বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়ার স্ত্রীও জড়িত: শেখ হাসিনা
প্রকাশ : ১৬ আগস্ট ২০১৮, ২০:০৮
বঙ্গবন্ধু হত্যায় জিয়ার স্ত্রীও জড়িত: শেখ হাসিনা
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যার ষড়যন্ত্রে জিয়াউর রহমানের সঙ্গে তার স্ত্রীও জড়িত ছিলেন বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা।


জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে দলটির আলোচনা সভায় তিনি বলেন, জাতির পিতার আত্মস্বীকৃত খুনিদের ভোট চুরি করে পার্লামেন্টে বসিয়েছিলো জিয়ার স্ত্রী (খালেদা জিয়া)। তার অর্থ কি দাঁড়াচ্ছে? জিয়াউর রহমান একাই নয়, তার স্ত্রীও ১৫ আগস্টের হত্যার ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত ছিলেন।


বৃহস্পতিবার বিকালে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আয়োজিত এই সভায় তিনি আরও বলেন, খুনিরা খুনিই হয়। এই খুনিরা ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা চালিয়েছে। বার বার আমাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। কাজেই এদের হাতে দেশের ক্ষমতা গেলে দেশের কি উন্নতি হবে, দেশের মানুষ কি ন্যায় বিচার পাবে?


প্রধানমন্ত্রী বলেন, সংবিধান লঙ্ঘন করে জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রক্ষমতায় এসেছিল। অন্যায়ের মধ্যে দিয়ে যাদের ক্ষমতা দখল তারা কখনও ন্যায় বিচার করতে পারে না।


১৫ আগস্ট বাঙালি জাতির জন্য সবচেয়ে কলঙ্কজনক দিন হিসেবে উল্লেখ করে আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, জাতির পিতা বেঁচে থাকলে, তাঁর হাতে রাষ্ট্র ক্ষমতা যদি থাকতো তবে স্বাধীনতার ১০ বছরের মধ্যে বাঙালি জাতি ক্ষুধা দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত জাতি হিসেবে গড়ে উঠতো, উন্নত জাতি হিসেবে বিশ্বে মর্যাদা পেতো।


নিরাপদ সড়ক আন্দোলন প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, যারা স্কুলের ছোট ছোট ছেলে-মেয়েদের নিয়ে খেলতে চায় তারা দেশ ও জাতির শত্রু। তাদের খেলতে দেয়া হবে না। অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেয়া হবে না। বিচার হবেই। এখনো যারা ষড়যন্ত্র করছেন তারা সাবধান হোন। যারা এদেশে গণতন্ত্র দেখতে চান না, তারাও সাবধান হোন। বাংলাদেশের গণতন্ত্র নিয়ে কাউকে ছিনিমিনি খেলতে দেয়া হবে না।


শেখ হাসিনা প্রশ্ন রাখেন, ‘শিশুদের আন্দোলনে পুলিশ প্রশাসনসহ সর্বস্তরের মানুষ ধৈর্য দেখিয়েছে। কিন্তু এ আন্দোলনকে নিয়ে বুড়ো হাবড়ারা কেন শিশু হয়ে গিয়েছিল। তাদের শিশু হওয়ার ইচ্ছে হয়েছিল কেন?’


তিনি বলেন, ‘যারা শিশুদের নিয়ে খেলতে চেয়েছিল, শিশুদের ঘাড়ে বন্দুক রেখে ফায়দা হাসিল করতে চেয়েছিল, তারা দেশের শত্রু, জাতির শত্রু। বাস দুর্ঘটনায় দুই শিশু মারা গেছে। আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নিয়েছি। কিন্তু এই দুর্ঘটনাকে কেন্দ্র করে গড়ে ওঠা আন্দোলনে একদল উসকানি দিয়েছে। ডিজিটাল বাংলাদেশ আমরা করেছি। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করে উসকানি দিয়ে দিয়ে তারা শিক্ষার্থীদের আন্দোলনকে ভিন্নখাতে নেয়ার চেষ্টা করেছে। পাকিস্তানি চিন্তা-চেতনা যাদের মধ্যে রয়েছে, যারা সবুর খানের বংশধর, তারা এর (শিক্ষার্থীদের আন্দোলন) উসকানিদাতা।’


পাকিস্তানি চিন্তা চেতনায় বিশ্বাসীরা নিরাপদ সড়ক আন্দোলনকে ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য উসকানি দিয়েছে মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘দামি দামি লেখক-সাংবাদিকরা অপরাধ করলে তাদের অপরাধ কী কারণে অপরাধ নয়? লেখার স্বাধীনতা আছে। কিন্তু লেখার মাধ্যমে দামি লেখক-সাংবাদিকরা দেশটাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছিলেন, সে উপলব্ধি কি তাদের থাকবে না? উসকানিদাতাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে অন্যায় হয়ে যাবে?’


বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেন, ‘স্কুল ড্রেস বানানোর হিড়িক পড়ে গিয়েছিল, দর্জিরা স্কুল ড্রেস সাপ্লাই দিয়ে কুলিয়ে উঠতে পারেনি। শিশুদের ব্যাগে থাকবে বই-খাতা-কলম, কিন্তু সেখানে চাইনিজ কুড়াল, পাথর কেন? সেসব বুড়া হাবড়াদের গ্রেফতার করলে কেন হাহাকার? বড় বড় লেখক-সাংবাদিকরা কী সেটা দেখবেন না, লিখবেন না? তাদের কলমের কালি কী ফুরিয়ে গেলো? যে যত বড়ই হোক, যারা অন্যায় করবে, তাদের বিচার কি এদেশে হবে না?’


আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, খুনিদের রাজত্ব এদেশে আর কায়েম হবে না। যারা ভাবছেন অবৈধভাবে ক্ষমতায় গেলে কিছু পদ পদবী পাবেন তারা সে আশাবাদ দেন। যাদের কারণে বাংলাদেশে বার বার গণতন্ত্র হারিয়েছে তারা আর কোনদিন অবৈধভাবে ক্ষমতায় আসতে পারবেন না।


শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ। দেশের উন্নয়ন অগ্রগতি হচ্ছে, দেশের মানুষ ভালো আছে। মানুষের পেটে ভাত আছে। সমুদ্রসীমা থেকে মহাকাশ পর্যন্ত জয় করেছি। দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। এগিয়ে যাবে।


অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, সাম্যবাদী দলের প্রধান দিলীপ বড়ুয়া ও যুগ্ম-সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ও উপ-প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম।


বিবার্তা/কামরুল/কাফী


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com