বাংলাদেশের তিন উদ্যোগের সহযোগী হচ্ছে এসক্যাপ
প্রকাশ : ২৫ মে ২০২২, ১৯:৪৬
বাংলাদেশের তিন উদ্যোগের সহযোগী হচ্ছে এসক্যাপ
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

ফিনটেক, নারী উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি এবং ক্রসবর্ডার বাণিজ্য বিশেষ করে ক্ষুদ্র উদ্যোক্তাদের কাগজবিহীন বাণিজ্য সহজতর করার জন্য বাংলাদেশের আইসিটি বিভাগে একটি পর্যবেক্ষক স্যান্ডবক্স স্থাপনে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করবে জাতিসংঘের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ক সংস্থা ইকোনোমিক অ্যান্ড সোশ্যাল কমিশন ফর এশিয়া অ্যান্ড দ্য প্যাসিফিক (এসক্যাপ)।


জাতিসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি-জেনারেল এবং এসক্যাপ নির্বাহী সেক্রেটারি মিসেস আরমিদা সালসিয়াহ আলিসজাহবানার সঙ্গে বাংলাদেশের আইসিটি বিভাগের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের মধ্যে অনুষ্ঠিত দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়েছে।


থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের সংস্থাটির সদর দফতরে মঙ্গলবার বাংলাদেশের জন্য স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম অ্যাসেসমেন্ট রিপোর্ট প্রকাশ পরবর্তী দ্বি-পাক্ষিক বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত হয়।


এসময় থাইল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ আব্দুল হাই, জাতিসংঘের ট্রেড ইনভেস্টমেন্ট অ্যান্ড ইনোভেশন (টিআইআইডি) পরিচালক সুশ্রী রূপা চন্দ, আইডিডি পরিচালক মিসেস টিজিয়ানা বোনাপেস, দক্ষিণ ও দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের উপ-আঞ্চলিক দফতরের উপপ্রধান মিস রাজন রত্না, সিনিয়র গভর্নমেন্ট পলিসি কনসালটেন্ট মিসেস টিনা জাবীন, অর্থনীতি মন্ত্রী সৈয়দ রাশেদুল হোসেন, মিসেস মার্টা পেরেজ কুসো, সহযোগী অর্থনৈতিক বিষয়ক কর্মকর্তা বেঞ্জামিন ম্যাকার্থি, কাউন্সিলর (রাজনৈতিক) মো. মাসুমুর রহমান, সুশ্রী দয়াময়ী চক্রবর্তী ও ডেপুটি কাউন্সিলর নির্ঝর অধিকারী বৈঠকে অংশ নেন।


বৈঠকে জাতিসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি-জেনারেল মিসেস আরমিদা সালসিয়াহ আলিসজাহবানা টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের জন্য বাংলাদেশের উদ্যোক্তাদেরকে উদ্ভাবনের ক্ষেত্রে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎস হিসেবে অভিহিত করেন।


তিনি বলেন, যেহেতু বাংলাদেশের উদ্যোক্তারা বিভিন্ন খাতে অভূতপূর্ব প্রবৃদ্ধি অর্জন করছে, তাই এই প্রবৃদ্ধিকে টেকসই করতে উদ্ভাবনা সংস্কৃতির সামগ্রিক বাস্তুতন্ত্রকে শক্তিশালী করার এখনই উপযুক্ত সময়।


বিষয়টিকে আগেভাগেই সরকার গুরুত্বের সঙ্গে নিয়েছে জানিয়ে আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ২০২৫ সালের মধ্যে ১০০০টি স্টার্টআপকে বিশ্বমানের পর্যায়ে নিয়ে যেতে ডিজিটাল এন্টারপ্রেনারশিপ অ্যান্ড ইনোভেশন ইকোসিস্টেম ডেভেলপমেন্ট প্রোটেক্টের মাধ্যমে এরই মধ্যে গ্লোবাল স্ট্যান্ডার্ড এক্সিলারেশন প্রোগ্রাম শুরু করেছে। সম্ভাবনাময় এসব উদ্যোক্তাদের বিকশিত করতে ১০০ মিলিয়ন ডলারের অধিক মিলিয়ন ভেঞ্চার ক্যাপিটাল ইকুইটি এবং অনুদান দিচ্ছে।


এর আগে সিঙ্গাপুর থেকে দুইদিনের দ্বিপাক্ষিক সফরে থাইল্যান্ডে যান তথ্য ও যোগাযোগ (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক। সফরকালে দেশটির ডিজিটাল ইকনোমি ও সোসাইটি মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী চাইয়ুথ থানাকামানিউসরন, এশিয়ান ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি (এআইটি)-এর প্রেসিডেন্ট উৎ ইডেন উডস এবং জাতিসংঘের ইউনেসকেপ এর সদর দফতরের এক্সিকিউটিভ সেক্রেটারি আরমিদা সালসিয়াহ আলিসজাবানার সাথে সাক্ষাৎ করে তথ্য প্রযুক্তি ক্ষেত্রে গত ১৩ বছরে বর্তমান সরকারের গৃহীত পদক্ষেপ ও অর্জনসমূহ তুলে ধরেন তিনি।


বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ডের মধ্যকার কূটনৈতিক সম্পর্কে সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপনে দুই দেশের আইসিটি খাতে সহযোগিতা আরও বৃদ্ধির জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহ্বান জানান পলক। বৈঠকে এশিয়ান ইন্সটিটিউট অব টেকনোলজি (এআইটি) সাথে তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের সহযোগিতা আরও বৃদ্ধি; আইসিটির বিভিন্ন ক্ষেত্রে গ্রাজুয়েশন এবং পোস্ট গ্রাজুয়েশন ডিগ্রির জন্য বৃত্তি চালুর উদ্যোগ গ্রহণের বিষয় গুরুত্ব পায়। সফরে এআইটি-এর এন্টাপ্রেনিয়োর সেন্টার ই (এআইটি) আয়োজিত ফিউচার অব ইনোভেশন ইন বাংলাদেশ এন্ড অপারচুনিটিজ ফর গ্লোবাল কোলাবরেশন-শীর্ষক একটি সেশন এ অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশের আইসিটি প্রতিমন্ত্রী।


বিবার্তা/গমেজ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com