চুরি করা কবিতা দিয়ে আস্ত বই !
প্রকাশ : ০৫ মার্চ ২০১৮, ১৮:০৫
চুরি করা কবিতা দিয়ে আস্ত বই !
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

তিনি একজন কবি, নাম তার জাহিদ জেহান। তার প্রথম কবিতার বই "সফেদ ক্যানভাস"। এবারের একুশে বইমেলায় প্রকাশিত হয়েছেশাহবাগের নামজাদা এক প্রকাশনী থেকে। বইটিতে ৪২টি কবিতা রয়েছে। মজার ব্যাপাহলো, তিন-চারটে বাদে মোটামুটি সব কবিতাই বিভিন্ন কবির লেখা, যেগুলোকে নিজের লেখা বলে একেবারে অবিকলভাবে ছাপিয়েছেন, দাঁড়ি-কমাটিও পর্যন্ত এদিক-সেদিক করেননি। একটি বাদে প্রত্যেকটি চোরাই কবিতার শিরোনামই তিনি বদলে দিয়েছেন।


তার বইয়ের দ্বিতীয় কবিতাটির শিরোনাম "কবি"। কবিতাটি প্রয়াত কবি মাহবুবুল হক শাকিল ভাইকে উৎসর্গ করা। কবিতাটি শাকিল ভাইয়ের মৃত্যুর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় লিখেছিলেন কবি জে রয়। কবিতাটি চুরি করে গ্রন্থভুক্ত করেছেন জেহান।


ঠিক এভাবে দশ নম্বর পাতার "স্লোগান" কবিতাটি জহিরুল ইসলাম অনি'র ফেসবুক থেকে অবিকলভাবে চুরি করা।


এভাবে যেসব কবির কবিতা চুরি করে নিজের বলে বইতে ছাপিয়ে দিয়েছেন জেহান, তার কিছু নমুনা দিলাম এখানে। ১১ নম্বর পৃষ্ঠায় ''আধুনিকায়ন'' শিরোনামের কবিতাটির মূল কবি জহিরুল ইসলাম অনি। ১২ নম্বর পৃষ্ঠার "অব্যক্ত লজ্জা" শিরোনামের কবিতাটির মূল কবি হলেন আবুল হাসনাত বাঁধন। ১৩ নম্বর পৃষ্ঠার "আয়ু" কবিতার কবি সাদ আহমেদ। ১৪ নম্বর পৃষ্ঠার "অবহেলার সময়" কবিতাটির মূল কবি হলেন জহিরুল ইসলাম অনি। ১৬ নম্বর পৃষ্ঠার "পাখির নেকলেস" কবিতাটির কবি হচ্ছেন নাহিদ ধ্রুব। ২১ নম্বর পৃষ্ঠায় "মনে পড়ে হিমাংশু" নামের কবিতাটির কবি হলেন আবুল হাসনাত বাঁধন। ২৬ নম্বর পৃষ্ঠার "অমেয় ভালোবাসা" কবিতাটির কবিও আবুল হাসনাত বাঁধন।


একইভাবে ২৭ পৃষ্ঠার "শাশ্বত" কবিতাটির কবি অভিজিৎ রায় চৌধুরী। ২৮ নম্বর পাতার "অন্বেষণ" শিরোনামের কবিতাটির কবি আবুল হাসনাত বাঁধন। "সংক্রমিত" কবিতার কবি পরাগ আজিজ। "ব্যামো" কবিতার কবি জহিরুল ইসলাম অনি। "এপিটাফ'' কবিতার কবি আবুল হাসনাত বাঁধন। "দুর্মর আকাঙ্ক্ষা" কবিতার মূল কবি নাহিদ ধ্রুব। "ছায়া" নামের কবিতাটির কবি হিমেল হাসান বৈরাগী। "নির্ঘুম মৃয়মাণ" নামের কবিতাটির কবি হচ্ছেন সামহোয়্যার ইন ব্লগের জনপ্রিয় ব্লগার হোসাইন দ্য এটিম। কবিতাটি আরিফ জেবতিকের ওয়াল থেকে ১৬৭টি বার শেয়ার হয়েছে।


"আমার ভুল জন্মে নষ্ট হয়নি কিছুই" নামের কবিতাটির কবি হচ্ছেন নাহিদ ধ্রুব। "রাতের গ্রাফিক" কবিতাটির কবি মিতা চার্বাক। "প্যারিস রোডের আইল্যান্ডের মলাট" কবিতার কবি হচ্ছেন আবুল হাসনাত বাঁধন। "শব্দের শবদেহ" শিরোনামের কবিতার কবি রানিতা পারিন। চুরি করে গ্রন্থভুক্ত কবিতার ভেতরে এটাই একমাত্র কবিতা, যেটায় মূল কবির কবিতার শারীরিক কাঠামোকে বিকৃত করা হয়েছে। মূল কবির কবিতা থেকে কবিতাটির প্রথম তিন লাইন এবং শেষ লাইনের দুটো শব্দ বাদ দেয়া হয়েছে।


৪২ নাম্বার পৃষ্ঠায় গ্রন্থভুক্ত কবিতাটির কবি হচ্ছেন কালপুরুষ। "রোহিণীর জন্য একটি রাষ্ট্র" কাব্যগ্রন্থের "আমাকে ভালো লাগে না আর?" শিরোনামের কবিতাটিকে এখানে "জল ও পাহাড়" শিরোনামে উপস্থাপন করেছেন ''কবি'' জাহিদ জেহান। পরের পাতায় গ্রন্থভুক্ত "পিপীলিকা" কবিতার কবি হচ্ছেন পরাগ আজিজ। "উপলব্ধি" কবিতার কবি নাহিদ ধ্রুব।বইয়ে এটাই একমাত্র কবিতা, যেখানে মূল কবির শিরোনাম অপরিবর্তিত আছে।


৪৬ পাতার "শেষ কবিতা" নামের কবিতাটি ''মহান বিপ্লবী কবি'' জাহিদ জেহান-এর "সফেদ ক্যানভাস" বইয়ের শেষ কবিতা! আর এই কবিতাটিরও কবি হচ্ছেন জহিরুল ইসলাম অনি।


নিজের সম্পর্কে বলতে গিয়ে জেহান ফ্ল্যাপে লিখেছেন যে তিনি ২০১০ এ মানবজমিন সাহিত্য পুরষ্কার অর্জন করেছেন।


কবিতা সম্পর্কে অভিমত ব্যক্ত করতে গিয়ে পাশাপাশি পাঠকের উদ্দেশে তিনি প্রশ্ন ছুড়ে দিয়েছেন, সত্যিই কি কবিতা আলোচনার যোগ্য?


কবিতা নিয়ে সত্যিই আলোচনা হতে পারে কিনা এ নিয়ে হয়তো বিতর্ক হতে পারে। তবে আমি কোনোভাবেই আর তার কথা নিয়ে আলোচনায় যেতে চাই না। কারণ, সম্ভবত তিনিই প্রথম ব্যক্তি, যিনি আস্ত একটা বইয়ের সব কবিতাই চুরি করে বই ছাপিয়েছেন।


চোরাই লেখায় বোঝাই বইটি প্রকাশ করেছে শ্রাবণ প্রকাশনী । প্রকাশক রবীন আহসান। প্রচ্ছদ করেছেন কামরুল আহসান। দাম একশত ষাট টাকা।


শাহ আলম বাদশা'র ফেসবুক থেকে


বিবার্তা/হুমায়ুন/মৌসুমী

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com