''বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইনভার্টার প্রযুক্তির পণ্য প্রয়োজন''
প্রকাশ : ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৮:১৮
''বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইনভার্টার প্রযুক্তির পণ্য প্রয়োজন''
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

ওজোন স্তরের ক্ষয়রোধ এবং বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ন্ত্রণে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ইনভার্টার প্রযুক্তির পণ্য উৎপাদন ও ব্যবহারের প্রতি গুরুত্বারোপ করেছেন বিশেষজ্ঞরা। শনিবার রাজধানীতে ওয়ালটন করপোরেট অফিসের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত ‘ওজোন স্তর এবং বাংলাদেশ’ শীর্ষক বিশেষ সেমিনারে এই পরামর্শ দেন বক্তারা।


‘বিশ্ব ওজোন দিবস’ উপলক্ষে পরিবেশ অধিদপ্তর এবং ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেড যৌথভাবে এই সেমিনারের আয়োজন করে।


সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী। পরিবেশ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সুলতান আহমেদের সভাপতিত্বে সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন ওয়ালটন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম মাহবুবুল আলম। অন্যদের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন পরিবেশ বন ও জলবায়ূ পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব ড. এসএম মঞ্জুরুল হান্নান খান, পরিবেশ অধিপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক কাজী সারওয়ার ইমতিয়াজ হাশমী, ইউএনডিপি প্রতিনিধি আরিফ ফয়সাল ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. এমএএ শওকত চৌধুরী। সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের সিইও প্রকৌশলী আশরাফুল আম্বিয়া। সঞ্চালক ছিলেন ওয়ালটনের ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর উদয় হাকিম।


প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী বলেন, ওজোন স্তর রক্ষা এবং বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ন্ত্রণে সময়মতো যথাযথ পদক্ষেপ নিতে না পারলে পৃথিবীকে রক্ষা করা সম্ভব হবে না। এক্ষেত্রে তিনি বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী পণ্য উৎপাদনের পাশাপাশি জনসাধারণের মধ্যে এসব পণ্য ব্যবহারের প্রতি সচেতনতা তৈরি করতে হবে।


স্বাগত বক্তব্যে ওয়ালটন কর্পোরেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এসএম মাহবুবুল আলম জানান, ওয়ালটন অনেক আগে থেকেই ব্যাপক বিদ্যুত সাশ্রয়ী ইনর্ভার্টার প্রযুক্তির ফ্রিজ এসি তৈরি করছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে এখনও রেফ্রিজারেটর এবং এয়ারকন্ডিশনারের স্টার রেটিং চালু হয়নি। তাই অসংখ্য নিম্নমানের এবং পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর রেফ্রিজারেটর ও এসি বাজারে আসছে। এতে ব্যাপক পরিমানে বিদ্যুৎ অপচয় হচ্ছে। পরিবেশের ক্ষতি হচ্ছে।


পরিবেশ বন ও জলাবয়ূ পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সবিচ ড. এমএম মঞ্জুরুল হান্নান খান, ইলেকট্রনিক্স্য পণ্য রিসাইক্লিং করার উপর জোর দেন।


সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ালটন হাইটেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের সিইও প্রকৌশলী আশরাফুল আম্বিয়া। মূল প্রবন্ধে তিনি বলেন, ওজোন স্তর রক্ষা এবং বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ন্ত্রণের লক্ষ্যে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী অ্যাপ্লায়েন্সেস উৎপাদন করতে ওয়ালটনের গ্রীন কুলিং টেকনোলজীসহ বিভিন্ন পদক্ষেপ তুলে ধরেন।


মূল প্রবন্ধের উপর আলোচনায় বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক ড. এমএএ শওকত চৌধুরী। তিনি ইনভার্টার প্রযুক্তির পণ্য ব্যবহারের উপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এতে একদিকে গ্রাহকের বিদ্যুৎ খরচ যেমন কম, অন্যদিকে এই প্রযুক্তির পণ্য টেকেও বেশি।


ইউএনডিপি প্রতিনিধি আরিফ ফয়সাল বলেন, ওজোন স্তরের ক্ষয়রোধ এবং বৈশ্বিক উষ্ণতা নিয়ন্ত্রণে শুধুমাত্র বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী পণ্য উৎপাদন করাই যথেষ্ট নয়; এজন্য ব্যবহারকারীদের মাঝেও এসব পণ্য ব্যবাহরের প্রতি সচেতনতা তৈরি করতে হবে।


সভাপতির বক্তব্যে পরিবেশ অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক ড. সুলতান আহমেদ বলেন, বিশ্বব্যাপী মন্ট্রিল প্রোটোকল সবচেয়ে সফল। বিশ্বের প্রায় সব দেশই এই প্রোটোকলে স্বাক্ষর করেছে। আর মন্ট্রিল প্রটোকলের সফল বাস্তবায়নে বাংলাদেশ রোল মডেল।


বিবার্তা/বিজ্ঞপ্তি/কামরুল

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com