রাজশাহীতে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ
প্রকাশ : ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০২:২৮
রাজশাহীতে গৃহবধূকে শ্বাসরোধে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ
রাজশাহী প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

রাজশাহীর পুঠিয়ায় কাজল রেখা (৩৫) নামে এক গৃহবধূকে বাঁশের বাতা দিয়ে পেটানোর পর শ্বাসরোধে হত্যাচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। কাজল রেখা বেগমের চিকিৎসার ঔষুধ কিনে চাওয়ায় তার স্বামী এ হত্যাচেষ্টা চালিয়েছেন বলে ভুক্তভোগীর অভিযোগ। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে থানায় মামলা করেন ভুক্তভোগী কাজলী বেগম।


ভুক্তভোগী কাজল রেখা পুঠিয়া উপজেলার বেলপুকুরিয়া ইউনিয়নের বেলপুকুর থানা মহানগর কামার ধাদাশ গ্রামের মৃত কালাচাদ মণ্ডলের (কাদির বক্স) মেয়ে। আর অভিযুক্তের নাম শরিফুল ইসলাম (৪০)। তিনি একই উপজেলার বানেশ্বর ইউনিয়নের হাটশিবপুর গ্রামের সালিমুদ্দিনের ছেলে।


জানা গেছে, প্রায় ২৩ বছর আগে শরিফুলের সঙ্গে কাজলির বিয়ে হয়। বিয়েতে ১ ভোরি স্বর্ণ ৭ হাজার টাকা যৌতুক নেন শরিফুল। ১৬/০৯/২২ই তারিখে সকাল ১১ টা দিকে শরিফুলের ভাই ও বাবার প্ররচনায় শরীফুল কাজলিকে বাবার বাড়ির জমি বিক্রয় করে ৫ লক্ষ টাকা নিয়ে আসার জন্য চাপ দিতে থাকে। টাকা দিতে না চাইলে গলাই ওড়না পেচিয়ে হত্যার চেষ্টা করে শরিফুল। সেখান থেকে পালিয়ে রাস্তার মোড়ে গেলে সেখানে গিয়ে বাঁশের বাতা দিয়ে মেরে গুরুতর আহত করেন কাজল রেখাকে৷ ঘটনার পর বুধবার রাতে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ আসপাতালে ভর্তি করা হয়। কাজলিকে মেডিকেল থেকে আসার পর তার ছোট ভাইয়ের সাথে থানায় এসে ৩ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন তিনি। এর আগে বাড়ির পূর্বপাশে একটি জমি ক্রয়ের জন্য কাজল রেখাকে টাকা আনতে বললে কাজল রেখা তার বাবার জমি বিক্রয় করে টাকা নিয়ে গিয়ে স্বামীকে দেন। সেই জমি কাজলির নামে দেয়ার কথা থাকলেও কাজল রেখার শশুর জোর করে শরিফুলের নামেই রেজিস্ট্রি করে দেন।


কাজল রেখা জানান, দীর্ঘ চার বছর ধরে আমি অসুস্থ। আমি যখনি ঔষুধের কথা বলি তখনি আমার মাকে টেনে অশ্লীল ভাষায় গালাগালি করে আর মারধর করে আমার স্বামী শরিফুল। ঘটনার দিন মঙ্গলবার আমার বাবার বাড়ির আট কাঠা জমি বিক্রিয় করে এনে দিলে চিকিৎসা হবে, না হলে চিকিৎসা করাবেনা বলে গলায় ওরনা পেচিয়ে হত্যার চেষ্টা করে আমাকে। আমি কোনোভাবে পালিয়ে দৌড়ে রাস্তার মোড়ে গেলে সেখানে গিয়ে আমাকে বাঁশের বাতা দিয়ে মেরে সারা শরীর যখন করে। ঘটনা জানতে পেরে আমার ছোট ভাই ও বোন এসে আমাকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। বৃহস্পতিবার আমি সশরীরে থানায় গিয়ে মামলা দায়ের করি।


এ ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত শরিফুলের মোবাইল নাম্বারে কয়েকবার কল দিলে নাম্বারটি বন্ধ পাওয়া যায়।


এ বিষয়ে পুঠিয়া থানা পুলিশের ওসি সোহরাওয়ার্দী হোসেন বলেন, এ ঘটনায় লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। তাদের দীর্ঘদিনের সংসার, ছেলেমেয়েদেরও বিয়ে হয়েছে। এর আগেও বেশ ককয়েকবার ঝামেলা হয়েছিল। স্থানীয়ভাবে মিমাংসা করা হয়েছে। আবারও অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।


বিবার্তা/বিএম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com