ঈশ্বরগঞ্জে বহিষ্কৃতরা হতে চান উপজেলা আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদক
প্রকাশ : ২৭ জুন ২০২২, ২২:২৫
ঈশ্বরগঞ্জে বহিষ্কৃতরা হতে চান উপজেলা আ.লীগের সভাপতি-সম্পাদক
বিবার্তা প্রতিবেদক
প্রিন্ট অ-অ+

দীর্ঘ ১৯ বছর পর ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ৪ জুলাই উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করেছে কেন্দ্র। সম্মেলনকে ঘিরে উজ্জীবিত তৃণমূলের নেতা-কর্মীরা। পদ প্রত্যাশীরা দৌড়ঝাঁপে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন।


দীর্ঘদিন পর উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন হলেও উদ্বিগ্ন দলের ত্যাগী নেতা-কর্মীরা। তারা জানান, সম্মেলনকে সামনে রেখে দলের নেতা-কর্মীদের মাঝে উৎসাহ-উদ্দীপনা বিরাজ করছে। তবে নৌকার বিদ্রোহী প্রার্থী, বিদ্রোহী প্রার্থীর সমর্থক ও নৌকার পক্ষে কাজ করায় দলের নেতা-কর্মীদের হয়রানির অভিযোগে দল থেকে বহিষ্কৃত নেতারা সভাপতি-সম্পাদক হওয়ার দৌঁড়ে রয়েছেন। হাইব্রিড, অনুপ্রবেশকারীদের বাদ দিয়ে দলের প্রকৃত ত্যাগী নেতা-কর্মীদের দিয়ে উপজেলা কমিটি গঠনের দাবি তাদের।


জানা যায়, সর্বশেষ ২০০৩ সালের ১১ জুলাই ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। ৬৭ সদস্য বিশিষ্ট ওই কমিটির ১৪ জন সদস্য প্রয়াত। এর মধ্যে কমিটির সাধারণ সম্পাদক আব্দুল হাকিম ২০২১ সালের ২২ জানুয়ারি মারা যান।


স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আসন্ন সম্মেলনে সভাপতি ও সম্পাদক পদ প্রত্যাশীদের অনেকেই বিগত জাতীয় ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন ও নৌকার পক্ষে কাজ করায় দলীয় নেতা-কর্মীদের ওপর চাপ সৃষ্টি ও হয়রানির অভিযোগে বহিষ্কার হয়েছিলেন। গত বছরের ২৬ জানুয়ারি সংগঠন বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে এবং ঈশ্বরগঞ্জ পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীকে মদদ দেয়ায় তাদেরকে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নির্দেশে সাংগঠনিক পদ ও দলের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়।


সেই সময় ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্দেশনা অমান্য করে দলীয় প্রার্থী হাবিবুর রহমান ও নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করে বিদ্রোহী প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার নিজ ভবন থেকে নারকেল গাছ প্রতীকে নির্বাচন পরিচালনা করতে দলীয় নেতা-কর্মীদের বিভিন্নভাবে চাপ প্রয়োগ করেছেন। একই অভিযোগে বিদ্রোহী প্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, যুগ্ম-সম্পাদক জয়নাল আবেদীন ও বজলুর রহমানকে দলীয় পদ ও সাধারণ সদস্য থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।


আসন্ন ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতি পদে আলোচনায় রয়েছেন ময়মনসিংহ-৮ আসনের সাবেক এমপি আব্দুছ ছাত্তার, উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুল, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য তারিকুল হাসান তারেক ও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি মাসুদ হাসান তুর্ণ প্রমুখ।


জানা গেছে, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন সামনে রেখে দৌঁড়ঝাপ শুরু করেছেন আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্যপদ থেকে বহিষ্কৃত উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমন। এমনকি দল থেকে বহিষ্কৃতদের নিয়ে তিনি সম্মেলন প্রস্তুতি সভাও করে যাচ্ছেন। অথচ গত বছরের ২৮ জানুয়ারি ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল স্বাক্ষরিত চিঠিতে বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান মাহমুদ হাসান সুমনকে আওয়ামী লীগের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। এছাড়াও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে সিংহ প্রতীকে নির্বাচনে অংশ নেন মাহমুদ হাসান। যদিও শেষ পর্যন্ত নির্বাচন কমিশনের কারণে নির্বাচন করতে পারেননি তিনি। তার ভাই আবুল খায়ের মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত বলে অভিযোগ রয়েছে। জুয়াড়ি হিসেবে গ্রেফতারও হয়েছেন খায়ের। আরেক সভাপতি প্রার্থী তারিকুল হাসান তারেকের গ্রামের বাড়ি নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার বাঁশাটি। জানা গেছে, তার নানা নিহত আব্দুল কাদির মেম্বার একজন রাজাকার ছিলেন।


উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আলোচনায় রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক (বহিষ্কৃত) জয়নাল আবেদিন, যুব ও ক্রীড়া বিষয়ক সম্পাদক একেএম হারুন অর রশীদ হারুন, উপজেলা আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য সাফির উদ্দিন আহমেদ, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক, ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী যুবলীগের সাবেক সভাপতি (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) সাফায়েত হোসেন ভুঁইয়া, ২০০১ জাতীয় নিবাচনে উপজেলা আওয়ামী যুবলীগ আহবায়ক (অব্যাহতিপ্রাপ্ত) আবু বকর সিদ্দিক দুলাল, যুবলীগের সাবেক আহবায়ক অ্যাডভোকেট হাবিবুল্লাহ মিলন ও উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল জলিল প্রমুখ।


সাধারণ সম্পাদক প্রার্থীদের মধ্যে উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক জয়নাল আবেদীনকে গত বছরের ২৬ জানুয়ারি সংগঠন বিরোধী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে দলীয় পদ ও দলের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়। পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক গত পৌর নির্বাচনে বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন করেছিলেন। উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক ছিলেন আবু বকর সিদ্দিক দুলাল। তবে বর্তমানে বহিস্কৃত তিনি। বিগত পৌর ও ইউপি নির্বাচনে নৌকার বিরোধী প্রার্থীকে সমর্থন দেন তিনি। এজন্য দল থেকে বহিষ্কার হন দুলাল। হাবিবুল্লাহ মিলনের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি, ভূমিদস্যুতার অভিযোগ রয়েছে। এছাড়া গেলো কয়েক মাস আগে নিজেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে প্রচার করেন তিনি। এতে তৃণমূলে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের হস্তক্ষেপে তা ভুয়া প্রমাণিত হয়।


উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি আব্দুল জলিল মণ্ডল। ঈশ্বরগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে চাচাতো ভাই নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হাবিবুর রহমানের বিরোধিতা করেন তিনি। উপজেলা আওয়ামী লীগের আরেক সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী সাফায়েত হোসেন ভূঁইয়া। ২০০১ সালে আওয়ামী লীগ মনোনীত সংসদ সদস্য প্রার্থী আব্দুস সাত্তারকে হারাতে বিদ্রোহী প্রার্থীকে সমর্থন দিয়ে কোরআান শরীফ ছুয়ে নির্বাচনী প্রচারণায় অংশগ্রহণ করেন সাফায়েত। তারই ধারাবাহিকতায় স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তাকে সবসময় নৌকা প্রতীকের বিরোধীতা করতে দেখা গেছে। আরেক সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী সাফির উদ্দিন আহমেদ এর বাবা হাশিম উদ্দিন ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থীর বিরোধিতা করেন। বিগত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ঈশ্বরগঞ্জ সদর ইউনিয়নে তার ভাই হারিছ উদ্দিন আহমেদ নৌকা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন।


এ বিষয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রফিকুল ইসলাম বুলবুল বিবার্তাকে বলেন, যারা গঠনতন্ত্র বিরোধী কাজ করায় দল থেকে বহিষ্কার হয়েছেন তাদের দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে আসা সম্ভব না। আওয়ামী লীগ ঐতিহ্যবাহী দল। গঠনতন্ত্র মানতে হবে আর না হলে তো সাধারণ মানুষ আস্থা হারাবে। বহিষ্কৃতদের ব্যাপারে কেন্দ্রীয় নেতারাও জানেন। কারা নেতৃত্ব আসবেন নেত্রী সিদ্ধান্ত দিবেন।


ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল বিবার্তাকে বলেন, আমরা আমাদের পক্ষ থেকে পরিস্কারভাবে বলে দিয়েছি যারা দলের বিরুদ্ধে কাজ করে বহিষ্কার হয়েছেন তারা দলে গুরুত্বপূর্ণ পদ পাবেন না। ত্যাগী ও যোগ্য নেতাদের দিয়ে ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের কমিটি গঠন করা হবে।


বিবার্তা/সোহেল/রোমেল/জেএইচ


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com