রতিরোধ গড়ে তুলেছিলেন।


তিনি বলেন, কালের চক্রে ওই হাসানুল হক ইনু আওয়ামী লীগের মন্ত্রী হয়ে সবচেয়ে বড় দালালে পরিণত হন। তিনি জিয়াউর রহমানের বিরুদ্ধে কথা বলেন। দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে কথা বলেন।


বৃহস্পতিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪০তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপি আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।


জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গণতন্ত্র ছিল বহুদলীয় তামাশা’, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের এই বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গণতন্ত্র যদি ‘তামাশা’হয়, তাহলে আপনাদের জন্মইতো সেই ‘তামাশা’থেকে। বহুদলীয় গণতন্ত্রকে কেন ‘তামাশা’ বলেন? আপনারাতো বাকশাল করে নিজেদের নাই ঘোষণা দিয়েছিলেন।


তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাহেব অনেক কথা বলেন, তার একটা কথার উত্তর না দিলে অসম্পূর্ণ থেকে যাবে। তিনি বলেছেন, ‘জিয়াউর রহমানের বহুদলীয় গণতন্ত্র ছিল নাকি তামাশা। আরে আপনাদের জন্মইতো ওই বহুদলীয় গণতন্ত্র থেকে। ৭৫ সালে আপনাদের নেতা এবং আপনারা বাকশাল করে নিজেদেরকে নাই ঘোষণা করে দিয়েছিলেন। বলেছিলেন, আমরা বাকশাল, আওয়ামী লীগ নাই। পরে যখন জিয়াউর রহমান সাহেব আপনাদের সুযোগ দিলো। আপনারা নিবন্ধন করেছেন। আপনাদের তিনি আবার নিয়ে এসেছেন ওই বহুদলীয় গণতন্ত্রের মাধ্যমে। এখন আপনারা বলেন তামাশা?


মির্জা ফখরুল দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে প্রশ্ন করে জানতে চান, আজকে দেশনেত্রী খালেদা জিয়া কোথায়? কথা বলেন না কেন? বলেন কোথায়? একজনও স্লোগান দিয়েছেন দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য? একটা স্লোগানও দিয়েছেন? দেননি। আমি একটা স্লোগানও শুনিনি ‘দেশনেত্রীর মুক্তি চাই’। কার জন্য রাজনীতি করছেন? কেন রাজনীতি করছেন? যে নেত্রী তার সারাটা জীবন এই দেশের মানুষের জন্য দিয়েছেন। ৭১ সাল থেকে শুধু নির্যাতন আর নির্যাতন ভোগ করেছেন।


নেতাকর্মীদের তিনি বলেন, আপনাদের মনে একটা গৌরব রাখতে হবে। আমি সেই দল করি যে দলের নেতা জিয়াউর রহমান। আমি সেই দল করি যে দলের নেতার জানাজার সময় লাখ লাখ মানুষ হাউমাউ করে কেঁদেছেন। আমি সেই দল করি যে দলের নেতা কোনো দিন চুরি করেননি, তার চরম শত্রুও বলবে না যে সে চুরি করেছে। এগুলোই শক্তি। এই শক্তি নিয়ে এগোতে হবে। মনে রাখতে হবে, আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাস করি। আমরা গণতন্ত্র ফেরত চাই। আমরা ভোটের অধিকার চাই, ভোটের মাধ্যমে ক্ষমতার পরিবর্তন চাই।


ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সভাপতি হাবিব উন নবী খান সোহেলের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশারের সঞ্চালনায় আলোচনা সভায় আরো বক্তব্য দেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমান উল্লাহ আমান, দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুস সালাম আজাদ, শহীদুল ইসলাম বাবুল ও আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য ইশরাক হোসেন।


বিবার্তা/বিপ্লব/জাই

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com