বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল; নামে আছে, কাজে নেই!
প্রকাশ : ২১ মে ২০২২, ১৫:৩৬
বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দল; নামে আছে, কাজে নেই!
কিরণ শেখ
প্রিন্ট অ-অ+

দুই বছর ধরে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের কোনো কর্মকাণ্ড ও কর্মসূচি নেই। এসময়ে জোটের কোনো আনুষ্ঠানিক বৈঠকও হয়নি। নামমাত্র অনানুষ্ঠানিকভাবে জোটের কয়েকজন নেতা একে অপরের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। সেটাও হয়েছে কালে-ভদ্রে। মূলত একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই ২০ দলীয় জোটের দৃশ্যমান কোনো কর্মসূচি নেই। হাতেগোনা কয়েকটি আলোচনা সভা করেছে এবং বিভিন্ন ইস্যুতে গণমাধ্যমে বিবৃতি দিয়েছে জোটের শরীক দলগুলো। এই বাইরে জোটগতভাবে কোনো কর্মসূচি দেয়নি ২০ দল। এসব দেখে জোটের শীর্ষ নেতাদের মনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে- ২০ দলীয় জোট থাকবে, না কি ভাঙবে?


গত ৪ ফেব্রুয়ারি ২০ দলীয় জোটের শরীক দলগুলোর কয়েকজন শীর্ষ নেতার সঙ্গে অনানুষ্ঠানিক বৈঠক করেছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়। ওই বৈঠকে জোটের ১০-১২ জন নেতা উপস্থিত ছিলেন। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বৈঠকে উপস্থিত জোটের এক শীর্ষ নেতা বিবার্তাকে জানিয়েছেন, এটা কোন আনুষ্ঠানিক বৈঠক ছিল না। চা-নাশতা খাওয়ার জন্য আমরা বসেছিলাম।


জোটের বৈঠক না ডাকা নিয়ে ২০১৯ সালে বিএনপি এবং ২০ দলের নেতাদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছিল। নেতাদের ক্ষোভের কারণে ওই সময় বিএনপি সিদ্ধান্ত নেয় যে, প্রতি মাসেই ২০ দলীয় জোটের বৈঠক হবে। কয়েক মাস নিয়মিত বৈঠকও হয়। কিন্তু গত দুই বছর ধরে জোটের কোন বৈঠক ডাকেনি বিএনপি। বিষয়টি নিয়ে অসন্তোষ জোট নেতারা।


বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের শরীকদলগুলোর পাঁচজন শীর্ষ নেতা এসব তথ্য স্বীকার করে বিবার্তা বলেন, এটা সঠিক যে, ২০ দলীয় জোটের কোনো কর্মকাণ্ড, কর্মসূচি নেই। কিন্তু জোটের শরীক দলগুলো যার যার দল নিয়ে ব্যস্ত আছে। সবাই দল গোছাচ্ছে। বিএনপি যখন চাইবে তখন সবাইকেই পাবে।


এবিষয়ে নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক ২০ দলীয় জোটের এক শীর্ষ নেতা বিবার্তাকে বলেন, নিস্ক্রিয় হয়ে পড়েছে ২০ দলীয় জোট। বৈশ্বিক করোনা মহামারির শুরুতে থেকেই জোটের কোনো বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়নি। আর বিএনপি জোটের কোনো নেতাকেও ডাকেনি।


জানতে চাইলে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক দল ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ বিবার্তাকে বলেন, সব সময়ই ২০ দলীয় জোটের কার্যক্রম আছে। আর আমরা সব সময়ই আন্দোলন করছি। টেকনিক্যালি শুধু বৈঠক করছি না। কিন্তু ‍পৃথক পৃথকভাবে আলোচনা করছি। আর আমরা আন্দোলনেও আছি।


২০ দলীয় জোটের আরেক শরীক বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বিবার্তাকে বলেন, ২০ দলীয় জোটের শরীকদলগুলো যার যার দল নিয়ে ব্যস্ত আছে। সবাই দল গোছাচ্ছে।


বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটে প্রায় সময়ই ভাঙা-গড়ার খেলা চলছে। জোট থেকে একটি দল বের হয়ে গেলেই সেই দলটি দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে একটি অংশ ২০ দলীয় জোটের সাথে সম্পৃক্ত থাকে। আর অপর অংশটি (মূল) জোটের বাইরে চলে যায়।


গত ১ অক্টোবর ২০ দলীয় জোট ছাড়ার ঘোষণা দেয় জোটের অন্যতম রাজনৈতিক দল খেলাফত মজলিস। ওই সময় জোট ছাড়ার বিষয়ে দলটি বলেছিল, ২০১৮ সালে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট গঠনের মধ্য দিয়ে ২০ দলীয় জোটকে কার্যত রাজনৈতিকভাবে অকার্যকর করা হয়। আর আদর্শিক, সাংগঠনিক ও রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিবেচনায় খেলাফত মজলিস একটি আদর্শিক রাজনৈতিক সংগঠন হিসেবে সক্রিয় এবং স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য নিয়ে ময়দানে ভূমিকা রাখবে। তাই এখন থেকে ২০ দলীয় জোটসহ সকল রাজনৈতিক দলের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করছে খেলাফত মজলিস।


এর আগে গত ১৪ জুলাই ২০ দলীয় জোট ছাড়ার ঘোষণা দেয় জোটের আরেক শরিক জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ। ওই দলটি বলছে, আমরা মনে করছি- বর্তমান পরিস্থিতিতে আমাদের জন্য ২০ দলীয় জোট ত্যাগ করাই কল্যাণকর। তবে বিএনপির অভিযোগ, চাপ ও প্রলোভন দিয়ে জোটের দলগুলোকে ২০ দল থেকে বের করে নিয়ে যাচ্ছে সরকার।


এবারও জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জোটের অনেক নেতাই সরকারের দালালি এবং ষড়যন্ত্র করবেন বলে মনে করছেন ২০ দলীয় জোটের প্রধান দল বিএনপি।


এবিষয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও ২০ দলীয় জোটের সমন্বয়ক নজরুল ইসলাম খান বলেন, লড়াইয়ের ময়দানে দেখবেন, অনেকেই নতুন যুক্ত হবে- অনেকেই ঝরে যাবে। অনেকেই দালালি করবে, অনেকেই ষড়যন্ত্রের স্বীকার হবে। আবার অনেকেই লোভে পড়বে।


এদিকে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্যের ডাক দিয়েছে বিএনপি। কিন্তু এই ঐক্যের আলোচনা এখনো বেশিদূর এগোয়নি। এই ঐক্যে ২০ দলীয় জোট থাকবে কি থাকবে না সে বিষয়ে এখনো কিছু বলেনি বিএনপি। আর ২০ দলের শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে বৃহত্তর ঐক্যের প্রসঙ্গেও এখনো কোন কথা বলেনি দলটি।


এই বিষয়ে ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বিবার্তাকে বলেন, ২০ দলীয় জোটকে বাইরে রেখে কিভাবে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য হবে? তবে এবিষয়ে বিএনপি এখনো আমাদের সাথে কোনো কথা বলেনি।


২০ দলীয় জোটের বিষয়ে জানতে চাইলে ডেমোক্রেটিক লীগের সাধারণ সম্পাদক সাইফুদ্দিন আহমেদ মনি বিবার্তাকে বলেন, এখন কোনো বৈঠক নেই। আর জামায়াতে ইসলামীকে নিয়ে বিএনপির উপরের নেতারা এক কথা বলেন এবং নিচের নেতারা আরেক কথা বলছেন। সুতরাং ২০ দলীয় জোট থাকবে না কি ভেঙে যাবে, এটা বিএনপির উপর নির্ভর করছে।


বিবার্তা/কিরণ/রোমেল/এমবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com