চন্দ্রগ্রহণ নিয়ে প্রচলিত সংস্কার মানবেন কি?
প্রকাশ : ১৫ মে ২০২২, ১১:৪৯
চন্দ্রগ্রহণ নিয়ে প্রচলিত সংস্কার মানবেন কি?
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

চন্দ্রগ্রহণ সম্পর্কে বেশ প্রচলিত কিছু বিষয় যা অনেকেই কুসংস্কার হিসেবে আখ্যা দেন সেসব শোনা যায়। যেমন: চন্দ্রগ্রহণ চলাকালীন কাঁচা খাবার, কোনো মাংসজাতীয় খাবার, ফল ও শাকসবজি খাওয়া থেকে বিরত থাকা। গর্ভবতীকে এই সময় বাইরে বের হতে না দেওয়া এতে গর্ভের শিশুর ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এছাড়া এ সময় ছুরি, কাঁচি বা সূচের মতো ধারাল জিনিস ব্যবহার করার বিষয়টিও প্রচলিত আছে। অন্যদিকে, পৌরাণিক শাস্ত্র অনুযায়ী খালি চোখে চন্দ্রগ্রহণ দেখা নিষেধ। যদিও এসব কথার তেমন বৈজ্ঞানিক কোনো প্রমাণ মেলেনি। আজকে জানব, চন্দ্রগ্রহণ নিয়ে প্রচলিত সংস্কারগুলো কতটা যৌক্তিক, কতটা মেনে চলা জরুরি বিধিনিষেধগুলো।


প্রথমেই জেনে নেই, চন্দ্রগ্রহণ কী এবং কেন হয়। সূর্যের চারদিকে ঘোরার সময় যখন পৃথিবী ঠিক তার সামনে আসে এবং চাঁদও একই সময়ে পৃথিবীর সামনে আসে। পৃথিবী সম্পূর্ণরূপে সূর্যকে ঢেকে রাখে। এ কারণে চাঁদে সূর্যের আলো পৌঁছায় না। একে পূর্ণ চন্দ্রগ্রহণ বলা হয়। অর্থাৎ, চন্দ্রগ্রহণ হওয়ার পেছনে কারণ হলো, চাঁদ পৃথিবীকে কেন্দ্র করে ঘুরতে থাকার সময় পৃথিবী চাঁদ ও সূর্যের মাঝখানে চলে আসা, তখন সূর্যের আলো চাঁদ পর্যন্ত সরাসরি পৌঁছতে পারে না। পৃথিবী থেকে যেটুকু আলো ছিটকে এসে চাঁদ পর্যন্ত পৌঁছায় সেইটুকু আলোতেই চাঁদ আলোকিত হয়। যার ফলে হয় চন্দ্রগ্রহণ। পৃথিবী দ্বারা চাঁদে সরাসরি সূর্যালোক পৌঁছতে বাধা পেলে, পৃথিবী থেকে যেটুকু আলো পৌঁছায় তার থেকে চাঁদ উজ্জ্বল লাল বর্ণের মনে হয়। আর তখন দেখা মেলে ব্লাড মুনেরও।


চন্দ্রগ্রহণ নিয়ে আছে বহুল প্রচলিত লোককথা, বছরের পর বছর মানুষ এসব বিশ্বাস করে আসছে। এসব কথার মধ্যে সত্যতা কতখানি? সত্যিকার অর্থে চন্দ্রগ্রহণের সময় কী ধরনের সতর্কতা অবলম্বন করা উচিত? এটি আদৌ মানবদেহে কোনো ক্ষতি করে কি না? আর এ প্রসঙ্গে বিশেষজ্ঞরাও বা কী সতর্কবার্তা দিয়েছেন? এসকল প্রশ্নের উত্তর মিলেছে বিশেষজ্ঞদের কাছ থেকেই।


চন্দ্রগ্রহণের সময় ভূপৃষ্ঠে এসে পৌঁছানো তরঙ্গ দৈর্ঘ্য এবং আলোর রেডিয়েশন পরিবর্তন সংঘটিত হয়। ফলে ওই সময় বিভিন্ন রোগের ক্ষতিকর জীবাণু অত্যন্ত সক্রিয় হয়ে ওঠে। যার ফলে খাদ্যে বিভিন্ন ব্যাকটেরিয়া জন্ম নেয়। যেটি খাবারের উপযুক্ততা নষ্ট করে ফেলে। এই প্রসঙ্গে মেডিযোগার আবিষ্কারক অনুপের ভাষ্যমতে, চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদ পৃথিবীর অনেক কাছে অবস্থান করায় জলস্তরে বেশ কিছু ইলেক্ট্রো-ম্যাগনেটিক বডি উৎপন্ন হয়।


সেক্ষেত্রে, চন্দ্রগ্রহণ শুরুর দুই ঘণ্টা আগ থেকে খাওয়া বন্ধ করা উচিত। এর আগে এবং পরে হালকা সহজপাচ্য খাদ্যগ্রহণ করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ হজম হতে সময় লাগায় আমিষ খাবার না খাওয়ারই পরামর্শ তাদের। এছাড়া গ্রহণের সময়টিতে, আগে রান্না করা খাবার কোথাও নিয়ে যেতেও সতর্ক করেছেন তারা।


চন্দ্রগ্রহণের ফলে উৎপন্ন হয় বিভিন্ন ক্ষতিকর রেডিয়েশন যা খাবারের সঙ্গে মিশে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। গর্ভবতী নারী ও বয়স্কদের ক্ষেত্রে খাদ্যগ্রহণে কোনো বিধি-নিষেধ নেই, তবে হজম সমস্যা এড়াতে হালকা কোনো খাবার যেমন ড্রাই ফ্রুট, কিসমিস খাওয়া উত্তম। আর পানীয় হিসেবে পানির পরিবর্তে ডাবের পানি পান করার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা।



বিশেষজ্ঞদের মতে, যেহেতু মানবদেহের ৭২ শতাংশ পানি তাই মানসিক কিছু পরিবর্তন ঘটার সম্ভাবনা থাকে। তাছাড়া এসময় মানুষ প্রচুর পরিমানে খাদ্যগ্রহণ করলে হজমে গোলযোগ দেখা দিতে পারে তাই এসময়টাতে হালকা খাবার খাওয়াই ভালো হবে বলে মতামত বিশেষজ্ঞদের। এদিকে নাসার ধারণা, গ্রহণ চলাকালীন সময়ে মানুষের কোনো শারীরিক পরিবর্তন না হলেও মানসিক পরিবর্তন দেখা দিতে পারে।



চন্দ্রগ্রহণের সময় যা করবেন না



১. চন্দ্রগ্রহণের সময় কোন ধারালো ছুরি ব্যবহার করা উচিত নয়।


২. গর্ভবতী মহিলারা সেলাই-বুনন করবেন না।


৩. কোন ধারালো বস্তু ব্যবহার করা উচিত নয়।


৪. এই সময়ে কেউ কোনো ধরনের শুভ কাজ করবেন না।


৫. গ্রহনকালে রান্না ও খাওয়া উভয়ই নিষিদ্ধ।


৬. সূর্যগ্রহণের সময় গর্ভবতী মহিলাদের ঘর থেকে বের হওয়া উচিত নয়।


৭. গর্ভবতী মহিলাদেরও গ্রহণের সময় ছুরি বা কাঁচি ব্যবহার করা উচিত নয়।


৮. চন্দ্রগ্রণের পর গোসল করুন তবে গোসল করার পর একেবারেই চুল আঁচড়াবেন না।


৯. চন্দ্রগ্রহণের সময় গাছপালা স্পর্শ করাও এড়িয়ে চলা উচিত।


১০. গরু, মহিষ, ছাগলের দুধ বের করা উচিত নয়।


চন্দ্রগ্রহণের শুভ ও অশুভ প্রভাব ব্যক্তির জীবনে দেখা যায় বলে কিছু সংস্কার প্রচলিত আছে। সেসব মেনে চলেন অনেকেই। যেহেতু সূর্যরশ্মি, আলোক তরঙ্গ এসবের সাথে সম্পর্কিত বিষয়, তাই চন্দ্রগ্রহণের সময় কিছু সংস্কার মেনে চললে ক্ষতি নেই। চন্দ্রগ্রহণ মর্ত্যের পৃথিবীতে শুভবার্তা বয়ে আনুক সবার জন্য।


বিবার্তা/এসবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com