রোহিঙ্গাদের দ্রুত নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে চাই: প্রধানমন্ত্রী
প্রকাশ : ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ০৯:৩৮
রোহিঙ্গাদের দ্রুত নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে চাই: প্রধানমন্ত্রী
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনা রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তাদের দেশে ফেরত পাঠানোয় তার সরকারের দৃঢ়প্রত্যয় পুনর্ব্যক্ত করে বলেছেন, রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে দীর্ঘ অবস্থানের কোনো সুযোগ নেই। আমরা দ্রুততম সময়ের মধ্যে রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফেরত পাঠাতে চাই।


তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ সরকারের গৃহীত কূটনৈতিক প্রচেষ্টার ফলে, রোহিঙ্গাদের নিজ মাতৃভূমিতে নিরাপদ, সম্মানজনক ও স্থায়ীভাবে ফেরত পাঠানো সম্ভব হবে বলে আশা করা যায়।


প্রধানমন্ত্রী বুধবার তার জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে জাতীয় পার্টির সদস্য নুরুল ইসলাম মিলনের এক প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন। এ সময় ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী স্পিকারের দায়িত্ব পালন করছিলেন।


সংসদ নেতা বলেন, তার সরকার রোহিঙ্গাদের তাদের দেশে স্থায়ীভাবে ফেরত পাঠানোর সর্বময় কূটনৈতিক তৎপরতা অব্যাহত রেখেছে এবং সংশ্লিষ্ট সকল দেশের সঙ্গে এ ব্যাপারে আলোচনা চালিয়ে যাচ্ছে।


প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশ কেবল মানবিক কারণে প্রায় ১১ লাখ বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাকে আশ্রয় দেয়ায় আমাদের প্রশংসা করেছে এবং এই বিপুল পরিমাণ জনগোষ্ঠী বাংলাদেশের জন্য যে বড় একটি বোঝা তাও তারা স্বীকার করেছে। এসব রোহিঙ্গা শরণার্থীদের তাদের দেশে ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য মিয়ানমারকে চাপ প্রয়োগের বিষয়েও বাংলাদেশ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সমর্থন পাচ্ছে।


বলপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে নিরাপদ ও স্থায়ী প্রত্যাবাসনে তার সরকারের উদ্যোগ তুলে ধরে তিনি বলেন, এ বিষয়ে ইতোমধ্যে মিয়ানমারের সঙ্গে তিনটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে। পাশাপাশি চুক্তি বাস্তবায়নে মিয়ানমারের ওপর অব্যাহত চাপ প্রয়োগের জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে দ্বিপাক্ষিক ও বহুপাক্ষিক কূটনৈতিক প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।


তিনি আরো বলেন, কোনো কোনো দেশ প্রত্যক্ষভাবে চাপ সৃষ্টি করছে আবার কোনো কোনো দেশ পরোক্ষভাবে বা গোপনে চাপ সৃষ্টি করছে। এমনকি চীন ও ভারত বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের জন্য রাখাইন রাজ্যে ঘরবাড়ি তৈরি করছে।


রোহিঙ্গার অবস্থানের কারণে কক্সবাজারসহ আশপাশের জনগোষ্ঠী ও প্রতিবেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, বনভূমি উজার ও পাহাড় কাটার কারণে পরিবেশ বিপর্যয়ের ঝুঁকি দেখা দিয়েছে। ডিপথেরিয়া, পোলিও, এইচআইভিসহ নানা সংক্রামক রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। একই সঙ্গে মানবপাচার, মাদকদ্রব্য চোরাচালানসহ সংঘবদ্ধ অন্যান্য অপরাধের ঝুঁকিও বেড়েছে।


জাতিসংঘের আসছে সাধারণ পরিষদের বৈঠকে রোহিঙ্গা সঙ্কটের উপর জোর দেয়ার কথাও জানিয়ে তিনি বলেন, জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের ৭৩তম অধিবেশনে এ সমস্যার অগ্রগতি পর্যালোচনাসহ ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা আমরা বিভিন্ন সভায় তুলে ধরব। এছাড়া অধিবেশনের সাইডলাইনে বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ নেতাদের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা হবে।


শেখ হাসিনা বলেন, গত ৬ সেপ্টেম্বর আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি) এক ঐতিহাসিক রায়ের মাধ্যমে মিয়ানমার কতৃর্ক রোহিঙ্গাদের জোরপূর্বক বিতাড়িত করার ইস্যুতে তদন্তের উদ্যোগ গ্রহণ করেছে।


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com