করোনা টেস্টে সরকার টাকা নিতে যাচ্ছে এটা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত
প্রকাশ : ২৯ জুন ২০২০, ১২:১২
করোনা টেস্টে সরকার টাকা নিতে যাচ্ছে এটা আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

করোনা টেস্টে সরকার টাকা নিতে যাচ্ছে এ ধরনের আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত আমাদের জন্য সত্যিই বেদনাদায়ক। যারা এধরনের পরামর্শ দিয়েছেন তারা কখনোই সরকারের মঙ্গল চান না।


যেহেতু করোনাভাইরাস একটি বৈশ্বিক মহামারি ঘোষণা করছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা, এমনকি এখন পর্যন্ত এ রোগের কোনো নির্দিষ্ট মেডিসিন বা ভ্যাকসিন তৈরি হয়নি সুতরাং আমাদের মতো তৃতীয় বিশ্বের দেশের সাধারণ জনগণের কথা না ভেবে কার জন্য এধরনের সুব্যবস্থা করা হচ্ছে এটা আমাকে ভাবাচ্ছে।


২০০ টাকা অথবা ৫০০ টাকা অর্থনৈতিক স্বাবলম্বী পরিবারের জন্য হয়তো কিছুই না কিন্তু যারা এই মহামারির কালে কর্মহীন হয়ে তিনবেলা ভালোমতো খেতে পারে না তাদের ক্ষেত্রে ২০০ টাকার অংক টা কল্পনাতীত।


সরকার যেখানে অনেকক্ষেত্রেই ভর্তুকি দিচ্ছেন যেখানে এই বৈশ্বিক মহামারির প্রাক্কালে আর কয়েক মাস বিনা খরচে করোনা টেস্ট করলে কি এমন হবে এটাই ভেবে পাচ্ছি না।


২০০ টাকার জন্য হয়তো এমনো অনেক গরীব পরিবার আছে আগামী দিনে করানো হলেও স্বীকার করবে না টাকার অভাবে। যা দেশের জন্য খুবই খারাপ পরিস্থিতি বয়ে নিয়ে আসবে।


বৈশ্বিক মহামারির এই পরিস্থিতিতে যারা সরকারকে এধরনের আত্মঘাতী পরামর্শ দিয়েছেন তারা হয়তো মার্চের আগে কখনোই সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে যেতেন না। সামান্য আঙুলের ব্যথা হলেই সিঙ্গাপুর কিংবা মাউন্ড এলিজাবেথ দৌড়াতেন তারা। তাদের দৌরাত্ম্য এখন আমাদের সরকারি হাসপাতালে সাধারণ জনগণ আর চিকিৎসা সেবা পাচ্ছেন না।
হায় রে নিয়তি!!


ধরে নিলাম, আগামী মাস থেকে গড়ে দৈনিক বিশ হাজার জনের করোনা টেস্ট করালো তাহলে ৫ মাসে সরকারের কোষাগারে জমা হবে (২০০০০×২০০)টাকা=৪০০০০০০ টাকা×৩০দিন =১২০০০০০০০×৫মাস =৬০০০০০০০০ টাকা


সামান্য ষাট কোটি টাকা আয়ের জন্য সরকারের এতো অর্জন বিলীন করার জন্য যারা এধরনের আত্মঘাতী পরামর্শ দিচ্ছেন তাদের যুক্তিগুলো সত্যিই অমানবিক বটে।


সরকার যেখানে হাজার হাজার কোটি টাকা প্রণোদনার প্যাকেজ ঘোষণা করছে এই করোনাভাইরাসের জন্য এমনি ব্যাংকিং খাদে প্রতি বছর হাজার হাজার কোটি টাকা ঋণ খেলাপিদের মওকুফ করে দেয়া হচ্ছে সেখানে এই বৈশ্বিক করোনার দুর্যোগকালে সামান্য পঞ্চাশ ষাট কোটি টাকা দিকে চোখ পড়লো এটা আমার কাছে রহস্য মনে হচ্ছে।


বিদেশ থেকে করোনা টেস্টের প্রতিটি কিট নিয়ে আসতে সরকারের খরচ হয় ৩৫০০ টাকা, যেখানে ৩৩০০ টাকা ভর্তুকি দিয়ে টেস্ট করার সক্ষমতা আছে সেখানে বাকি ২০০ টাকা দিতে অপারগতা কেনো সেটা আমার বোধগম্য নয়।


নিশ্চয়ই রহস্য আছে, সরকারকে কিভাবে জনগণের কাঠগড়ায় দাড় করানো যায় তার ফন্দি ফিকির বের করে ফেলছেন কর্তাব্যক্তিরা। তবে আপনাদের মনে আশা কখনোই জননেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা পূরণ হতে দিবে না। এটা আমার বিশ্বাস।


কিছুটা হলেও বুঝি সরকারের অর্জন বিলীন করতেই সরকারের আশেপাশে থাকা কিছু মুখোশধারী কর্তাব্যক্তিরা তাদের উদ্দেশ্য হাসিল করতেই এধরনের পরামর্শ নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতেছেন ।


এই কর্তাব্যক্তিরা এদেশের জনগণের শত্রু, আওয়ামী লীগের শত্রু।


মানবতার মা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কখনোই তাদের এ ধরনের অমানবিক পরামর্শ গ্রহণ করবেন না যা কিনা আমাদের গরীব দেশের জনগণের মরার উপর খাঁড়ার ঘা হয়ে দাড়ায়।


বঙ্গবন্ধুর কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেখানে দশ লক্ষ রোহিঙ্গাদের বাসস্থান ও খাওয়ার ব্যবস্থা করে দিয়েছেন সেখানে এধরনের আত্মঘাতী পরামর্শ গ্রহণ করবেন তা আমার কল্পনাতীত। তিনি আমাদের দেশের প্রতিটি সাধারণ জনগণের পালস্ বুঝেন তিনি কখনো চান না এদেশের জনগণ কষ্টে থাকুক।


আমি বঙ্গবন্ধুর কন্যা আমাদের সতেরো কোটি জনগণের অভিভাবক মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আকুল আবেদন করছি যারা আপদকালীন সময়ে আপনাকে এধরনের আত্মঘাতী পরামর্শ দিয়েছেন তাদেরকে চিহ্নিত করুন সেইসাথে অসহায় গরীব জনগণের কথা চিন্তা করে আগামী ৫ মাস ফ্রি করোনা টেস্ট অব্যাহত রাখুন।


জয় বাংলা,
জয় বঙ্গবন্ধু,
জয়তু
Mother of humanity


লেখক: প্রমথ রায়


বিবার্তা/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com