পদ্মা সেতুর উদ্বোধন, ঝিনাইদহে আজ উৎসবের দিন
প্রকাশ : ২৫ জুন ২০২২, ২৩:৪৭
পদ্মা সেতুর উদ্বোধন, ঝিনাইদহে আজ উৎসবের দিন
কোরবান আলী, ঝিনাইদহ প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

আজ ২৫ জুন। স্বপ্নের পদ্মা সেতুর শুভ উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মতো শস্য ভাণ্ডার খ্যাত ঝিনাইদহ জেলার মানুষের মাঝেও আবেগ, উচ্ছ্বাস, উত্তেজনার ঢেউ বয়ে যাচ্ছে। অন্যান্য শ্রেণি-পেশার মানুষের মতো কৃষক ও কৃষি পণ্য ব্যবসায়ীরাও উচ্ছ্বাসিত।


ঝিনাইদহ জেলা প্রধানত কৃষি নির্ভর। এই জেলার কৃষিতে পদ্মা সেতুর ব্যাপক প্রভাব পড়বে বলে মনে করছেন কৃষি সংশ্লিষ্টরা। ধান, পাট, আখ, ভুট্টা ও বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ এ অঞ্চলের মানুষের অর্থনীতির প্রধান উৎস। এখানকার উৎপাদিত খাদ্যপণ্য, শাক-সবজি, মাছ, মুরগি, দুধ, ডিম এখন সরাসরি রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে পৌঁছে যাবে মাত্র কয়েক ঘন্টার মধ্যে। দ্রুত পঁচনশীল পণ্যও এখন আর নষ্ট হবে না। উৎপাদিত ফসলের ন্যায্য মূল্য পাবেন চাষীরা। তাই পদ্মা সেতু আমাদের কৃষকদের আশা ও স্বচ্ছলতার প্রতীক।


পদ্মা সেতু নির্মাণ, উদ্বোধন ও এর প্রভাবই এ অঞ্চলের মানুষের এখন প্রধান আলোচ্য বিষয়। আবাল, বৃদ্ধ, বনিতার এখন আলোচনা একটাই। হাটে-বাজারে, পাড়ায়, মহল্লায়, মাঠে-ঘাটে, পথে-প্রান্তরে, স্কুলে, কলেজে, অফিস-আদালত থেকে শুরু করে, গ্রামীণ সড়কের পাশের চায়ের দোকানেও সকল আলোচনাকে ছাপিয়ে প্রাধান্য পাচ্ছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু। ভোরে রওনা দিয়ে ঢাকা থেকে অফিস আদালতের কাজ সেরে বাড়ি এসে রাতের খাবার খাওয়া যাবে। অফিস আদালতে সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরতরা ভোরে বাসে চেপে রাজধানীতে ঠিক সময়ে পৌছে যাবেন। অনেক ষড়যন্ত্র আর প্রতিকূলতা মোকাবিলা করে এ সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষ করায় এই অঞ্চলের লাখ-লাখ মানুষ ধন্যবাদ জানাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে।


পরিবহন ব্যবসায়ী মো. আলমগীর কবীর বিবার্তাকে বলেন, পদ্মা সেতু দিয়ে এখন আগের তুলনায় কম সময়ের মধ্যে ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেটেসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তে কাঁচামাল পৌছে দেয়া সম্ভব হবে।


ব্যবসায়ী আব্দুস সালাম বিবার্তা প্রতিনিধিকে বলেন, পদ্মা সেতু চালু হলে দ্রুত ও সহজে রাজধানীসহ সমগ্র দেশে যাতায়াত করা যাবে। ফলে ফড়িয়া, বেপারী বা মধ্যস্বত্বভোগীদের হাতে বন্দিদশা থেকে চাষিরা রেহাই পাবে। বাজার ব্যবস্থা প্রসারিত হবে। এতে দ্রুত এবং সহজে পণ্য পরিবহনের সুযোগ সৃষ্টি হওয়ার কৃষক ও ব্যবসায়ীরা লাভবান হবে।


হরিণাকুণ্ডু উপজেলা চেয়ারম্যান মো, জাহাঙ্গীর হোসাইন বিবার্তাকে বলেন, ঝিনাইদহ জেলা পানের জন্য বিখ্যাত। সারা দেশে এ জেলার পানের খ্যাতি ও সুনাম রয়েছে। পদ্মা সেতুর ফলে পান চাষীরা তাদের পানের ন্যায্য মুল্য পাবে। শুধু পান বা তরি-তরকারী নয়, গোটা কৃষিক্ষেত্রেই বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। শুধু চাষীরাই নয়, কৃষির সঙ্গেজড়িত ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ব্যাপক লাভবান হবেন। কৃষিপণ্যের মূল্যে সমতা আসবে।


পরিবেশকর্মী মাসুদ আহমেদ সনজু সাথে কথা হয় এই প্রতিনিধির। তিনি বলেন, পদ্মা সেতু ঝিনাইদহ তথা দক্ষিণাঞ্চলের বিনিয়োগ ব্যবস্থার দ্বার খুলে দিয়েছে। এতে সৃষ্টি হবে কর্মসংস্থান। পদ্মা সেতুকে ঘিরে এ অঞ্চলের মৎস্য, কৃষি, পর্যটন, অকাঠামোসহ সব খাতের প্রসার ঘটবে। পদ্মা সেতুকে ঘিরে কৃষিনির্ভর শিল্প স্থাপনের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। এ সুযোগ কাজে লাগিয়ে এ জেলার একটি বিশাল জনগোষ্ঠী তাদের ভাগ্যের পরিবর্তন ঘটাতে পারবে।



জেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. মনজিৎ সরকার বিবার্তাকে বলেন, পদ্মা সেতু চালু হওয়ায় এবার লাভের মুখ দেখবেন এই জেলার গবাদি পশু পালনকারীরা। পরিবহন ব্যবস্থা অনুকুলে না থাকায় এতদিন গরু-ছাগল মোটাতাজা করেও ভালো বাজার পায়নি এই জেলার খামারিরা। এ বছর থেকেই এই খাতে ব্যাপক সম্ভবনা সৃষ্টি হয়েছে। ফেরিঘাটের জট, দালাল সিন্ডিকেট ও আবহাওয়ার কবলে পড়ে উন্নত চিকিৎসার জন্যে ঢাকায় যাওয়ার ক্লান্তি, মাঝপথে মারা যাওয়া রোগীর স্বজনদের আহাজারিও কমে আসবে এখন থেকে।


ঝিনাইদহ বিসিক এর উপ ব্যবস্থাপক সেলিনা রহমান বিবার্তাকে জানান, পদ্মা সেতু খুলে দেয়ায় এবার নতুন স্বপ্ন উকি দিচ্ছে উদ্যোক্তাদের মাঝেও। শস্য ভাণ্ডারখ্যাত ঝিনাইদহ একটি সম্ভাবনাময় জেলা। এখানে প্রচুর উদ্যোক্তা রয়েছে। সুযোগ পেলে তারাও দেশের উন্নয়নে অবদান রাখতে পারবে। কিন্তু শিল্পায়নের জন্য যোগাযোগ ও সহজ পরিবহন ব্যবস্থা একটা অন্যতম শর্ত। এতোদিন পরিবহন সমস্যার পাশাপশি নানা সমস্যা ছিলো। পদ্মা সেতু চালু হওয়ার এসব সমস্যার সমাধান হবে। এ অঞ্চলে শিল্পের ব্যাপক প্রসার ঘটবে। যোগাযোগ ব্যবস্থা সহজ হলে আমাদের মত মফস্বল জেলা শহরেও উদ্যোক্তারা বড় বড় শিল্প-কারখানা গড়ে তুলতে আগ্রহী হবে। পদ্মা সেতু চালু হয়ার জেলার শিল্প খাতেও ব্যাপক পরিবর্তন সাধিত হবে।


জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপপরিচালক মো. আজগর আলী এই প্রতিবেদককে বলেন, ঝিনাইদহ কৃষি নির্ভর একটি জেলা। ফেরিঘাটে নানা জটিলতার কারণে আগে গাড়িতে করে কাঁচামাল ঢাকায় পৌছাতে সময় লাগতো ১৬-২০ ঘন্টা। এখন সেই সময় ৩ ভাগের এক ভাগ কমে আসবে। এতে কৃষক যেমন ভালো দাম পাবে, তেমনি ব্যবসায়ীরাও লাভবান হবে। ভোক্তা পর্যায়ে সতেজ টাটকা পণ্য পৌছে যাবে খুব সহজেই। এই জেলার কৃষিপণ্য বিপণনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আসবে। অন্যদিকে, ঝিনাইদহে আমদানিকৃত পণ্যেও পরিবহন খরচ কম হওয়ায় ঢাকার বাজারের সাথে সামঞ্জস্য থাকবে।


জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাইদুল করিম মিন্টু বিবার্তাকে বলেন, উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা উন্নয়নেরও পুর্বশর্ত। পদ্মা সেতুর কল্যাণে যোগাযোগ ব্যবস্থা অভূতপূর্ব উন্নতি হবে। জননেত্রী শেখ হাসিনা আজ স্বপ্নের পদ্মা সেতু উদ্বোধন করলেন। এতে এই অঞ্চলের মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নতি হবে। কৃষি, শিল্প, ব্যবসা, বাণিজ্য, পর্যটনসহ এ অঞ্চলের সার্বিক অবস্থার বৈপ্লবিক পরিবর্তন হবে। অর্থনীতির চাকা সচল হবে। দেশ হবে সমৃদ্ধ। এ সেতু নিয়ে দেশী বিদেশী কুশীলবরা অনেক ষড়যন্ত্র করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দৃঢ়তা ও বিচক্ষণতায় সব ষড়যন্ত্র ছিন্ন করে এই স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে। পদ্মা সেতু নির্মাণের ফলে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের ভাগ্যের উন্নয়ন হবে। এর অংশীদার আমাদের ঝিনাইদহ জেলাও। তাই ঝিনাইদহ জেলার মানুষের আজ উৎসবের দিন।


বিবার্তা/রোমেল/বিএম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com