সাক্ষরতার বিকল্প নেই: গণশিক্ষামন্ত্রী
প্রকাশ : ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১৬:১০
সাক্ষরতার বিকল্প নেই: গণশিক্ষামন্ত্রী
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

বিশ্বের সাথে পাল্লা দিয়ে সাক্ষরতায় এগিয়ে যাচ্ছে দেশ। দেশের বর্তমান সাক্ষরতার হার শতকরা ৭২ দশমিক ৯ শতাংশ। ২৭ দশমিক ১ শতাংশ জনগোষ্ঠী নিরক্ষর।


রাজধানীর শিল্পকলা একাডেমীর জাতীয় নাট্যশালা মিলনায়তনে প্রাথমিক ও গণশিক্ষামন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান শনিবার আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় দিবসটির উদ্বোধনকালে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন।


তিনি বলেন, এসব নিরক্ষর জনগোষ্ঠীকে সাক্ষর করাতে না পারলে কাঙ্খিত উন্নয়ন সম্ভব নয়। সাক্ষরতার কোনো বিকল্প নেই। দক্ষতা ও যোগ্যতার পাশাপাশি শ্রম উপযুক্ত করতে হলে আন্তর্জাতিক প্রেক্ষিত ভেবে তাদের জনশক্তিতে রূপান্তরিত করতে হবে। বর্তমান সরকারের নানামুখী কর্মসূচি গ্রহণ ও বাস্তবায়নের জন্য সাক্ষরতার হার বেড়েছে।


মন্ত্রী বলেন, প্রযুক্তিনির্ভর বিশ্বে লড়াই করতে হলে সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়নের বিকল্প নেই। এদেশের মানুষ তা প্রমাণ করেছে। বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃত। বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় টিকে থাকতে হলে বাংলাদেশের মানুষকে দক্ষতার সঙ্গে সামাজিক ও অর্থনৈতিক উন্নয়ন ঘটাতে হবে।


তিনি বলেন, এসব জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরতা প্রদান এবং দক্ষতা উন্নয়নে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা ব্যুরো ১৫ থেকে ৪৫ বছর বয়সী ৪৫ লাখ নিরক্ষর নারী ও পুরুষের জন্য দেশব্যাপী সাক্ষরতা কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা(এসডিজি৪) উপানুষ্ঠানিক ও সপ্তম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা উন্নয়ন কর্মসূচি প্রস্তাবনা তৈরি করা হচ্ছে।


তিনি আরো বলেন, দেশের ১৭ কোটি মানুষের মধ্যে ৩ কোটির প্রাতিষ্ঠানিক যোগ্যতা নেই। সকলে মিলে এই জনগোষ্ঠীকে দক্ষ করে গড়ে তুললে দেশ সোনারবাংলা হবে। শিক্ষার সুযোগবঞ্চিত জনগোষ্ঠীকে সাক্ষরজ্ঞান, জীবনব্যাপী শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি, কারিগরি ও বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণের মাধ্যমে জীবিকায়ন, দক্ষ মানবসম্পদে পরিণতিকরণ, আত্মকর্মসংস্থানের যোগ্যতা সৃষ্টিকরণ এবং বিদ্যালয় বর্হিভূত ও ঝরে পড়ারোধে শিশুদের শিক্ষার বিকল্প সুযোগ সৃষ্টির লক্ষ্যে উপানুষ্ঠানিক শিক্ষা আইন-২০১৪ প্রণীত হয়েছে।


তিনি বলেন, ’৭৫ এর পর যারা বাংলাদেশকে বদলে দিতে চেয়েছিল তারাই দেশের উন্নয়নকে বাধাগ্রস্ত করতে চেয়েছে। কিন্তু দেশের উন্নয়ন দ্রুত দৃশ্যমান হচ্ছে।


প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে এবং মন্ত্রণালয়ের সচিব মোহাম্মদ আসিফ উজ জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতা করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মোতাহার হোসেন।


আরো বক্তৃতা করেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সর্ম্পকিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য আ খ ম জাহাঙ্গীর হোসেন।


এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় শিল্পকলা একাডেমী থেকে এক র‌্যালি বের হয়। এতে নেতৃত্ব দেন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান।


আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবসের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘লিটারেসি অ্যান্ড স্কিলস ডেভেলপমেন্ট’। এই প্রতিপাদ্যের আলোকে বাংলাদেশের শ্লোগান ‘সাক্ষরতা অর্জন করি, দক্ষ হয়ে জীবন গড়ি’ নির্ধারণ করা হয়েছে।


বিবার্তা/জাকিয়া

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: bbartanational@gmail.com, info@bbarta24.net

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com