সারাবিশ্বের সঙ্গে মূল্য সমন্বয় করতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে: হানিফ
প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০২২, ২২:৩১
সারাবিশ্বের সঙ্গে মূল্য সমন্বয় করতে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হয়েছে: হানিফ
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

সংকটকালে বিএনপি-জামায়াতের কথায় বিভ্রান্ত না হয়ে দলের নেতা-কর্মীদের ধৈর্য্য ধারণের আহ্বান জানিয়ে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুবউল আলম হানিফ বলেছেন, গোটা বিশ্ব এই মুহূর্তে সংকটের মধ্যে আছে। বাংলাদেশও সংকটের মধ্যে আছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানি তেল সরবরাহ বন্ধ হয়ে গেছে। সারাবিশ্বে অস্থিতিশীল অবস্থা। ডলার-ইউরোর দাম বাড়ছে। এ সংকট শুধু বাংলাদেশের নয়, সারাবিশ্বের সব দেশে। এ অবস্থায় আমাদেরও মূল্য সমন্বয় করতে হচ্ছে।


রবিবার (৭ আগস্ট) বিকেলে নগরীর আন্দরকিল্লায় নগর ভবন চত্বরে জাতীয় শোক দিবসের আলোচনা সভায় হানিফ এ আহ্বান জানিয়েছেন। মুক্তিযোদ্ধা সংসদ চট্টগ্রাম মহানগর ও জেলা ইউনিট কমান্ডের যৌথভাবে আয়োজিত ৬ দিনের এ কর্মসূচির তৃতীয় দিনে প্রধান অতিথি ছিলেন মাহবুবউল আলম হানিফ।


সবাইকে ধৈর্য্য ধারণের আহ্বান জানিয়ে হানিফ বলেন, সংকটকালে এই মুহূর্তে সকলের দায়িত্ব হচ্ছে, ধৈর্য্য ধারণ করে সরকারের পাশে এসে দাঁড়ানো। আপনারা ধৈর্য্য ধারণ করুন। করোনাকালীন সময় আমরা পার করে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঘুরে দাঁড়িয়েছিলাম। এ সংকটও বেশিদিন থাকবে না। আমরা আশা করছি, আগামী সেপ্টেম্বর-অক্টোবরের মধ্যেই সংকট কেটে যাবে। বাংলাদেশ আবার শেখ হাসিনার নেতৃত্বে উন্নয়ন-অগ্রগতির ধারায় ফিরে যাবে।


মাহবুবউল আলম হানিফ বলেন, বঙ্গবন্ধুর জন্ম না হলে বাংলাদেশ কখনও স্বাধীন হতো না। যুদ্ধবিধ্বস্ত পোড়ামাটির বাংলাদেশকে বঙ্গবন্ধু সাড়ে ৩ বছরে যে অবস্থানে দাঁড় করিয়েছেন তা ইতিহাসে নজির। খুনি জিয়া-মোস্তাকসহ ৭১’এ যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী ও পরাজিত শক্তি তারাই ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যা করেছে। পৃথিবীর ইতিহাসে এ রকম নারকীয় হত্যাকাণ্ড আর ঘটেনি। এ বর্বরতম হত্যাকাণ্ডের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতির ইতিহাসে এক কলঙ্কময় অধ্যায় যুক্ত হয়েছিলো। বঙ্গবন্ধু হত্যার নেপথ্যে মদদদাতাদের আইনের আনতে হবে। শুধু রাষ্ট্র ক্ষমতার জন্য নয়, সমগ্র বাঙালির স্বপ্ন ও স্বাধীনতা নস্যাৎ করার উদ্দেশ্যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে। শোককে শক্তিতে রূপান্তরের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।


তিনি বলেন, আওয়ামী লীগের সকল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের প্রতি অনুরোধ, সংকটের সময় মন শক্ত করে শেখ হাসিনার পাশে থাকুন। যে অপশক্তি নানা কথা বলে যাচ্ছে, তাদের কথায় কান দেবেন না। বিএনপি-জামায়াত মিথ্যাচার করছে। তারা আপনাদের বিভ্রান্ত করতে চায়। তাদের কথায় কান দেবেন না। দেশকে সংকট থেকে মুক্ত করতে হলে শেখ হাসিনার কোনো বিকল্প নেই। শেখ হাসিনার মতো করে রাষ্ট্র শাসন করতে পারে এমন একজন নেতাও বাংলাদেশে নেই।


বিরোধীদের রাজপথে মোকাবিলা করা হবে উল্লেখ করে হানিফ বলেন, এদেশ আমাদের সকলের। পরিষ্কারভাবে বলে দিতে চাই, বাংলাদেশকে নিয়ে নোংরা রাজনীতির খেলা বরদাশত করা যাবে না। সংকটকে পুঁজি করে ফায়দা হাসিল করতে চাইলে তাদের রাজপথে মোকাবিলা করবো। আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সজাগ থাকতে হবে, সকল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের সজাগ থাকতে হবে।


দেশ পরিচালনায় এখন শেখ হাসিনার সমকক্ষ কেউ নেই বলে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের এ সিনিয়র নেতা আরো বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়নে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও উদ্দেশ্য হৃদয়ে ধারণ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০৪১ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে। দেশবিরোধী ষড়যন্ত্র রুখতে মহান মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সব শক্তিকে সজাগ থাকতে হবে।


বিএনপি-জামায়াতের সমালোচনা করে তিনি বলেন, একাত্তর সালে জামায়াত ইসলামী মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিলো পাকিস্তানের পক্ষ নিয়ে। এখনো জামায়াতের যারা রাজনীতি করে, তারা এখনো পাকিস্তানের পক্ষে রাজনীতি করে যাচ্ছে। তারা এখনো সেই রাজাকারই আছে। তারা কখনো দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না। এদের সঙ্গে যোগ দিয়ে বিএনপিও দেশের বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র করে যাচ্ছে। এই বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্র বানানোর ষড়যন্ত্র তারা করেছিলো। শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ির অপবাদ থেকে মুক্ত করে উন্নয়নশীল দেশের কাতারে নিয়ে গেছেন।


মুক্তিযোদ্ধা সংসদের মহানগর ইউনিটের কমান্ডার মোজাফফর আহমেদের সভাপতিত্বে ও সন্তান কমান্ড কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মোহাম্মদ সরওয়ার আলম চৌধুরী মনির সঞ্চালনায় শোক সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন- চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন, বিভাগীয় কমিশনার আশরাফ উদ্দিন, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, আওয়ামী লীগের শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক উপ-কমিটির সদস্য মাহমুদ সালাউদ্দিন চৌধুরী ও পুলিশ সুপার এসএম রশিদুল হক প্রমুখ।


বিবার্তা/সোহেল/এমবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com