টাকা পাচারের কারণেই 'ডলার' সঙ্কট: শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী
প্রকাশ : ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৮:৪২
টাকা পাচারের কারণেই 'ডলার' সঙ্কট: শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী
কিরণ শেখ
প্রিন্ট অ-অ+

নানা কারণে রাজপথে বিএনপি সরকার বিরোধী আন্দোলনে তেমন সুবিধা করতে পারেনি। এবার দলটি সরকার হটানোর জন্য যুগপৎ আন্দোলনের কথা বলছে। কিন্তু মামলা-হামলা এবং পুলিশ হয়রানিতে এমনিতেই বিপর্যস্ত দলটি। এরপরও তারা সফলতার জন্য যুগপৎ আন্দোলনের রূপরেখা তৈরি করছে। সাম্প্রতিক এই বিষয়গুলো নিয়ে বিবার্তা২৪ডটনেটের সঙ্গে একান্তে কথা বলেছেন সাবেক ছাত্রনেতা, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির প্রচার সম্পাদক এবং মিডিয়া সেলের সদস্য সচিব শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন কিরণ শেখ।


বিবার্তা: বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ শেষ হয়েছে, কবে নাগাদ কাউন্সিল কিংবা নতুন কমিটি গঠন করা হবে?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: এই ব্যাপারে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান দলের স্থায়ী কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে পরবর্তী যেকোন সময় সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন।


বিবার্তা: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন নিয়ে বিএনপির ভাবনা কি?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: আমরা আন্দোলনরত অবস্থানে আছি। আমাদের এই আন্দোলন হলো ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করার জন্য। দীর্ঘদিন ধরে এদেশে ফ্যাসিস্ট আওয়ামী লীগ সরকার ভোটবিহীনভাবে ক্ষমতা দখল করে আছে। আমরা এদেশে একটা সুস্থ, স্বাভাবিক রাজনীতি এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি করছি। এই দাবিকে সামনে রেখে আমরা আমাদের একটা লক্ষ্য নির্ধারণ করেছি। এর মধ্যে দিয়ে এই সরকারের পতন নিশ্চিত হবে। সেজন্য রাজপথে আমরা সরকার পতনের আন্দোলনকে বেগবান করার জন্য কাজ করছি এবং পাশাপাশি আমরা আন্দোলনও করছি। ইনশাআল্লাহ আমাদের অধিকার আদায় হবে।


তিনি বলেন, আমরা একটা সুষ্ঠু এবং স্বাভাবিক নির্বাচন দেখতে চাই। কিন্তু বর্তমান ফ্যাসিস্ট ও স্বৈরাচার সরকার সেটা চায় না। এজন্য এদেশে আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রতিষ্ঠা করে সুষ্ঠু নির্বাচনের দাবি আদায় করে নেয়া হবে।


বিবার্তা: সরকার হটানোর যুগপৎ আন্দোলনের রূপরেখার কার্যক্রম কতদূর?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: এ পর্যন্ত প্রায় ৩০টি বিরোধী দলের সঙ্গে বিএনপির আলোচনা ও বৈঠক হয়েছে। সেখানে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ দলের সিনিয়র নেতৃবৃন্দরা অংশগ্রহণ করেছেন। এসব বৈঠকে সবার মধ্যে একটা একাত্মতা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। আলোচনা মধ্যে দিয়ে সবাই ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন করার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। আর যুগপৎভাবে এই আন্দোলনকে আরও কিভাবে বেগবান করা যায়, সেব্যাপারে আলাপ-আলোচনার পরিপ্রেক্ষিতে কর্মসূচি প্রণয়ন করা হচ্ছে। আমার বিশ্বাস, এই যুগপৎ আন্দোলনের মাধ্যমে সকল রাজনৈতিক দল রাজপথে আরও বেশি কঠিন ভূমিকা পালন করবে।


বিবার্তা: নির্বাচনী রোডম্যাপকে বিএনপি কিভাবে দেখছে?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: বিএনপি এখন নির্বাচনের কথা চিন্তা করছে না। আমরা আমাদের ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করব। সেজন্য বারবার আমরা আন্দোলনের কথা বলছি।


বিবার্তা: ১৫০ আসনে ইভিএম পদ্ধতিতে নির্বাচনের সিদ্ধান্তকে কিভাবে দেখছেন?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: আমরা বারবার বলছি- আন্দোলন-সংগ্রামের মধ্যে দিয়ে আমরা আমাদের অধিকার প্রতিষ্ঠা করব।



বিবার্তা: ভারত সফর থেকে শূন্য হাতে আসিনি, প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তব্যকে আপনি কিভাবে দেখছেন?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: আমাদের দেশ এবং দেশের মানুষের প্রত্যাশা দীর্ঘদিন থেকেই ছিল- জোরালো দাবি ছিল, কিন্তু যতবারই এই সরকার ভারত সফরে গিয়েছে ততবারই খালি হাতে ফিরেছে। আর এই সরকার আন্তর্জাতিকভাবে আজকে সরকারি দল হিসেবে কারও কাছ থেকেই সহযোগিতা পাচ্ছে না। এরা বন্ধুহীন। যেহেতু এরা (আওয়ামী লীগ সরকার) একটা অরাজনৈতিক অবস্থার মধ্যে দিয়ে অসাংবিধানিক পন্থায় জোর-দখল করে দেশের রাষ্ট্র ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত। এজন্য বর্তমান সরকারকে কেউ বিশ্বাস করছে না। সুতরাং যে দেশেই বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার যাবে সেদেশ থেকেই তারা খালি হাতে ফিরবে।


বিবার্তা: ডলার কেনাবেচায় যে অভিন্ন রেট নির্ধারণ করা হয়েছে সেখানে রফতানি ও আমদানির ক্ষেত্রে ব্যবধান বেশি রাখা হয়েছে। এতে ব্যবসা সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে রফতানি কারকরা কি চাপে পড়বে?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: দুর্নীতির মাধ্যমে এরা (আওয়ামী লীগ) সরকার পরিচালনা করছে। দেশ থেকে তারা প্রচুর টাকা লুটপাট করেছে। প্রচুর টাকা বিদেশে পাচার করেছে। দুর্নীতি এবং লুটপাটের কারণে আজকে বাংলাদেশের মানুষ কষ্টে আছে। সেখানে টাকা নেই। ব্যবস্থা-বাণিজ্যে মন্দা। আজকে আওয়ামী লীগের কিছু লোক লুটপাট করার মধ্যে দিয়ে, প্রভাব-প্রতিপত্তি দিয়ে তাদের অবস্থানটাকে সুদৃঢ় রেখেছেন। বাস্তবিক পক্ষে এই লুটপাট, দুর্নীতি এবং টাকা পাচারের কারণেই ডলার সঙ্কট দেখা দিয়েছে। ভবিষ্যতে আরও বেশি দেখা দেবে বলে আমরা মনে করি। সুতরাং এই সরকারকে হটানোই হলো আমাদের মূল টার্গেট। যতদিন পর্য‌ন্ত এই সরকারকে দেশবাসী বিদায় না দেবে, বিদায় না করতে পারবে ততদিন পর্য‌ন্ত এধরণের সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে। এজন্যই আমরা ঐক্যবদ্ধ হচ্ছি।


বিবার্তা: কেমন বাংলাদেশ দেখতে চান?


শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানী: আগামী বাংলাদেশ এই আন্দোলন-সংগ্রামের ওপর নির্ভর করবে। এই দেশ যেনো কোনভাবেই আর রাজনৈতিকভাবে দেউলিয়া না হয়। একটা স্বাভাবিক রাজনৈতিক চর্চা যেনো চলতে পারে। এদেশের মানুষ সুন্দরভাবে বসবাস করতে পারেন, ব্যবসা-বাণিজ্য, জীবনযাপন, মান-সম্মান এবং ইজ্জতসহ যেনো তারা তাদের অবস্থানকে নিয়েই চলতে-ফেরতে পারেন। সেজন্য একটা কঠিন গণআন্দোলন প্রয়োজন। সেই আন্দোলনের মধ্যে দিয়ে বর্তমান আওয়ামী লীগ ফ্যাসিস্ট সরকার বিদায় হবে। এর মধ্যে দিয়ে বাংলাদেশে একটা সুন্দর গণতান্ত্রিক পরিবেশ গড়ে উঠবে। আর দেশের মানুষ তার চাহিদা মোতাবেক, তার সুবিধা অনুযায়ী বসবাস করবে, জীবনযাপন করবে। এবং তারা তাদের মান-সম্মান, ইজ্জতকে রক্ষা ও সুদৃঢ় করবে। সবার সম্মান থাকবে। সেই প্রত্যাশাই আমরা করি।


বিবার্তা/কিরণ/রোমেল/জেএইচ


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com