‘প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণ করা হবে’
প্রকাশ : ১৭ আগস্ট ২০২২, ১৭:৫২
‘প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণ করা হবে’
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন ছিলো বৈষম্যমুক্ত সোনার বাংলাদেশ গড়া, আর সেই স্বপ্ন বাস্তবায়নে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ২০০৮ সালে ডিজিটাল বাংলাদেশের রূপকল্প দিয়েছিলেন। প্রযুক্তিকে ব্যবহার করেই বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সেই সোনার বাংলা বিনির্মাণ করতে হবে।


বুধবার (১৭ আগস্ট) বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল মিলনায়তনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে আয়োজিত জাতির পিতার ৪৭তম শাহাদাত বার্ষিকী এবং জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বক্তৃতায় এসব কথা বলেন তিনি।


পলক বলেন, বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ও ডিজিটাল বাংলাদেশের নির্মাতা সজীব ওয়াজেদ এর অনুপ্রেরণায় গত ১৩ বছরে প্রযুক্তির শক্তিকে কাজে লাগিয়ে শহর-গ্রাম এবং ধনী-দরিদ্রদের মধ্যে কিছুটা হলেও বৈষম্য দূর করা সম্ভব হয়েছে। নারী-পুরুষের বিভেদ ও বৈষম্য দূর করার চেষ্টাও আমরা চালিয়ে যাচ্ছি।


আইসিটি প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘৭১ এর পরাজিত অপশক্তি শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, বঙ্গবন্ধুর পরিবারের সদস্যদের এমনকি ১০ বছরের নিষ্পাপ শিশু শেখ রাসেলকেও হত্যা করেছে। কারণ, তারা চেয়েছিল বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানেও যেন বঙ্গবন্ধুর পরিবারের কেউ তার আদর্শকে ধরে রাখতে না পারে।


তিনি আরো বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর জাতীয় চার নেতাকে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধুর উত্তরসূরী ও অনুসারী কেউ যেন মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও চেতনা লালন করতে না পারে, তার জন্য এ হত্যাকাণ্ড। বঙ্গবন্ধু সবসময় মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকতেন, মৃত্যুকে ভয় পেতেন না। বঙ্গবন্ধুকে দৈহিকভাবে হত্যা করলেও ঘাতকেরা তার আদর্শকে মারতে পারেনি।


তিনি বলেন, যে মানুষ মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত থাকেন তাকে কেউ মারতে পারে না। বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে বিশ্বের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা এবং ডক্টরেট দেয়া হচ্ছে। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ ওয়ার্ল্ড হেরিটেজের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী পৃথিবীর ২০০টি রাষ্ট্রে পালিত হয়েছে। এখন প্রত্যেককে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ধারণ করে সোনার মানুষে পরিণত হতে হবে।


অনুষ্ঠানে আইসিটি বিভাগের সিনিয়র সচিব এন এম জিয়াউল আলমের সভাপতিত্বে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের নির্বাহী পরিচালক বিকর্ণ কুমার ঘোষ। এছাড়া, মুখ্য আলোচক হিসেবে মুক্তিযোদ্ধা জাদুঘরের বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর ট্রাস্টি মফিদুল হক বক্তব্য রাখেন।


বিবার্তা/জামাল

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com