বগুড়া-১ আসনে উপনির্বাচন
আসন ধরে রাখতে চায় আ.লীগ, পুনরুদ্ধারে তৎপর বিএনপি
প্রকাশ : ০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৮:৪৯
আসন ধরে রাখতে চায় আ.লীগ, পুনরুদ্ধারে তৎপর বিএনপি
সোনাতলা (বগুড়া) প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

বগুড়া-১ (সারিয়াকান্দি-সোনাতলা) আসনের আওয়ামী লীগের টানা তিনবারের সংসদ সদস্য আবদুল মান্নানের মৃত্যুর পর সেখানে কে হচ্ছেন নৌকার পরবর্তী প্রার্থী, তা নিয়ে এলাকায় গুঞ্জন চলছে।


আবদুল মান্নানের অনুসারীরা এই সংসদ সদস্যর স্ত্রী কিংবা ছেলেকে উপনির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হিসেবে চাইছেন। এ নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমেও সরব সংসদ সদস্যর কর্মী-সমর্থকেরা। তবে সংসদ সদস্যর পরিবারের বাইরেও সম্ভাব্য মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসেবে কয়েকজনের নাম শোনা যাচ্ছে।


অন্যদিকে আসনটি পুনরুদ্ধারের সুযোগ কাজে লাগাতে চায় বিএনপি। আগামী উপনির্বাচনে এ আসনে বিএনপির ধানের শীষের প্রার্থী হিসেবে তিনজনের নাম আলোচনায় রয়েছে। উপনির্বাচনের তফসিল ঘোষণা না হলেও এখানে আওয়ামী লীগ-বিএনপির প্রার্থীর মধ্যে যে লড়াই হবে তা সবাই নিশ্চিত।


জেলার সারিয়াকান্দি ও সোনাতলা উপজেলা নিয়ে গঠিত বগুড়া-১ আসনের সদ্য প্রয়াত এমপি আবদুল মান্নান বিএনপির প্রার্থীকে পরাজিত করে ২০০৮ সালে প্রথম এমপি নির্বাচিত হন।এরপর ২০১৪ সালে এবং সর্বশেষ ২০১৮ সালের সংসদ নির্বাচনে তৃতীয়বারের মতো তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।


আব্দুল মান্নান টানা তিনবার এমপি হয়ে যমুনা ও বাঙ্গালী নদী বিধৌত পূর্ব বগুড়ার দুটি উপজেলাকে তিনি প্রায় মডেল উপজেলা হিসেবে গড়ে তোলেন। রাস্তাঘাট, ব্রিজ, কালভার্ট, অভাবীদের চাকরি, শিক্ষা, কর্মসংস্থানসহ বিভিন্নভাবে তিনি উন্নয়নকাজ করে দুটি উপজেলায় আওয়ামী লীগের জন্য পথ প্রশস্ত করেন।


গত ১৮ জানুয়ারি আবদুল মান্নান ইন্তেকাল করেন। হাটে, মাঠে, পথে, ঘাটে সমানে আলোচনা চলছে, আবদুল মান্নানের অবর্তমানে কারা হচ্ছেন এমপি প্রার্থী। তা নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণও। চলছে পক্ষে-বিপক্ষে তর্ক-বিতর্ক। এসব বিতর্ক চলার মধ্যেই শোনা যাচ্ছে বেশ কয়েকজনের নাম।


স্থানীয়রা বলছেন, আবদুল মান্নানের স্ত্রী সাহাদারা মান্নান শিল্পী সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য হয়ে কাজ করছেন। তাদের একমাত্র পুত্র মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন সজল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করছেন। উপজেলার নেতাকর্মীদের মধ্যে আলোচনায় এসেছেন মা অথবা ছেলে এ আসনে সম্ভাব্য প্রার্থী হতে পারেন। দলের নেতা-কর্মীরা বিভিন্ন স্থানে সাহাদারা মান্নান শিল্পীর কথা বলে প্রচারণাও চালাচ্ছেন। কারণ তিনি সশরীরে এলাকার রাজনীতি ও উন্নয়নে সম্পৃক্ত ছিলেন।


সারিয়াকান্দি উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মতিউর রহমান বলেন, মান্নানের অবর্তমানে তার পরিবারের কোনো সদস্য দলীয় প্রার্থী হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। আসনটি ধরে রাখতে তার পরিবারকে নৌকার কান্ডারি করার বিকল্প নেই।


ক্ষমতাসীন দলের মনোনয়নপ্রত্যাশী হিসেবে এমপি মান্নানের ভায়রা ও যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান এবং স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতা ও ব্যবসায়ী ম. আবদুর রাজ্জাকও আলোচনায় রয়েছেন।


আওয়ামী লীগের স্থানীয় নেতাকর্মীরা বলছেন, আবদুর রাজ্জাক এলাকায় সুবিধাবাদী নেতা হিসেবে পরিচিত। বিএনপি আমলে হাওয়া ভবনে ঘনিষ্ঠ ছিলেন তিনি। তারেক রহমানের বন্ধু গিয়াসউদ্দিন আল মামুনের প্রভাবে বিপুল অর্থবিত্তের মালিক হন। আবদুর রাজ্জাক বর্তমানে মার্কেন্টাইল ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, এক্সিম ব্যাংক, ইউসিবিএল ব্যাংক ও সাউথইস্ট ব্যাংকে অন্তত ৩০০ কোটি টাকা ঋণখেলাপী। তবে কানাডার ডাউনটাউন ও স্কারবোরে পাঁচটি বাড়ি ও ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান রয়েছে তার। আবদুর রাজ্জাকের পরিবারের সদস্যরা বেশিরভাগ সময়ই কানাডায় থাকেন। তিনি নিজেও কানাডার নাগরিক।


এছাড়াও আওয়ামী লীগ থেকেই আবার প্রার্থী হওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন সারিয়াকান্দি পৌরসভার মেয়র আলমগীর শাহী সুমন। গত সংসদ নির্বাচনে তিনিও মনোনয়ন পাওয়ার দৌড়ে ছিলেন। এবার তিনি মাঠে নেমেছেন।


মনোনয়নপ্রত্যাশী সিদ্দিকুর রহমান বলেন, ‘আবদুল মান্নান দলকে সুসংগঠিত করেছেন। তার অবর্তমানে স্ত্রী সাহাদারা মান্নানই নৌকার প্রার্থী হোক এটা ব্যক্তিগত চাওয়া। তবে আওয়ামী লীগের সভাপতি নৌকার কান্ডারি হিসেবে যাকে যোগ্য মনে করবেন, তার পক্ষেই কাজ করব। দলের প্রয়োজনে তিনি আমাকে মনোনয়ন দিলে প্রার্থী হব।’


এদিকে বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থীরা হারানো এই আসনটি আবারো উদ্ধারে মাঠে নেমেছেন। প্রচার-প্রচারণাও করে যাচ্ছেন। বিভিন্ন এলাকায় বিএনপির নেতা-কর্মীরা তাদের পছন্দের নেতাদের নাম প্রচার করে যাচ্ছেন। শোনা যাচ্ছে বিএনপি নেতা ও সাবেক এমপি আলহাজ্ব কাজী রফিকুল ইসলামের নাম। তার নামটি বেশি প্রচার হচ্ছে। নেতাকর্মীরা তার পক্ষে বিএনপির মনোনয়ন চেয়ে ভিতরে ভিতরে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। কাজী রফিকুল ইসলাম বিএনপি থেকে মনোনয়নে এমপি নির্বাচিত হয়ে নিজের অর্থায়নে প্রথমে উন্নয়ন কাজ শুরু করেন। সে সময় এলাকার নদীভাঙন মানুষের উন্নয়নে তিনি ভূমিকা রাখেন।


সারিয়াকান্দি ও সোনাতলা নিয়ে গঠিত বগুড়া-১ আসনের বিএনপি নেতা-কর্মীদের সঙ্গে তার সখ্যতাও বেড়েছে আগের থেকে বেশি। কাজী রফিকুল ইসলামের পর প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন জিয়া শিশু-কিশোর সংগঠনের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক মোশারফ হোসেন চৌধুরী। মাঝে-মধ্যেই মোশারফ এলাকায় এসে অসহায় মানুষের জন্য উন্নয়নমূলক কাজ করে দিচ্ছেন। তিনি এই আসন থেকে বিএনপির মনোনয়নপ্রত্যাশী। এ ছাড়া সোনাতলা উপজেলা বিএনপির সভাপতি এ কে এম আহসানুল তৈয়ব জাকির ও বগুড়া ড্যাবের সভাপতি ডা. শাহ মো. শাজাহান আলী প্রার্থী হতে জানান দিয়েছেন।


প্রচারণায় আছেন সারিয়াকান্দি উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি অধ্যক্ষ মোকছেদুল আলম। জাপার একক প্রার্থী হিসেবে তিনি এবার মাঠে নেমেছেন। বিভিন্ন এলাকায় তিনি দোয়াও চেয়েছেন।


স্বাধীনতার পর ১৯৭৩ সালে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে প্রথম এমপি নির্বাচিত হন সিরাজুল ইসলাম সুরুজ। ১৯৭৯ সালে বিএনপির অ্যাড. ওয়াজেদ হোসেন তরফদার, ১৯৮৬ ও ১৯৮৮ সালে জাতীয় পার্টির কর্নেল (অব.) আব্দুল মোমিন মন্ডল, ১৯৯১ ও ১৯৯৬ সালে বিএনপির ডা. হাবিবুর রহমান এমপি নির্বাচিত হন। ২০০১ সালে বিশিষ্ট ব্যবসায়ী কাজী রফিকুল ইসলাম বিএনপির মনোনয়নে নির্বাচিত হন। ২০০৮, ২০১৪ এবং সবশেষ ২০১৮ সালের সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রাথী আব্দুল মান্নান বিজয় পেয়েছিলেন।


জেলা নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা যায়, বগুড়া-১ আসনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩ লাখ ৮ হাজার ৯০২ জন। এর মধ্যে সারিয়াকান্দি উপজেলার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৬৭ হাজার ৭৮২ জন এবং সোনাতলা উপজেলার ভোটার সংখ্যা ১ লাখ ৪১ হাজার ১২০ জন। এছাড়া খুব শিগগিরই নির্বাচন কমিশন এই আসনের নির্বাচনী তফসিল ঘোষণার প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে জানা গেছে।


বিবার্তা/ইকবাল কবির/জাই


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com