নিরাপদ সড়কের দাবিতে শাহবাগে অবরোধ
প্রকাশ : ২০ মার্চ ২০১৯, ১৪:১৫
নিরাপদ সড়কের দাবিতে শাহবাগে অবরোধ
ঢাবি প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগ মোড় অবরোধ করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালেয়ের (ঢাবি) একদল শিক্ষার্থী।


বুধবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ক্যাম্পাস থেকে মিছিল নিয়ে শাহবাগ মোড়ে অবস্থান নেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। ফলে বন্ধ হয়ে যায় ওই এলাকার যান চলাচল।


সড়কে অবস্থানের আগে শিক্ষার্থীরা সকাল সাড়ে ১০টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্য থেকে মিছিল বের করে। মিছিলটি রোকেয়া হলের সামনে দিয়ে ভিসির বাসভবন হয়ে, ব্যবসায় শিক্ষা অনুষদ, কলাভবন হয়ে আবার টিএসসিতে যায়। পরে তারা শাহবাগ অবস্থান নিয়ে নিরাপদ সড়কের দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে।


অবরোধে শিক্ষার্থীরা প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্লোগান দিতে থাকে। ‘উই ওয়ান্ট জাস্টিস’, ‘সড়ক সড়ক সড়ক চাই, নিরাপদ সড়ক চাই’, ‘আমার ভাই মরলো কেনো, প্রশাসনের জবাব চাই’সহ বিভিন্ন স্লোগান দিতে দেখা যায় তাদের।


রাস্তা অবরোধ করা হলেও অ্যাম্বুলেন্সসহ সব গুরুত্বপূর্ণ যানবাহনকে চলাচলের জন্য রাস্তা করে দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা।


মঙ্গলবার সকালে রাস্তা পার হওয়ার সময় রাজধানীর প্রগতি সরণিতে সুপ্রভাত পরিবহনের একটি বেপরোয়া বাসের ধাক্কায় আবরার আহমেদ চৌধুরী নামে এক শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়। তিনি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালে (বিইউপি) আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগে পড়তেন।


আবরারের মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়লে বিউপির শিক্ষার্থীরা ঘটনাস্থলে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন। এক পর্যায়ে নিজেদের দাবি আদায়ে সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ শুরু করেন তারা। সন্ধ্যা পর্যন্ত তারা ওই সড়কে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ করে।


পরে বুধবার সকাল থেকে আবারো আন্দোলনে নামার ঘোষণা দিয়ে সড়ক ছেড়ে দেয়। আর এ ঘোষণার পর আজকেও নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনে নামে শিক্ষার্থীরা।


রাজধানীর বিভিন্ন সড়কে চলছে আট দফা দাবিতে তাদের আন্দোলন। তাদের দাবিগুলো হলো:


১. পরিবহন সেক্টরকে রাজনৈতিক প্রভাবমুক্ত করতে হবে এবং প্রতিমাসে বাসচালকের লাইসেন্সসহ সকল প্রয়োজনীয় কাগজপত্র চেক করতে হবে।


২. আটক হওয়া চালক ও সম্পৃক্ত সকলকে দ্রুততম সময়ে সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় আনতে হবে।


৩. আজ থেকেই ফিটনেসবিহীন বাস ও লাইসেন্সবিহীন চালককে দ্রুততম সময়ে অপসারণ করতে হবে।


৪. ঝুঁকিপূর্ণ ও প্রয়োজনীয় সকল স্থানে আন্ডার পাস, স্পিড ব্রেকার ও ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণ করতে হবে।


৫. চলমান আইনের পরিবর্তন করে সড়কে হত্যার সঙ্গে জড়িত সকলকে সর্বোচ্চ শাস্তির আওতায় আনতে হবে।


৬. দায়িত্ব অবহেলাকারী প্রশাসন ও ট্রাফিক পুলিশকে স্থায়ীভাবে অপসারণ করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।


৭. প্রতিযোগিতামূলক গাড়ি চলাচল বন্ধ করে নির্দিষ্ট স্থানে বাসস্টপ এবং যাত্রী ছাউনী করার জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।


৮. ছাত্রদের হাফপাস অথবা আলাদা বাস সার্ভিস চালু করতে হবে।


বিবার্তা/রাসেল/জাকিয়া


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

বি-৮, ইউরেকা হোমস, ২/এফ/১, 

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com