সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে সৈয়দ মিজানের উদ্যোগ
প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি ২০১৮, ১২:০৩
সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে সৈয়দ মিজানের উদ্যোগ
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

দাপুটে ও মেধাবী একজন ছাত্রনেতা হিসেবে সফল ঢাকা মহানগর উত্তর ছাত্রলীগের সভাপতি সৈয়দ মিজানুর রহমান। এবার তিনি নতুন প্রজন্মকে নিয়ে নতুনভাবে ভাবছেন। সেই ভাবনার বাস্তব প্রতিফলনও ঘটিয়েছেন। গরিব, অসহায় ও সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের নিয়ে দীর্ঘদিন যাবত কাজ করে আসছে ‘শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্র’। সৈয়দ মিজানুর রহমান এ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটির চেয়ারম্যান।


কোমলমতি শিক্ষার্থীদের জীবনযাত্রার মানোন্নয়নের ব্রত নিয়েই চার বছর ধরে কাজ করছে সংগঠনটি। শিক্ষার আলোয় আলোকিত করে তুলতে চাহিদামতো বই, খাতা, কলম, জ্যামিতি বক্স, ব্যাগ, স্কুলের পোশাকসহ প্রয়োজনীয় সব উপকরণাদি তুলে দেয়া হচ্ছে শিশুদের।


বিনা খরচে ইংরেজি, গণিত ও বাংলা বিষয়ে পড়তে পারার সুবিধার পাশাপাশি শৈশবেই শিক্ষার্থীরা জানছে নিজেদের মাতৃভূমির শ্রেষ্ঠ সন্তান, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। শিখছে মহান স্বাধীনতা সংগ্রামে ইতিহাসের মহানায়কের বীরত্বগাঁথা ও সংগ্রামী জীবনের নানা তথ্য। তাদের শেখানো হচ্ছে মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস।


২০১৪ সালের ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবী দিবসে ‘শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্র’টির পথচলা শুরু হয়। রাজধানীর তেজগাঁও রেল স্টেশন ইসলামিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও তেজগাঁও শিল্পাঞ্চল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ১২০ শিক্ষার্থীকে নিয়ে যাত্রা শুরু করে সংগঠনটি। এখন সারা দেশে ১৩টি সেন্টারে ৭৬০ জন সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থী পাচ্ছে প্রয়োজনীয় সব শিক্ষা সামগ্রী।


তাদেরকে সংস্কৃতির শিক্ষা দেয়ার পাশাপাশি যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে প্রযুক্তি জ্ঞানেও সমৃদ্ধ করা হচ্ছে। ২০টি কম্পিউটার সম্বলিত অত্যাধুনিক আইসিটি ল্যাবে তথ্য প্রযুক্তি জ্ঞানে দক্ষ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।


সৈয়দ মিজান বলেন, নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস জানে না। বাঙালি জাতির মহানায়ক, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সম্পর্কেও সঠিক ধারণা নেই তাদের। তাই সুবিধা বঞ্চিত, গরিব ও অসহায় শিক্ষার্থীদের সেইসব জ্ঞান পৌঁছে দিতে নতুন মিশনে নেমেছেন তিনি।


তিনি বলেন, কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মাঝে বঙ্গবন্ধুর বার্তা পৌঁছে দিতে চাই। এ কারণেই আমি এই উদ্যোগ নিয়েছি। যাতে করে শৈশব থেকেই একজন শিশুর মাঝে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ পৌঁছে দেয়া সম্ভব হয়।


সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে নিবন্ধিত এবং এনজিও ব্যুরোতে নিবন্ধিত হবার অপেক্ষায় থাকা এ স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনটি ইতোমধ্যে পা দিয়েছে সাফল্য ও অগ্রযাত্রার চতুর্থ বছরে। রাজধানীর কাওরান বাজারের টিসিবি ভবন অডিটোরিয়ামে শনিবার শিশু প্রতিভা বিকাশ’ কেন্দ্রের তৃতীয় প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন ও শিক্ষা উপকরণ বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তৃতায় স্বেচ্ছাসেবী ও অরাজনৈতিক এ সংগঠনটির কার্যক্রমের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেছেন দেশের সফল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বীর মুক্তিযোদ্ধা আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।


প্রধান আলোচক হিসেবে পররাষ্ট্র মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা: দিপু মনিও শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের কনসেপ্টকে মডেল হিসেবে উল্লেখ করেছেন। বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী অভিন্ন কন্ঠে এ সংগঠনটির প্রশংসা করে উচ্চারণ করলেন, সমাজের সকল মানুষ সাধ্যমতো এগিয়ে এলে শিক্ষাজীবন থেকে ঝরে পড়া শিশুর সংখ্যা কমে আসবে। গরীব-অসহায় মানুষগুলোও তাদের সন্তানদের স্কুলে পাঠাতে আগ্রহী হবেন।


স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, আমাদের শিশুরা আজ যেভাবে বিকশিত হচ্ছে তাতে তারা নিজেদের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে এবং আমাদের মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাসকে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে তুলে ধরবে। শিশুদের মানবিক বিকাশের জন্য উচ্চতর সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্র। আর এর নেপথ্যে রয়েছে এক ঝাঁক মেধাবী তরুণ।


শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্রের পাশে থাকার অঙ্গীকার করে মন্ত্রী বলেন, আজকের শিশুরা আগামীর ভবিষ্যৎ। তারা তাদের এ জীবনের শুরুতে নিজেকে বিকশিত করার শিক্ষা পেলে কখনই ভুল করবে না। নিষ্ঠা ও আন্তরিকতার সঙ্গেই শিশু প্রতিভা বিকাশ কেন্দ্র এ গুরুত্বপূর্ণ কাজটিই করে যাচ্ছে। পরে মন্ত্রী এ প্রতিভা কেন্দ্রের শিশুদের মাঝে ব্যাগসহ বিভিন্ন উপকরণ বিতরণ করেন।


প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পরিবার পরিকল্পনা বিভাগের পরিচালক ডা: মোহাম্মাদ শরীফ, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি লিয়াকত শিকদার, প্রধানমন্ত্রীর প্রটোকল অফিসার এস এম খুরশীদ উল আলম, ব্র্যাক কমিনিউনিকেশন সাত রঙের সাধারণ সম্পদক ইকরামুল কবীর ও তেজগাঁও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা জামিলা আক্তার।


পরে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস ও বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ডিজিটাল বাংলাদেশের বিষয়াদি অনুপম নৃত্যনাট্যের মাধ্যমে তুলে ধরেন এ বিকাশ কেন্দ্রের কোমলমতি শিক্ষার্থীরা।


বিবার্তা/বাণী/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com