বাঁধ রক্ষায় স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছে উপকূলবাসী
প্রকাশ : ২৬ মে ২০২০, ১৩:৫৭
বাঁধ রক্ষায় স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছে উপকূলবাসী
প্রিন্ট অ-অ+

ঘূর্ণিঝড় আম্পানের আঘাতে ভেসে গেছে সাতক্ষীরার উপকূলীয় বাঁধ। সাতক্ষীরার শ্যামনগর উপজেলার উপকূলীয় গাবুরা ইউনিয়ন পুরোপুরি বিধ্বস্ত। গোটা ইউনিয়ন এখন পানির নিচে। পরিবারকে আশ্রয়কেন্দ্রে রেখে স্বেচ্ছাশ্রমে উপকূলীয় বাঁধ রক্ষার কাজে নেমেছে এলাকাবাসী।


মঙ্গলবার (২৬ মে) সকাল থেকে কয়েক হাজার মানুষ স্বেচ্ছাশ্রমে উপকূলীয় বাঁধ নির্মাণ কাজে নেমেছেন। গাবুরা ইউনিয়নের লেবুগুনিয়া এলাকায় বাঁধ রক্ষায় কাজ করছেন এসব মানুষ। তবে বাঁধ রক্ষায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) কোনো কর্মকর্তাকে এখনো দেখা যায়নি।


লেবুগুনিয়া এলাকার ৮ বছর বয়সী রাসেল বলে, ঈদের কোনো আনন্দ করতে পারলাম না। নৌকায় করে চলাফেরা করতে হচ্ছে। খুব কষ্ট হচ্ছে আমাদের। আব্বু সকালে বাঁধ রক্ষার কাজে গেছেন।


একই গ্রামের মিজানুর রহমান জানান, লেবুগুনিয়া গ্রামের কপোতাক্ষ নদীর বাঁধ ভেঙে গোটা ইউনিয়ন প্লাবিত হয়েছে। এক কিলোমিটারেরও বেশি বাঁধ ভেঙে গেছে। স্ত্রী-সন্তান নিয়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয়কেন্দ্রে রয়েছেন। কোনো খাদ্য সামগ্রী এখনও পাননি। বাড়িতে খাবারও নেই। খুব কষ্টে আছেন। তিনি আরো বলেন, আমাদের ত্রাণের প্রয়োজন নেই। বার বার আমরা বলেছি, ত্রাণ দিতে হবে না ভালো একটা বাঁধ করে দেন আমাদের। কেউ আজও দেয়নি।


গাবুরা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জিএম মাসুদুল আলম বলেন, বাঁধ রক্ষায় গ্রামবাসীকে নিয়ে কাজ করছি। মানুষের জীবন বাঁচাতে হবে। ইউনিয়নের ৪০ হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। পার্শ্ববর্তী পদ্মপুকুর ইউনিয়নের পাতাখালী এলাকায় কপোতাক্ষ নদীর বাঁধ রক্ষায় স্বেচ্ছাশ্রমে কাজ করছেন এলাকাবাসী।


পাতাখালী গ্রামের বাসিন্দা সাজিদুর রহমান বলেন, আইলায় যে জায়গায় বাঁধ ভেঙেছিল ঠিক সেখানেই ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের আঘাতে বাঁধ ভেঙেছে। আমরা মেরামতের চেষ্টা করছি। এছাড়া বেঁচে থাকবো কি করে।


পদ্মপুকুর ইউনিয়নের স্থানীয় ইউপি সদস্য সাইফুল্লাহ্ বলেন, পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) খামখেয়ালিপনার কারণে আজ আমাদের এই দুর্দিন। বার বার একই ঘটনা ঘটলেও তারা কোনো পদক্ষেপ নেয় না।


জেলা প্রশাসনের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, ঘূর্ণিঝড় আম্ফানের আঘাতে জেলার উপকূলব্যাপী ৫৭.৫০ কিলোমিটার বাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।


এ ব্যাপারে কথা বলতে পানি উন্নয়ন বোর্ড (পাউবো) সাতক্ষীরা-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুজ্জামান খানকে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।


সাতক্ষীরার জেলা প্রশাসক এস.এম মোস্তফা কামাল বলেন, সাতক্ষীরার শ্যামনগর ও আশাশুনি উপকূলীয় এলাকায় বাঁধ রক্ষার কাজ শুরু হয়েছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডকে বলা হয়েছে, বাঁধ রক্ষায় জিও ব্যাগ ও বাঁশ যা লাগবে তারা সেগুলো সরবরাহ করবে। ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় আমি পিআইসি কমিটি করে দিয়েছি। তারা দেখবে সেখানে কী পরিমাণ খরচ বা বরাদ্দ প্রয়োজন।


তিনি বলেন, এখন জনপ্রতিনিধি ও গ্রামবাসী একযোগে কাজ করছেন। আমি বিশ্বাস করি এই দুর্যোগ আমরা কাটিয়ে উঠতে পারবো।


বিবার্তা/সেলিম/এনকে

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com