কাউখালীতে অপহৃত শিক্ষার্থীকে উদ্ধারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন
প্রকাশ : ২৪ জুন ২০২৪, ১৪:১৮
কাউখালীতে অপহৃত শিক্ষার্থীকে উদ্ধারের দাবিতে সংবাদ সম্মেলন
কাউখালী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার সদর ইউনিয়েনের নবম শ্রেণির এক স্কুল ছাত্রী ১৫দিন আগে অপহৃত হলেও এখনও তার কোনো সন্ধান মেলেনি।


২৪ জুন, রবিবার সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করে এ কথা জানায় ভুক্তভোগী পরিবার।


সংবাদ সম্মেলনে অপহৃত স্কুল ছাত্রীর মা জোবেদা আক্তার লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, আমার মেয়ে মুনিয়া আক্তার (১৫) আইরন জয়কুল এম.এম. মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণিতে পড়ালেখা করে। স্কুলে যাতায়াতের পথে আয়রন গ্রামের মাসুদ রানা ওরফে রমিজের ছেলে স্বাধীন মোল্লা ইমন আমার মেয়েকে বিভিন্ন ভাবে উত্ত্যক্ত করতো। আমার মেয়ে আমার নিকট জানালে আমি ওই ছেলে পরিবারের নিকট অবহিত করি এবং স্থানীয় ইউপি সদস্য মাসুম হোসেনকে জানাই।


একপর্যায় ওই ছেলের বাবা রমিজ এবং মা ইয়াসমিন আমার নাবালিকা মেয়েকে বিয়ের প্রস্তাব দিলে আমি তাদের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করি।


জোবেদা আক্তার আরও বলেন, গত ৮ জুন, শনিবার সকাল নয়টার দিকে মেয়ে মুনিয়া আক্তার আইরন জয়কুল স্কুল থেকে প্রাইভেট পড়ে বাড়ি ফেরার পথে আইরন গ্রামের মোল্লা বাড়ি জামে মসজিদের পাশ থেকে ইমন, সিফাত আমার মেয়েকে জোরপূর্বক ইজি বাইকে উঠিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়।


আমি জানতে পেরে আমার আত্মীয় স্বজনদের নিয়ে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করার পরে আমি স্বাধীন মোল্লা ইমন এর বাবা এবং মায়ের নিকট তার ছেলের জোরপূর্বক অপহরণের কথা বললে তারা বলেন, মেয়েকে তার ছেলের সাথে বিয়ে দিয়ে দিতে। পরে আমি কাউখালী থানায় মামলা দায়ের করি।


পুলিশ ছেলের পিতা রমিজকে গ্রেফতার করলেও এখন পর্যন্ত আমার মেয়েকে উদ্ধার করতে পারিনি। অপহরণকারীরা মামলা তুলে নিতে আমাদেরকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিচ্ছে। এই ঘটনার দিন যতই বাড়ছে ততোই আমরা আতঙ্কে দিন যাপন করছি। আমরা আমাদের মেয়েকে ফিরে পেতে চাই এবং আমাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানাচ্ছি।


বিবার্তা/রবিন/সউদ


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

এফ হক টাওয়ার (লেভেল-৮)

১০৭, বীর উত্তম সি আর দত্ত রোড, ঢাকা- ১২০৫

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com