সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়েও উদযাপিত হবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী
প্রকাশ : ২০ জুলাই ২০১৯, ২১:৫৯
সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়েও উদযাপিত হবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

অন্যদের আগ্রহ থাকলেও পাকিস্তানের অনীহা ছিল। ছিল স্বভাবসুলভ অনাগ্রহ, বঙ্গবন্ধু আর বাংলাদেশ নিয়ে। তাদের কথা, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী সেতো আপনাদের দেশের বিষয়। কিন্তু আমি বোঝাতে চেয়েছি, বঙ্গবন্ধু শুধু বাংলাদেশের বিষয় নয়। তিনি বিশ্ব নেতা। তাকে নিয়ে বিশ্বব্যাপী পঠন-পাঠন হওয়া প্রয়োজন।


জানা প্রয়োজন তার জীবন আর সংগ্রাম, বাঙালি জাতি গঠনের ইতিহাস বলছিলেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের সদস্য প্রফেসর ড. এম. শাহ্ নওয়াজ আলি। যিনি একই সঙ্গে সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিনান্সিয়াল এক্সপার্ট কমিটির সদস্যও।


দিল্লিতে অবস্থিত সার্ক বিশ্ববিদ্যালয় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে বর্ণাঢ্য আয়োজন হাতে নিয়েছে। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ড. এম. শাহ্ নওয়াজ আলিই মূলত উদযাপনের প্রস্তাবটি উত্থাপন করেন সেখানে।


অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যেকোনো মূলে মিটিংয়ের আগে একটা প্রি-ডিসকাশন মিটিং হয়। সেখানের আলোচ্যসূচিতে আমি সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের বিষয়টি নিয়ে আসতে চাইলাম। অনেকের সঙ্গে প্রাথমিকভাবে আলোচনাও করলাম। শ্রীলঙ্কা শুরুতেই খুব আগ্রহ দেখাল। পাকিস্তান অনেকটা অসম্মত। বাকি সবাই বললো, আপনি মূল মিটিংয়ে প্রস্তাব উত্থাপন করুন। আমি সেভাবেই তৈরি হলাম।


মূল মিটিংয়ের কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, এখানে শিক্ষার্থীদের নানান বিষয়ে আলোচনা হলো। ৮টি দেশের সমন্বয়ে এ বিশ্ববিদ্যালয়। বঙ্গবন্ধুর মতো একজন মহামানবের জীবন ও সংগ্রাম তরুণ শিক্ষার্থীরা জানুক এবং বিশ্বময় তা ছড়িয়ে দিক, এমন একটি মনোবাসনা আমার ভেতরে ভেতরে ছিল অনেক দিন। আমি বললাম, বাংলা ভাষা থেকে শুরু করে স্বাধীন রাষ্ট্র গঠন সবটাতেই যে মানুষটির অসামান্য অবদান, তার নাম শেখ মুজিবুর রহমান।


তিনি শুধু বাংলাদেশ নয়, সারাবিশ্বের জন্য এক সংগ্রামী মহানায়কের উদাহরণ। যিনি মানুষকে মুক্তি দিতে পেরেছেন। তার জন্মশতবার্ষিকী বিশ্বের অনেক জায়গার মতো সার্ক বিশ্ববিদ্যালয়েও পালিত হওয়া উচিত। আর আজকের যে উন্নত বাংলাদেশ তার সবটুকু অর্জন তো তারই। এই আলোচনা ও প্রস্তাবনায় পরবর্তীতে সকল দেশের প্রতিনিধিরা বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে আগ্রহ ও সম্মতি প্রকাশ করে।


ড. এম. শাহ নওয়াজ আলি আরো জানান, এই উপলক্ষে বাংলাদেশ সেমিনার, সিম্পোজিয়াম, ওয়ার্কশপ ও কালচারাল প্রোগ্রাম আয়োজন করবে এবং এর ব্যয়ভার বাংলাদেশ সরকার বহন করবে বলেও তিনি জানান। পাশাপাশি বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে থাকা ভারপ্রাপ্ত সচিব ও সার্ক ডেস্কের দায়িত্বে কর্মরত শামসুল আলমের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন ড. এম. শাহ্ নওয়াজ আলি।


বিবার্তা/বিজ্ঞপ্তি/জহির

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com