পশ্চিমবঙ্গে সিন্ডিকেট রাজত্ব করছে: মোদি
প্রকাশ : ১৬ জুলাই ২০১৮, ১৭:৩৫
পশ্চিমবঙ্গে সিন্ডিকেট রাজত্ব করছে: মোদি
কলকাতা প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি অভিযোগ করেছেন, পশ্চিমবঙ্গের সিন্ডিকেটের রাজত্ব চলছে। সিন্ডিকেটের অনুমতি ছাড়া এই রাজ্যে কোনো কাজই হয় না।


সোমবার পশ্চিমবঙ্গের পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার কলেজ মাঠে কৃষক কল্যাণ সমাবেশে ‘সিন্ডিকেট’ ইস্যুতে রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি ও তার সরকারকে উদ্দেশ্য করে তিনি এ কথা বলেন।


প্রধানমন্ত্রী বলেন ‘পশ্চিমবঙ্গে মা-মাটি-মানুষ সকলের সামনে সরকারের আসল চেহারা চলে এসেছে। সকলেই জানে যে, সিন্ডিকেট ছাড়া এখানে কোনো কাজ হয় না। এ রাজ্যে ভোট ব্যাংকের জন্য সিন্ডিকেট রাজ চলছে। গরীবদের ওপর অত্যাচারেও সিন্ডিকেটের হাত রয়েছে। বিরোধীদের হত্যা করার জন্য সিন্ডিকেট। কারখানা, রাস্তা, হাসপাতাল, স্কুল, কলেজ নির্মাণেও সিন্ডিকেট। পূজা করতেও সিন্ডিকেট। এমনকি সিন্ডিকেট ছাড়া কলেজেও ভর্তি হওয়া যায় না। ভবন নির্মাণের জন্য কোথা থেকে বালু, সিমেন্ট কেনা হবে সেটাও সিন্ডিকেট ঠিক করে। যত রকমের অনৈতিক, বেআইনি কাজ-সবকিছুতেই জড়িত এই সিন্ডিকেট। আসলে সিন্ডিকেট ছাড়া কোনো কাজ করা এখানে অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছে।


মোদির অভিযোগ, ‘বিগত বাম আমলে রাজ্যের অবস্থা যেখানে ছিল তৃণমূলের সরকার ক্ষমতায় এসে অবস্থার আরও অবনতি ঘটিয়েছে। বাংলায় গণতন্ত্রকে ধ্বংস করা হয়েছে। পঞ্চায়েতে জোর জুলুমের মধ্যে ভোট হয়েছে। এখানে দলিত সন্তানদের হত্যা করা হয়েছে। আগামী কয়েক মাসেই তৃণমূলের জুলুমের হাত থেকে সাধারণ মানুষকে মুক্তি দেয়া হবে।


আগামী বছরেই দেশটিতে লোকসভার নির্বাচন। বর্তমানে এই রাজ্যের ৪২ জন সাংসদের মধ্যে বিজেপির সাংসদ সংখ্যা মাত্র দুই জন। কিন্তু সেই সংখ্যাটাকে ২২’এ নিয়ে যাওয়াই এখন তাদের লক্ষ্য।


সে লক্ষ্যেই সভা থেকে কৃষকদের প্রতি মোদি আহবান জানান, ‘আমার সরকার সাধারণ মানুষের সরকার। আমার সরকার কৃষকদের সরকার। ২০২২ সালের মধ্যে কেন্দ্রের সরকার কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার লক্ষ্যমাত্রা হাতে নিয়েছে।’


মঞ্চ ভেঙে ২০ জন আহত


এদিকে, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভায় উপস্থিত থাকা অবস্থায়ই প্যান্ডেলের একাংশ ভেঙে পড়ে। এতে আহত হন প্রায় ২০ জন। মঞ্চে আরও ছিলেন দেশটির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়, এসএস আলুওয়ালিয়া, বিজেপি নেতা মুকুল রায়, দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহার মতো নেতারা।


মোদিসহ অন্য নেতারা যে মঞ্চে বসেছিলেন ঠিক তার উল্টো দিকেই ছিল আরও দুইটি মঞ্চ। মোদির বক্তৃতা শুরুর কিছু পরেই হঠাৎ করেই বাম দিকের লোহার পাইপ দিয়ে তৈরি মঞ্চের একাংশ হুড়মুড় করে ভেঙে পড়ে।


আহতদের মধ্যে কয়েকজন জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। সমাবেশে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। মুহুর্তের মধ্যেই আহতদের অ্যাম্বুলেন্স, মোটরবাইক, ইঞ্জিন ভ্যানে করে মেদিনীপুর হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি করা হয়। আহতদের মধ্যে বেশিরভাগই নারী বলে জানা গেছে।



গত রবিবারের ভারী বর্ষণের পর সোমবার সকাল থেকে এমনকি সভা চলাকালীন সময়েও ঝিরঝির বৃষ্টি হতে থাকে। বৃষ্টি থেকে বাঁচতে নেতাকর্মীদের অনেকেই এ দিন দুর্ঘটনাগ্রস্থ মঞ্চটির ওপর চড়ে বসেন। স্বাভাবিকভাবেই মাটি আলগা হওয়ার কারণে মঞ্চটি ভেঙে পড়ে।


এরপর সভা শেষ করেই সভাস্থল থেকে সরাসরি হাসপাতালে যান প্রধানমন্ত্রী। সেখানে আহতদের সাথে কথা বলেন। তাদের সুচিকিৎসার নির্দেশ দেন নরেন্দ্র মোদি।


বিবার্তা/ডিডি/কামরুল

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com