শরীরে অতিরিক্ত ভিটামিন ‘ডি’ যেসব রোগের ঝুঁকি বাড়ায়
প্রকাশ : ২১ জানুয়ারি ২০২২, ১০:৩৮
শরীরে অতিরিক্ত ভিটামিন ‘ডি’ যেসব রোগের ঝুঁকি বাড়ায়
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

ভিটামিন ডি শরীরের জন্য খুবই উপকারী। এর অভাব যে কোনো বয়সের মানুষের জন্য স্বাস্থ্য সমস্যা। কিন্তু এই ভিটামিনের মাত্রা শরীরে বেড়ে গেলেই বিপদ! হৃদরোগ বা ক্যানসারের মতো সমস্যাও ডেকে আনতে পারে অতিরিক্ত ভিটামিন ডি। তাহলে কী করবেন?


সুস্থ হাড়, দাঁত এবং পেশির জন্য ভিটামিন ডি-এর প্রয়োজনীয়তার কথা আমরা অনেকেই জানি। ভিটামিন ডি- এর অভাবে হাড় ঠিকমতো গড়ে ওঠে না এবং শিশুরা রিকেট নামে রোগের শিকার হতে পারে এবং প্রাপ্তবয়স্করা অস্টিওম্যালাসিয়া নামে দুর্বল হাড়ের রোগে ভুগতে পারেন।


সূর্যের আলো ভিটামিন ডি-এর অন্যতম উৎস। এ ছাড়াও কয়েকটি খাবার যেমন দুধ, ডিম থেকে ভিটামিন ডি পাওয়া যায়। তবে শরীরের ভিটামিন ডি- এর অত্যধিক ঘাটতি দেখা দিলে অনেকেই ভরসা রাখেন ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্টের ওপর। ওষুধ হিসেবে ভিটামিন ডি নিরাপদ। কিন্তু ডাক্তাররা বলছেন, তাই বলে অনেক পরিমাণে এটা খাওয়া ঠিক না। চিকিৎসক যতটুকু খাবার পরামর্শ দিচ্ছেন তার থেকে বেশি মাত্রায় ভিটামিন ডি খেলে দীর্ঘমেয়াদে শরীরের ক্ষতি হতে পারে।


কারণ ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্টের অত্যধিক সেবনে অনেক সময়ে বিভিন্ন পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা যায়। এ জন্য শরীরে দেখা দেয় কয়েকটি শারীরিক উপসর্গ। আর তখনই বুঝবেন, ভিটামিন ডি সাপ্লিমেন্ট খাওয়া বন্ধ করার সময় এসেছে। চলুন জেনে নেয়া যাক, সেই লক্ষণগুলো কী কী-


হাইপারক্যালশেমিয়া


ভিটামিন ডি শরীরে ক্যালশিয়ামের পরিমাণ বাড়ায়। ফলে হাড় সুস্থ থাকে। তবে শরীরে ভিটামিন ডি’র অতিরিক্ত ব্যবহারে রক্তে ক্যালশিয়ামের মাত্রা বেড়ে যায়। যাকে বলে হাইপারক্যালশেমিয়া।


সাধারণত শরীরে ক্যালশিয়ামের স্বাভাবিক মাত্রা ৮.৫-১০.৮ মিলিগ্রাম। স্বাভাবিক মাত্রা ছাড়িয়ে গেলে বমি বমি ভাব, বমি, দুর্বলতার মতো শারীরিক সমস্যার সৃষ্টি হতে পারে।


হাড়ে যন্ত্রণা


ভিটামিন ডি যেমন হাড়কে সুস্থ রাখে, ঠিক তেমনই এর অতিরিক্ত ব্যবহারে হাড়ে যন্ত্রণাও হতে পারে। শরীরে ভিটামিন ডি’র উচ্চ মাত্রার কারণে রক্তে এই ভিটামিনের পরিমাণ বৃদ্ধি পায়।


ফলে হাড়ের সুস্থতার জন্য প্রয়োজনীয় পুষ্টির ঘাটতি শুরু হয়। এ কারণেই হাড়ের যন্ত্রণা বা হাড় ক্ষয় হয়ে যাওয়ার ঝুঁকি বাড়ে।


কিডনির সমস্যা


ভিটামিন ডি অধিক গ্রহণের ফলে শরীরে হাইপারক্যালশেমিয়াম দেখা দিতে পারে। আর সেখান থেকেই ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে কিডনি।


এ ছাড়াও ঘন ঘন প্রস্রাবের সমস্যা দেখা দেয়। এই রোগকে বলা হয় পলিউরিয়াও। তাই চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ভিটামিন ডি গ্রহণ করবেন না।



বিবার্তা/বিএম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com