বন্যার আতঙ্কে শহরবাসী : মাঠে থাকছে সেনাবাহিনী
প্রকাশ : ১৬ জুন ২০১৮, ১০:৫৪
বন্যার আতঙ্কে শহরবাসী : মাঠে থাকছে সেনাবাহিনী
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

কয়েকদিনের টানা বৃষ্টি আর উজানের ঢলে প্লাবিত মৌলভীবাজারের কুলাউড়া ও রাজনগর উপজেলার শতাধিক গ্রামে উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেছে সেনাবাহিনী।


দ্রুত বাড়ছে মনু নদের পানি। ভেঙে গেছে গত ১১ বছরের রেকর্ড। শুক্রবার রাত ৯টায় চাঁদিনীঘাট পয়েন্টে মনু নদের পানি সকালের ১৩৫ সেন্টিমিটার বিপদসীমা থেকে বেড়ে ১৫০ সেন্টিমিটারে দাঁড়িয়েছে।


পানি উন্নয়ন বোর্ড জানিয়েছে, আর ১ সেন্টিমিটার পানি বাড়লে শহর রক্ষা বাঁধ উপচে পানি ঢুকবে মৌলভীবাজার শহরে।


এর আগে শুক্রবার মধ্যে জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার শাহ জালাল, সদর আসনের এমপি সায়রা মহসিন, পৌরমেয়র ফজলুর রহমান এবং পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রনেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী জরুরি সভায় বাঁধ পর্যবেক্ষণের জন্য সেনাবাহিনীকে ডাকার সিদ্ধান্ত নেন।


পরে শুক্রবার দিবাগত রাতে মৌলভীবাজার শহর রক্ষা বাঁধ পর্যবেক্ষণ করেছে সিলেট থেকে আসে সেনাবাহিনীর ৬ সদস্যের একটি বিশেষজ্ঞ টিম। এই বিশেষজ্ঞ টিমটি শহর রক্ষা বাধের ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা ঘুরে দেখেন।


এ সময় উপস্থিন ছিলেন জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম, পুলিশ সুপার শাহ জালাল, পৌর মেয়র ফজলুর রহমান,পাউবো নির্বাহী প্রকৌশলী রনেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী পার্থ এবং গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।


পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রনেন্দ্র শংকর চক্রবর্তী বিবার্তাকে জানান, বিশেষজ্ঞ টিমটি ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ দেখে আবার সিলেটের গেছেন। শনিবার দুপুর থেকে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৬০ সদ্যসের একটি টিম শহর রক্ষা বাঁধ রক্ষায় কাজ করবে।


এ দিকে কুলাউড়া-রাজনগরে সেনা মোতায়েন করা হয়েছে। ফলে শুক্রবার বিকেল থেকে রাজনগর ও কুলাউড়ায় প্লাবিত এলকায় সেনাবাহিনী উদ্বার তৎপরতা কার্যক্রম শুর করেছে।


রাজগনর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ফেরদৌসি আক্তার বিবার্তাকে জানান, রাজনগরে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লে. কর্নেল আপ্তাব এবং ক্যাপ্টেন আশরাফের নেতৃত্বে উপজেলায় প্লাবিত এলাকায় শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে কাজ শুরু করেছে সেনাবাহিনীর ৩৫ সদস্যের একটি টিম। রাজনগর কলেজে অস্থায়ী ক্যাম্প করে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করবেন।


অন্যদিকে শুক্রবার বিকেলে মনু নদের কদমহাটা এলাকায় প্রতিরক্ষা বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে রাজনগর উপজেলার আরো কয়েকটি এলাকা। রাজনগরে প্লাবিত গ্রামের সংখ্যা অন্তত ৬০টি, মনু নদে যত পানি বাড়ছে ততই প্লাবিত হচ্ছে নতুন এলাকা।


এদিকে কুলাউড়া উপজেলায় প্লাবিত ৬০টি গ্রামের পাশাপাশি মনু নদের পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আরও নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। কুলাউড়ার হাজিপুর ইউনিয়নে সেনাবাহিনী একটি অস্থায়ী ক্যাম্প করে তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করবে।


মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম বিবার্তাকে জানান, কুলাউড়া ও রাজনগরে সেনাবাহিনী প্লাবিত এলাকায় কাজ করতে যোগ দিয়েছে এবং আগামীকাল মৌলভীবাজার শহরে কাজ করবে ।


বিবার্তা/আরিফ/শাহনাজ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com