নতুন নেতৃত্বের অপেক্ষায় মহিলা আওয়ামী লীগ
প্রকাশ : ২৪ নভেম্বর ২০২২, ০৮:২৭
নতুন নেতৃত্বের অপেক্ষায় মহিলা আওয়ামী লীগ
সোহেল আহমদ
প্রিন্ট অ-অ+

প্রায় সাড়ে ৫ বছর পর আগামী ২৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন মহিলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। সম্মেলনের সময় যত ঘনিয়ে আসছে, ততই বাড়ছে শীর্ষ পদ প্রত্যাশী নেত্রীদের দৌড়ঝাঁপ। সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকের মতো শীর্ষ পদে কারা আসছেন, তা নিয়েও চলছে জোর আলোচনা। সম্মেলন সামনে রেখে ধানমন্ডিস্থ আওয়ামী লীগ সভাপতির কার্যালয়ে বেড়েছে সমাগম। সম্মেলন ঘিরে নিয়মিত হাজিরা দিচ্ছেন পদপ্রত্যার্শীরা।



জানা গেছে, রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠনের সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে প্রস্তুত করা হচ্ছে মঞ্চ। সম্মেলন সফল করতে এরই মধ্যে গঠন করা হয়েছে বেশ কয়েকটি উপ-কমিটি। সম্মেলন বিষয়ে পরামর্শের জন্য গত ১৫ নভেম্বর গণভবনে আওয়ামী লীগের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন মহিলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক।



দলীয় সূত্রে জানা যায়, ১৯৬৯ সালের ২৭ ফেব্রুয়ারি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা করেন। ৫৩ বছর পার করা সংগঠনটির সর্বশেষ সম্মেলন ২০১৭ সালের ৪ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সম্মেলন শেষে সাফিয়া খাতুন সভাপতি এবং মাহমুদা বেগমকে সাধারণ সম্পাদক করে কমিটি ঘোষণা করা হয়। এর পাঁচ মাস পর ১৫১ সদস্য বিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়। পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে ২১ জন সহ-সভাপতি, ৮ জন যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক, ৮ জন সাংগঠনিক সম্পাদক, ২৩ জন সম্পাদক এবং ৮৯ জন সদস্য রয়েছেন। তিন বছর মেয়াদি ওই কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে ২০২০ সালের ৪ মার্চ। এরই মধ্যে সংগঠনটির বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় সদস্য মারা গেছেন। এছাড়া অনেকে বার্ধক্যজনিত কারণে সংগঠনের কার্যক্রম থেকে দূরে রয়েছেন।


দলের নেতা-কর্মীরা বলছেন, সংগঠনটির গঠনতন্ত্রের ২ ধারায় আছে বাংলাদেশ মহিলা আওয়ামী লীগের নীতি ও আদর্শে বিশ্বাসী ১৮ বছর বা তদূর্ধ্ব বয়স্ক বাংলাদেশের মহিলা নাগরিক এই সংগঠনের সদস্য হতে পারবেন। সেই সূত্রে মহিলা আওয়ামী লীগে যোগদানে যুব মহিলা লীগ ও সাবেক ছাত্রলীগের নেত্রীরাই দলটির রাজনীতির সাথে জড়িত। নতুন কমিটিতেও প্রাধান্য পাবেন তারা।


এদিকে দেশের সবচেয়ে বড় নারী রাজনৈতিক দলের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণার পর থেকে ঘুম নেই পদপ্রত্যাশীদের। বিশেষ করে সম্মেলনের তারিখ যতই ঘনিয়ে আসছে সভাপতি-সম্পাদকসহ পদপ্রত্যাশীদের মাঝে বাড়ছে ব্যস্ততা। শীর্ষ পদ পেতে পদপ্রত্যাশীরা অব্যাহত রেখেছেন শেষ মুহূর্তের দৌঁড়ঝাপ। আর নতুন নেতৃত্বের অপেক্ষায় কর্মীরা।



সম্মেলনকে সামনে রেখে সভাপতি-সম্পাদক পদ প্রত্যাশীরা বলছেন, আর এক বছর পর অনুষ্ঠিত হবে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। সম্মেলনের মাধ্যমে যে কমিটি গঠন হবে সেই কমিটির নেতৃত্বেই মহিলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা ভোটের মাঠে কাজ করবেন। আওয়ামী লীগকে টানা চতুর্থ মেয়াদে রাষ্ট্র ক্ষমতায় আনতে তাই সৎ, যোগ্য, পরিশ্রমী ও ত্যাগী দেখে কমিটিতে মূল্যায়নের দাবি তাদের।



সম্মেলনের প্রস্তুতির বিষয়ে জানতে চাইলে মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম ক্রিক বিবার্তাকে বলেন, আমাদের প্রস্তুতি খুবই ভালো। আমাদেরকে সবার আগে সম্মেলনের তারিখ দেয়া হয়েছে। সেই ক্ষেত্রে আমরা মনে করি আমাদের ওপর দেশনেত্রী শেখ হাসিনার আস্থা আছে বিধায় আগে আমাদের সম্মেলন দিয়েছেন। আমরা অনেক ভালো প্রস্তুতি নিয়েছি। অনেক ভালো একটা অনুষ্ঠান হবে।


আলোচনায় যারা:


সভাপতি পদ প্রত্যাশী: বর্তমান সভাপতি সাফিয়া খাতুন, সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম ক্রিক, আসমা জেরিন ঝুমু, বনশ্রী বিশ্বাস স্মৃতি কণা, আজিজা খানম কেয়া, শিরীন নাঈম পুনম, আলেয়া পারভীন রঞ্জু ও নাসিমা ফেরদৌস।


সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী: যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শিরিন রুকসানা, শিখা চক্রবর্তী, শরিফুল হাসান বিথী, জান্নাত আরা হেনরী, সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা পান্না, ঝর্ণা বাড়ৈ, ইসমত আরা হ্যাপী। এছাড়াও সংগঠনটির দফতর সম্পাদক রোজিনা নাছরীন রোজীও সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী।


কেমন নেতৃত্ব চান আলোচিত পদপ্রত্যাশীরা:


মহিলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাফিয়া খাতুন বিবার্তাকে বলেন, মহিলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন ২৬ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলন নিয়ে আমাদের প্রস্তুতি খুবই ভালো। ইনশাআল্লাহ সবকিছু সুন্দর ও সফলভাবে শেষ হবে।


তিনি বলেন, মহিলা আওয়ামী লীগ একটি সুসংগঠিত দল। আমি দীর্ঘদিন ধরে নারীদের সংগঠিত করার কাজ করে যাচ্ছি। মহিলা আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা আমার সঙ্গে আছেন। আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দলের কাজ করার জন্য আমাকে সংগঠনের যেখানে রাখবেন, সেখানে থেকেই দায়িত্ব পালনের চেষ্টা করব।


জানতে চাইলে মহিলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক মাহমুদা বেগম ক্রিক বিবার্তাকে বলেন, আমি দীর্ঘদিন মহিলা আওয়ামী লীগের সাথে আছি। জেলা, উপজেলা, ইউনিয়ন পর্যায়ে মহিলা আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করার চেষ্টা করেছি। আমি যখন দায়িত্ব নিয়েছি এরপর ২০১৮ সালে জাতীয় নির্বাচনে নারীদের নিয়ে সর্বোচ্চ প্রচারণা চালিয়েছি।


তিনি বলেন, আগামীতেও যদি আসতে পারি তাহলে আরো বেশি কাজ করব। আগামী এক বছর পর জাতীয় নির্বাচন। উন্নয়ন, মানবতার নেত্রী শেখ হাসিনা বিশ্বের একজন সেরা প্রধানমন্ত্রী। তাঁর সমস্ত উন্নয়নের বার্তা তৃণমূলে মানুষের কাছে নিয়ে যাব। নারীদের ভোট যাতে অন্তত নৌকাতে পড়ে সেই চেষ্টা করব।


ম‌হিলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক রাজিয়া সুলতানা পান্না বিবার্তাকে বলেন, সামনে কঠিন সময় আসছে। সম্মেলনের মাধ্যমে মহিলা আওয়ামী লীগের কমিটি ঘোষণা হবে। এই কমিটির নেতৃত্বেই আগামী নির্বাচন হবে। নির্বাচন সামনে রেখে এমন নেতৃত্ব আসা উচিত যারা দক্ষতার সাথে ভূমিকা পালন করতে পারবে।


তিনি বলেন, আমাদের দেশের নারী কিন্তু এখন আর ৫০ শতাংশ নয়, ৫২ শতাংশ হয়ে গেছে। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, নারীদের বাদ দিয়ে উন্নয়ন সম্ভব নয়। সেজন্য তিনি মহিলা আওয়ামী লীগ গঠন করেছিলেন। আজ তাঁর স্বপ্ন বাস্তবায়ন করছেন শেখ হাসিনা। তিনি নারীদের নিয়ে সূদূরপ্রসারী চিন্তা করেন। সারাবিশ্বে যাতে নারীদের সুনাম ছড়িয়ে দেয়া যায়, সেই লক্ষ্যেই তিনি কাজ করছেন। সম্মেলনে এমন নেতৃত্ব আসুক যারা দেশ এবং প্রবাসে নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে নারীেদের নেতৃত্ব নিয়ে আসবে। নারীরা স্বমহিমায় কাজ করবে, এমন পরিবেশ তৈরি করবে।


সম্মেলনে সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী ম‌হিলা আওয়ামী লী‌গের দফতর সম্পাদক রোজিনা নাছরীন রোজী। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কুয়েত-মৈত্রী হল ছাত্রলীগের সাবেক এই সভাপতি বিবার্তাকে বলেন, সারা বাংলাদেশে অনেক নির্যাতিত মা-বোনেরা রাজনীতি করছে। তাদেরকে সামনে আনা একটা বড় চ্যালেঞ্জ। অভিযোগ আছে জেলাগুলোতে ত্যাগীরা পদ পায় না। আমি সুযোগ পেলে মহিলাদের সংগঠিত করব। পদ বা কমিটি বাণিজ্য যাতে না হয় সেটা নিশ্চিত করার চেষ্টা করব।


তিনি বলেন, আমার বাবা বীর মুক্তিযোদ্ধা। আমি ছাত্র রাজনীতি করে এখানে এসেছি। দলের পেছনে ঘাম, শ্রম আছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় পড়ালেখা করেছেন এমন নারীদের সংগঠিত করে সংগঠনের জন্য কাজ করতে চাই। সুযোগ পেলে তৃণমূলে নারীদের কাছে আওয়ামী লীগকে নিয়ে যাওয়ার সর্বোচ্চ চেষ্টা থাকবে। সবসময় সৎ থেকে দলে শৃঙ্খলা বজায় রাখার চেষ্টা করব।


বিবার্তা/সোহেল/রোমেল/এসবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com