ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে রাস্তার ইট তুলে নেয়ার অভিযোগ
প্রকাশ : ১০ জুন ২০১৮, ১৩:১১
ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে রাস্তার ইট তুলে নেয়ার অভিযোগ
মৌলভীবাজার প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের মেম্বার আব্দুল মালিক ফজলুর বিরুদ্ধে সরকারি রাস্তার ১৭ হাজার ইট বাড়িতে তুলে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।


এলাকাবাসীর অভিযোগের প্রেক্ষিতে কুলাউড়া থানা পুলিশ ইটগুলো জব্দ করেছে। তবে অভিযুক্ত আব্দুল মালিকের দাবি অন্য একটি রাস্তার কাজ করতে নির্দেশ দেয়ায় ইটগুলো তুলে সংরক্ষণ করা হয়েছে।


স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার টিলাগাঁও ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডের লংলা থেকে বেজাবন্দ পর্যন্ত রাস্তার প্রায় ১৭ হাজার ইট তুলে নিয়েছেন সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড মেম্বার আব্দুল মালিক ফজলু। ইটগুলো উত্তোলন করে তিনি তার বাড়িতে নিয়ে যান।


স্থানীয় বাসিন্দা শামীম মিয়া, শহিদ মিয়াসহ অনেকেই বিবার্তাকে জানান, মেম্বারের উদ্দেশ্য যদি ভালো হতো তাহলে তিনি ইটগুলো তুলে তার বাড়িতে নিতেন না। বিষয়টি তারা তাৎক্ষণিকভাবে কুলাউড়ার ইউএনওকে অবহিত করেন।


পরে ইউএনওর নির্দেশে কুলাউড়া থানার এসআই খসরুল আলম বাদল ঘটনাস্থলে যান এবং ইটগুলো জব্দ করেন। মেম্বার ফজলুর বাড়িতে এখনো অনেক ইট আছে বলে অভিযোগকারীরা জানান।


অভিযুক্ত আব্দুল মালিক ফজলু বিবার্তাকে জানান, ২০১৪-১৫ সালে ১ লাখ টাকা এবং ২০১৫-১৬ সালে ২ লাখ টাকায় ইট সোলিং করা হয়। বর্তমানে এক কিলোমিটার রাস্তা পাকাকরণের অনুমোদন দেয়া হয়। ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এই ইট দিয়ে একই ওয়ার্ডের অন্য একটি রাস্তার কাজ করানো জন্য বলেন।


টিলাগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুল মালিক বিবার্তাকে জানান, আগে ইট সোলিং করা হয়। বর্তমানে রাস্তাটি পাকাকরণের জন্য টেন্ডার হলে, ইটগুলো তুলা হয়েছে অন্য রাস্তায় ব্যবহারের জন্য। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ইটগুলো আবার ফজলু মেম্বারের জিম্মায় রেখে এসেছেন। ইটগুলো অন্য রাস্তায় কাজে লাগানোর জন্য ইউএনওর কাছে অনুমতি চাওয়া হয়েছে।


কুলাউড়া থানা পুলিশের ওসি শামীম মূসা বিবার্তাকে জানান, অভিযোগ পাওয়ার পর আমরা তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পেয়ে বৈদ্যশাসন লাকার আবিদ আলী বাড়িতে ৩ হাজার ইট এবং গফুর মিয়ার বাড়িতে গিয়ে আধলা প্রায় ৫ শত ইট পাই।


কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. গোলাম রাব্বি বিবার্তাকে জানান, স্থানীয় লোকজনের অভিযোগের প্রেক্ষিতে আমি পুলিশ পাঠিয়ে ইটগুলো জব্দ করাই। এলাকাবাসীর অভিযোগ এখানে মোট ১৭ হাজার ইট হবে। তবে জব্দ করা ইটের পরিমাণ ৫-৬ হাজার হবে। বিষয়টি তদন্ত চলছে। তদন্ত শেষ হলে আমরা আইনানুগ ব্যবস্থা নেবো।


বিবার্তা/আরিফ/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

৪৬, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ

কারওয়ান বাজার (৬ষ্ঠ তলা), ঢাকা-১২১৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com