প্রথম জয় পেলো সিলেট
প্রকাশ : ২৫ জানুয়ারি ২০২২, ১৫:৩৯
প্রথম জয় পেলো সিলেট
স্পোর্টস ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

তারকাবহুল ঢাকার বিপক্ষে জয়ের জন্য প্রয়োজন ছিল মাত্র ১০১ রান। ক্যাচ মিসের মহড়ায় কোনো অঘটন ছাড়াই তিন উইকেটের বিনিময়ে সহজ সেই লক্ষ্য পেরিয়ে গেছে মোসাদ্দেক সৈকতের দল। আর এর মধ্য দিয়ে ১৮ বল হাতে রেখেই আসরে প্রথম জয়ের স্বাদ পেল তারা। সেটিও আবার ৭ উইকেটের বিশাল ব্যবধানে।


হার, হার, জয় এবং হার। চলতি বিপিএলের প্রথম চার ম্যাচে ঢাকার আমলনামা। অথচ আসর শুরুর আগে সবচেয়ে ফেবারিট ভাবা হচ্ছিল তাদেরকেই। টাইগার তিন পঞ্চপাণ্ডব মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, তামিম ইকবার এবং মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ছাড়াও টুর্নামেন্টের সবচেয়ে দামি খেলোয়াড় আন্দ্রে রাসেলও ছিলেন ঢাকা শিবিরে।


এছাড়া ব্যাট হাতে চার-ছক্কার ফুলঝুড়ি ছুটানো আফগান ব্যাটার মোহাম্মদ শেহজাদ কিংবা লঙ্কান তারকা পেসার উদানারা তো রয়েছেনই। তবে মাঠে কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। ফলাফল পয়েন্ট টেবিলের তলানিতে অবস্থান।


১০১ রানের সহজ টার্গেটে খেলতে নেমে ইনিংস শুরুর বলেই আউট হতে পারতেন লিন্ডলে সিমন্স। রুবেলের করা প্রথম বলটিই ব্যাটের পাশ গলে শেহজাদের বিশ্বস্ত হাতে চলে যায়। জোরালো আবেদনের পরও সাড়া দেননি আম্পায়ার। রুবেলের ওই ওভার থেকে রান আসে মোটে একটি।


দ্বিতীয় ওভারেই হাতে বল তুলে নেন ৪০২ দিন পর মাঠে ফেরা মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। এক চার ও তিন সিঙ্গেলে নিজের প্রথম ওভারে দিয়েছেন ৭ রান। তবে নিজের দ্বিতীয় ওভার করতে এসে দলকে প্রথম সাফল্য এনে দেন নড়াইল এক্সপ্রেস। বিপজ্জনক হতে যাওয়া ক্যারিবীয় ব্যাটার সিমন্সকে রুবেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরান ম্যাশ।


আউট হওয়ার আগে সিমন্স দুই চারে করেছেন ২১ বলে ১৬ রান। সিমন্সের পর মিথুন আর বিজয় মিলে ভালোই এগোচ্ছিলেন। ফিল্ডারদের নিশ্চিত দুটি ক্যাচ মিসে আরও বাড়ন্ত হয় তাদের ইনিংস। তবে শেষ পর্যন্ত মিথুন বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি। চিরাচরিত ব্যাটিং খেলে ১৭ বলে করেছেন ১৫ রান করে আউট হয়েছেন তিনি।


তবে আজ দিনটা ছিল এনামুল হক বিজয়ের। উইকেটের পেছনে দাঁড়িয়ে ঢাকার প্রথম ব্যাটার শেহজাদকে স্টাম্পিং করে ফিরিয়েছিলেন। এবার ব্যাট হাতেও দলকে নেতৃত্ব দিলেন। নিয়ন্ত্রিত ব্যাটিংয়ে অর্ধশতকের দ্বারপ্রান্তে ছিলেন। করেন ৪৩ বলে ৪৫ রান। তবে দলের জয় থেকে মাত্র দুই রান দূরত্বে থাকতে ওভার বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে সাজঘরে ফেরেন বিজয়। তবে তার আগে মূল্যবান ইনিংস খেলে বলতে গেলে দলকে জয়ের দোড়গোড়ায় নিয়ে যান তিনি।


প্রথম ইনিংসে তারুণ্য নির্ভর সিলেট সানরাইজার্সের বিপক্ষে দাঁড়াতেই পারেনি তারকাবহুল ঢাকা। শুরুতে ব্যাট করতে নেমে সবকটি উইকেট হারিয়ে কোনোরকমে একশ করতে পেরেছে মাহমুদউল্লাহরা।


ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারেই সোহাগ গাজীর বলে এনামুল হক বিজয়ের স্টাম্পিংয়ের শিকার হয়ে ফিরে যান শেহজাদ। সাজঘরে ফেরার আগে ৭ বল খেলে করেন ৫ রান। যার মধ্যে চারের মার ছিল একটি। শেহজাদের হতাশ করার দিনে হাল ধরতে পারলেন না তামিম ইকবালও। দীর্ঘদিন জাতীয় দলের বাইরে। মাঝে প্রস্তুতি শানাতে নেপালের এভারেস্ট প্রিমিয়ার লিগে খেলেছিলেন। ছিলেন সিলেটের মাটিতে হওয়া ইন্ডিপেনডেন্ট কাপেও। তবে কোথাও ভালো করতে পারেননি।


তবে চলতি বিপিএলে ঢাকার হয়ে প্রথম দুই ম্যাচে ফিফটির দেখা পেয়েছিলেন। এরপর তৃতীয় ম্যাচে আউট হয়েছিলেন শূন্য রানে। আর আজ করতে পারলেন মোটে ৩ রান। সিলেট অধিনায়ক মোসাদ্দেক সৈকতের বলে এলবিডব্লিউর ফাঁদে পড়েন তিনি। যদিও এবারের আসরে ডিআরএস না থাকায় রিভিউ নেওয়ারও সুযোগ মেলেনি। স্কোরবোর্ডে ৯ রান তুলতেই দুই দুটি উইকেট হারায়। ঢাকার আসা-যাওয়ার মিছিল আরও বড় করেন জহিরুল।


বিবার্তা/বিএম

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com