বিএনপির অফিসের সামনে ছাত্রদলের দু’গ্রুপের মারামারি
প্রকাশ : ২৭ জানুয়ারি ২০২২, ২২:৫৪
বিএনপির অফিসের সামনে ছাত্রদলের দু’গ্রুপের মারামারি
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

রাজধানীর নয়াপল্টন বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে ছাত্রদলের দু’গ্রুপের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের সিনিয়র সহ সভাপতি তানজিদ হাসান সাওন মাথায় গুরুতর আঘাত পেয়েছেন।


বৃহস্পতিবার বিকেলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে এই ঘটনা ঘটেছে বলে কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর এক চিঠিতে এ অভিযোগ করেছেন তানজিদ হাসান।


ছাত্রদল সূত্র জানায়, পিরোজপুর জেলার একটি থানা কমিটি গঠনে আর্থিক লেনদেনের একটি অডিও ফাঁস হওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে এ মারামারি ঘটে। জেলা ছাত্রদল সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে এ আর্থিক লেনদেনের অভিযোগ।


জানা গেছে, সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান শেখ রুবেল তার স্ত্রীর যৌতুক মামলায় কারাগারে ছিলেন। মাদক মামলাও রয়েছে তার বিরুদ্ধে।


চিঠিতে তানজিদ হাসান বলেন, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পিরোজপুর জেলার সাংগঠনিক দায়িত্বপ্রাপ্ত এ.বি.এম মাহমুদ আলম সরদার বৃহস্পতিবার পিরোজপুর জেলার সুপার ফাইভ নিয়ে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সাংগঠনিক মিটিং করার জন্য আমাকে অবহিত করেন। সাংগঠনিক মিটিং এ উপস্থিত থাকার জন্য আমি বিকেল ৪টায় বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয় উপস্থিত হই। ঢাকা মহানগর ছাত্রদলের অফিসের সামনে আমি ও আমার দুই জন ছোট ভাই যখন দাড়িয়ে কথা বলছিলাম, ঠিক সেই মুহূর্তে পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক মশিউর রহমান এসে আমার পাশে দাঁড়িয়ে থাকা ছোট ভাই সাবেক ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদলের সহ সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আরিফুল ইসলামের সাথে তর্কে জড়িয়ে পরেন।


‘আমি তর্ক থামানোর জন্য কথা বলতে গেলে পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহামুদুল হাসান শাহীন মো. আরিফুল ইসলামকে মারধর শুরু করেন। তৎক্ষণাৎ আমি ছাড়াতে গেলে দূরে দাড়িয়ে থাকা পিরোজপুর জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক বদিউজ্জামান শেখ রুবেল আমার কাছে দৌঁড়ে এসে আমাকে মারধর শুরু করেন।’


এরপর পরই বদিউজ্জামান শেখ রুবেলের সাথে থাকা জেলা ছাত্রদলের সহ সভাপতি ফেরদৌস আহম্মেদ লিটন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এস আই রানাসহ আরো অপরিচিত ১৫ থেকে ২০ জন আমার উপর অতর্কিত হামলা চালায় এবং আমার পকেট থেকে ২টি মোবাইল ফোন এবং ৪ হাজার টাকা ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ নিয়ে যায়।


তানজিদ হাসান আরো অভিযোগ করেন, হামলার এক পর্যায়ে মাহামুদুল হাসান শাহীন ও মশিউর রহমান এসে আমাকে এলোপাথারি লাথি ও কিলঘুষি মারতে থাকেন। তার এক পর্যায়ে মশিউর রহমান রাস্তায় থাকা ইট তুলে আমাকে মেরে ফেলার উদ্দেশ্যে মাথায় আঘাত করতে আসলে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যলয়ের সামনে থাকা লোকজন আমাকে বাঁচান। যার স্বাক্ষী কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থাকা অনেকেই রয়েছেন।


সংগঠনের দায়িত্ব পালনকালে তার উপর যারা হামলা চালিয়েছে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তানজিদ হাসান।


বিবার্তা/বিপ্লব/জেএইচ

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com