নির্বাচন পেছানোর আর কোনো সুযোগ নেই: সিইসি
প্রকাশ : ১৩ নভেম্বর ২০১৮, ১২:২০
নির্বাচন পেছানোর আর কোনো সুযোগ নেই: সিইসি
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কে এম নূরুল হুদা বলেছেন, ৩০ ডিসেম্বরের পর আর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পেছানোর আর কোনো সুযোগ নেই।


নির্বাচন উপলক্ষে নির্বাচন কমিশন (ইসি) সচিবালয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের ব্রিফিংয়ে প্রধান অতিথির বক্তেব্য তিনি এ কথা বলেন।


আগামী ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। আগে এই তারিখ ২৩ ডিসেম্বর থাকলেও সোমবার দুপুরে তারিখ পরিবর্তন করে পুনঃতফসিল ঘোষণা করে ইসি।


সিইসি বলেন, ৩০ তারিখে নির্বাচনের তারিখ নির্ধারিত হয়েছে। এরপর আর নির্বাচনের তারিখ পেছানোর কোনো সুযোগ নেই। কারণ বর্তমান সংসদের মেয়াদপূর্তি হবে ২৮ জানুয়ারি। ৩০ ডিসেম্বর ভোট হলে নতুন সরকার গঠনের জন্য হাতে সময় থাকছে ২৯ দিন।


তিনি বলেন, এই ২৯ দিন কিন্তু খুব বড় কোনো সময় না। নির্বাচনের যে ফলাফলগুলো আসবে সেগুলোর গেজেট করা, এই ৩০০ আসনের গেজেট করা কিন্তু যা-তা বিষয় না।


নূরুল হুদা বলেন, সংসদ ও সরকার বহাল থেকে এবার নির্বাচন হওয়ায় অন্যান্য বারের থেকে এবারের পেক্ষাপট ভিন্ন। এর আগে কখনো তত্ত্বাবধায়ক সরকার, কখনো সেনাবাহিনী এবং একক দলের নির্বাচন হয়। তাই এবার ভোটে রাজনৈতিক চাপ বেশি।


তিনি বলেন, এবার নতুন আইনে এবং ভিন্ন রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে নির্বাচন হবে। তাই এবার জাতি রিটার্নিং কর্মকর্তাদের দিকে তাকিয়ে আছে। সরকার বহাল থেকে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়, এ নির্বাচনের মাধ্যমে সেটি প্রমাণ হবে।


এছাড়া মন্ত্রী, এমপি ও প্রভাবশালী ব্যক্তিদের থেকে চাপ এলে আইনি পদক্ষেপ নিতে হবে বলেও জানান তিনি।


সিইসি বলেন, ভোটের সময় নির্বাচন কমিশনের কোনো হাত থাকে না। সব দায়িত্ব আপনাদের। ইসির গুরুত্বপূর্ণ অংশ রিটার্নিং কর্মকর্তারা। আন্তরিকতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করলে আপনাদের ওপর মানুষের সন্দেহ তৈরি হবে না। ভোটের অধিকার বাস্তবায়নে সে দায়িত্ব গ্রহণ করতে হবে।


নির্বাচন পরিচালনায় কমিশন যেন প্রশ্নবিদ্ধ না হয়, এমন কথা উল্লেখ করে তিনি আরো বলেন, নির্বাচন পরিচালনার ক্ষেত্রে নিরপেক্ষ থাকতে হবে। নির্বাচন পরিচালনায় নিরপেক্ষতা হবে ইসির মাপকাঠি ব্যক্তিগত। ব্যর্থতার দায়ে যেন কমিশন প্রশ্নবিদ্ধ না হয়। এবার নির্বাচনে নতুন ইতিহাস সৃষ্টি হবে।


নির্বাচন কমিশনের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদের সভাপতিত্বে সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন চার কমিশনার মাহবুব তালুকদার, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদৎ হোসেন চৌধুরী।


অনুষ্ঠানে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম বলেন, দায়িত্ব পালনে কোনো চাপের কাছে মাথা নত করবেন না, কমিশনের আইন ও নীতিমালা অনুযায়ী কাজ করবেন, অতি উৎসাহী আচরণ বা ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না।


আরেক নির্বাচন কমিশনার কবিতা খানম রিটার্নিং কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেন, নির্বাচন কমিশন যদি চালক হয়, নির্বাচন সুষ্ঠু ও সফল করতে হলে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের সেই গাড়ির ফুয়েল হিসেবে কাজ করতে হবে। তাই আপনাদের নিরপেক্ষ থেকে এই দায়িত্ব পালন করবেন।


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com