১৫ আগস্ট বেঁচে যাওয়া শেখ হাসিনা টার্গেট হলেন ২১ আগস্ট!
প্রকাশ : ২১ আগস্ট ২০২০, ১৯:১৫
১৫ আগস্ট বেঁচে যাওয়া শেখ হাসিনা টার্গেট হলেন ২১ আগস্ট!
এফ এম শাহীন
প্রিন্ট অ-অ+

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৯৭২ সালের ১০ জানুয়ারি পাকিস্তানের কারাগার থেকে তার আজীবন লড়াই-সংগ্রামে অর্জিত স্বপ্নের দেশে ফেরার পর ১৮ জানুয়ারি ব্রিটিশ সাংবাদিক ডেভিড ফ্রস্টকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, ‘যে মানুষ মরতে রাজি, তাকে কেউ মারতে পারে না। আপনি একজন মানুষকে হত্যা করতে পারেন। সেটা তো তার দেহ। কিন্তু তার আত্মাকে কি আপনি হত্যা করতে পারেন? না তা কেউ পারে না। এটাই আমার বিশ্বাস।’


১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট বাঙালির জাতির পিতা শেখ মুজিবের দেহবিনাশ হলেও প্রতি-দিন-প্রতি-ক্ষণ কোটি কোটি বাঙালি নতুন করে আবিষ্কার করেছে বাঙালির জাগরণের এই মহাজাদুকরকে, পুনর্জন্ম দিয়েছে তাদের অন্তরে, সংগ্রামে, প্রতিবাদে, বঞ্চনায় ও অধিকারের লড়াইয়ে। জাতির পিতার যে দর্শন পাকিস্তানী মতাদর্শের প্রেতাত্মারা থামিয়ে দিতে চেয়েছিল দেশি-বিদেশি ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে, সেই মানব মুক্তির দর্শন আজ কোটি কোটি বাঙালি ধারণ করে তাদের হৃদয়ে। যারা ভেবেছিল শেখ মুজিবের দেহের বিনাশের মাধ্যমে মুছে ফেলা যাবে বাঙালির মন ও মনন থেকে কিন্তু বাঙালির অন্তর থেকে মুছে ফেলা যায়নি বরং বারংবার ফিরে এসেছে তাদের স্বপ্নের স্বদেশে মহাকালের এক অবিনশ্বর চরিত্র ধারণ করে। নিজের জীবনের চেয়েও দেশ আর দেশের মানুষকে যিনি ভালোবেসে ছিলেন, ফাঁসি নিশ্চিত জেনেও যিনি পাকিস্তানের কারাগারে বসে আপোস করেননি স্বাধীনতার প্রশ্নে, যিনি বারবার জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বলেছিলেন, এ দেশের স্বাধীনতা আর জনসাধারণের আর্থ-সামাজিক মুক্তির কথা, এ জাতি তারই উত্তরসূরি।


একই সাক্ষাৎকারে ডেভিড ফ্রস্ট বাঙালির জাগরণের মহাজাদুকর বঙ্গবন্ধুকে প্রশ্ন করেছিলেন, Mr. President, what is your qualification? বঙ্গবন্ধুর তাৎক্ষণিক জবাব ছিল- I love my people. ডেভিড ফ্রস্ট এমন জবাবের জন্য প্রস্তুত ছিলেন না। কারণ, তিনি আসলে বঙ্গবন্ধুর শিক্ষাগত যোগ্যতার বিষয়ে জিজ্ঞেস করেছিলেন। বিমোহিত ফ্রস্ট-এর পরের প্রশ্ন- what is your disqualification? এবার যে উত্তরটি তিনি পেলেন, তাতেই আজীবনের জন্য বঙ্গবন্ধুর ভক্ত হয়ে গিয়েছিলেন ওই বিখ্যাত ব্রিটিশ সাংবাদিক। একটু সময় নিয়ে চশমার ঈষৎ ধোঁয়াটে কাঁচ মুছতে মুছতে বঙ্গবন্ধু বললেন- I love them too much.


পাকিস্তানের মিয়ানওয়ালী কারাগারের নির্জন একটি সেলের মধ্যে বঙ্গবন্ধুর নয় মাস চৌদ্দ দিন রাখার পর বাংকার করার নামে খোড়া হয়েছিল কবর। কবর খোড়ার কথা শুনে বঙ্গবন্ধু এক কারা রক্ষীকে বলেছিলেন, "কবরকে আমি ভয় পাই না। আমি তো জানি ওরা আমাকে ফাঁসী দেবে। কিন্তু আমি জানি আমার বাংলাদেশ একদিন স্বাধীন হবে। এবং আমি এও জানি, বাংলার দামাল ছেলেরা হাসিমুখে মৃত্যুকে আলিঙ্গন করতে পারে। সেই বাঙালি জাতিকে কেউ দাবিয়ে রাখতে পারবে না।" সেদিন সেই রক্ষীকে আরো বললেন, "আমাকে হত্যা করে এই কবরে না, এই লাশটি আমার বাংলার মানুষের কাছে পৌঁছে দিও। যে বাংলার আলো-বাতাসে আমি বর্ধিত হয়েছি- সেই বাংলার মাটিতে আমি চির-নিদ্রায় শায়িত থাকতে চাই।"


বাঙালির ইতিহাসের অন্ধকারতম অধ্যায় পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টে খুনি মোস্তাক চক্র ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে নিজ বাসভবনে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে বুলেটের আঘাতে ঝাঁঝরা করে দিয়েছিল। সেই কালরাত্রিতে বাঙালি হারিয়েছিল জাতির অবিসংবাদিত নেতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছিল বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী শেখ ফজিলাতুননেছা, পুত্র শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, জামালের স্ত্রী রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর ভাই শেখ নাসের, এসবি অফিসার সিদ্দিকুর রহমান, কর্ণেল জামিল, সেনা সদস্য সৈয়দ মাহবুবুল হক, প্রায় একই সময়ে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবলীগ নেতা শেখ ফজলুল হক মণির বাসায় হামলা চালিয়ে শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তসত্তা স্ত্রী আরজু মণি, বঙ্গবন্ধুর ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াতের বাসায় হামলা করে সেরনিয়াবাত ও তার কন্যা বেবী, পুত্র আরিফ সেরনিয়াবাত, নাতি সুকান্ত বাবু, আবদুর রব সেরনিয়াবাতের বড় ভাইয়ের ছেলে সজীব সেরনিয়াবত এবং এক আত্মীয় রেন্টু খানকে।


বিশ্ব ও মানবসভ্যতার ইতিহাসে ঘৃণ্য ও নৃশংসতম এই হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে সেদিন শুধু বঙ্গবন্ধুকেই নয়, তার সঙ্গে বাঙালির স্বাধীনতার আদর্শগুলোকেও হত্যা করতে চেয়েছিল। মুছে ফেলতে অপপ্রয়াস চালিয়েছিল বাঙালির বীরত্বগাথার ইতিহাসও। মিথ্যাচার ও ইতিহাসের বিকৃতি করে সত্যকে আড়াল করতে চেয়েছিল তারা। আজ বিভিন্ন দেশের গোয়েন্দা রিপোর্ট ও দূতাবাসের গোপন নথি প্রকাশের মাধ্যমে আমাদের বুঝতে অসুবিধা হয় না দেশীয় ও আন্তর্জাতিক মিলিত চক্রান্তের নাম ১৫ আগস্ট। পৃথিবীর ইতিহাসে এরকম জঘন্যতম ও নৃশংসতম হত্যাকাণ্ডের দ্বিতীয় কোনো নজির নেই। ৩০ লাখ শহীদের জীবনের বিনিময়ে অর্জিত যেই দেশ, সেই যুদ্ধের যে মহানায়ক সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি শেখ মুজিবুর রহমান, তাঁকেই হত্যা করা হলো তার নিজের বাসভবনে। পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠী যাকে হত্যা করতে সাহস পায়নি, দেশীয় ও আন্তর্জাতিক চক্রান্তকারীরা সেই ১৯৭১ সালের পরাজয়ের প্রতিশোধ নিল মাত্র সাড়ে তিন বছরের মাথায়, তাকে হত্যা করে রাষ্ট্রক্ষমতা পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে।


গোপালগঞ্জ থেকে উঠে আসা সেই লম্বা মানুষটি বাঙালির হৃদয়ে এতটা উচ্চতায় আসীন হয়েছিলেন ভালোবাসা দিয়ে এবং অধিকার বঞ্চিত মানুষের লড়াইয়ে, যা আর কারো স্পর্শ করার মত যোগ্যতা ছিল না। তাই সরদার ফজলুল করিম লিখলেন, শেখ মুজিবকে আমরা ঈর্ষা করেছি আমাদের অতিক্রম করে বড় হওয়াতে। সবদিকে বড়। তেজে, সাহসে, স্নেহে, ভালোবাসায় এবং দুর্বলতায়, সবদিকে এবং সেই ঈর্ষা থেকেই আমরা তাকে হত্যা করেছি। কেবল এই কথাটি বুঝিনি যে, ঈর্ষায় পীড়িত হয়ে ঈর্ষিতের স্থান দখল করা যায় না। তাইতো এই ভূখণ্ডে মুজিবের স্থায়ী অবস্থান মধ্য গগনে এবং তার নাম শুনে শোষকের সিংহাসন কাঁপে।


১৫ আগস্টের নৃশংসতম হত্যাকান্ডের সাথে যুক্ত খুনিদের পুরস্কৃত করা হয়েছিল নানাভাবে। হত্যার বিচার ঠেকাতে কুখ্যাত ‘ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করেছিল বঙ্গবন্ধুর খুনি খন্দকার মোশতাক সরকার। পরবর্তীতে বঙ্গবন্ধুর খুনি ও মহান মুক্তিযুদ্ধের গণহত্যাকারীদের রাজনৈতিকভাবে পুনর্বাসিত করা হয়েছিল।


১৯৭৬ সালের ৮ জুন ১৫ আগস্ট হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার দায়ে অভিযুক্ত হত্যাকারী চক্রের ১২ জনকে পুরষ্কার সরূপ বিভিন্ন দূতাবাসে চাকরি দেয়া হয়েছিল, লে. কর্নেল শরিফুল হককে (ডালিম) চীনে প্রথম সচিব, লে. কর্নেল আজিজ পাশাকে আর্জেন্টিনায় প্রথম সচিব, মেজর এ কে এম মহিউদ্দিন আহমেদকে আলজেরিয়ায় প্রথম সচিব, মেজর বজলুল হুদাকে পাকিস্তানে দ্বিতীয় সচিব, মেজর শাহরিয়ার রশিদকে ইন্দোনেশিয়ায় দ্বিতীয় সচিব, মেজর রাশেদ চৌধুরীকে সৌদি আরবে দ্বিতীয় সচিব, মেজর নূর চৌধুরীকে ইরানে দ্বিতীয় সচিব, মেজর শরিফুল হোসেনকে কুয়েতে দ্বিতীয় সচিব, কর্নেল কিসমত হাশেমকে আবুধাবিতে তৃতীয় সচিব, লে. খায়রুজ্জামানকে মিসরে তৃতীয় সচিব, লে. নাজমুল হোসেনকে কানাডায় তৃতীয় সচিব, লে. আবদুল মাজেদকে সেনেগালে তৃতীয় সচিব হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়েছিল।


খুনিদের বাঁচানোর জন্য ১৯৭৫ সালের ২৬ সেপ্টেম্বর স্ব-ঘোষিত রাষ্ট্রপতি খুনি খন্দকার মোশতাক আহমেদ ইনডেমনিটি (দায়মুক্তি) অধ্যাদেশ জারি করে। অধ্যাদেশটিতে দুটি ভাগ আছে। প্রথম অংশে বলা হয়েছে, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ভোরে বলবত্ আইনের পরিপন্থী যা কিছুই ঘটুক না কেন, এ ব্যাপারে সুপ্রিম কোর্টসহ কোনো আদালতে মামলা, অভিযোগ দায়ের বা কোনো আইনি প্রক্রিয়ায় যাওয়া যাবে না। দ্বিতীয় অংশে বলা আছে, রাষ্ট্রপতি উল্লিখিত ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে যাদের প্রত্যয়ন করবেন তাদের দায়মুক্তি দেয়া হলো।


লেখক: সম্পাদক, ডেইলি জাগরণ ডট কম, সাধারণ সম্পাদক, গৌরব ’৭১, সংগঠক, গণজাগরণ মঞ্চ।


বিবার্তা/জাই


সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com