আল্লাহর বন্ধু না শত্রু; যেসব কাজের বদৌলতে
প্রকাশ : ১৯ আগস্ট ২০২২, ১১:৩১
আল্লাহর বন্ধু না শত্রু; যেসব কাজের বদৌলতে
ধর্ম ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

আল্লাহর বন্ধু হওয়া সহজ ব্যাপার নয়। ইসলামের পরিভাষায় আল্লাহর বন্ধু তারা, যারা ইসলামের সব রোকনের ওপর বিশ্বাস স্থাপন করে এবং আমল করে আর সবক্ষেত্রে আল্লাহ তাআলাকে ভয় করে। কোরআনুল কারিমের আয়াতে আল্লাহর বন্ধু হওয়ার জন্য দুটি কাজের দিকনির্দেশনা পাওয়া যায়। একটি হলো পরিপূর্ণ ঈমান বা বিশ্বাস স্থাপন করা আর অপরটি হলো আল্লাহকে ভয় করা।


প্রত্যেক ঈমানদার মুমিনই আল্লাহর ওলি বা বন্ধু। ঈমান ও তাকওয়ার পরিপূর্ণতা যার মধ্যে বেশি পরিলক্ষিত হবে সে ততবেশি আল্লাহর ঘনিষ্ঠ বন্ধুতে পরিণত হবে। এ কারণেই ওলামায়ে আহনাফ বলেন, ‘সব মুমিন ব্যক্তিই করুনাময় আল্লাহ তাআলার বন্ধু। তাঁদের মধ্য থেকে যে যত বেশি আল্লাহর অনুগত ও কোরআনের অনুসারি সে ততবেশি আল্লাহর কাছে সম্মানিত ও (বেলায়েতের অধিকারী)।


হাদিসের বর্ণনায় উঠে এসেছে, কে আল্লাহর বন্ধু আর কে আল্লাহর শত্রু। বন্ধু এবং শত্রু হওয়ার কারণই বা কী?


‘জেনে রাখ! নিশ্চয় আল্লাহর বন্ধুদের কোনো ভয় নেই এবং তাঁরা চিন্তিতও হবে না। যারা ঈমান এনেছেন এবং যারা তাকওয়ার পথে চলেন। তাদের জন্যই দুনিয়ার জীবনে এবং আখেরাতে সুসংবাদ। আল্লাহর কথায় কোনো পরিবর্তন নেই। এটিই মহা সফলতা।’ (সুরা ইউনুস : আয়াত ৬২-৬৪)


ফরজ ইবাদত পালনের পর যে যতবেশি নফল ইবাদতে নিজেকে আত্মনিয়োগ করবে, সে ততবেশি আল্লাহর ঘনিষ্ঠ বন্ধুতে পরিণত হবে। আর যে বা যারা আল্লাহর নির্দেশিত আবশ্যক কাজ থেকে নিজেদের গুটিয়ে নেবে তারাই হবে মহান রবের শত্রু। হাদিসে পাকে এসেছে-


হজরত আনাস ইবনে মালেক রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বলেছেন, আল্লাহ তাআলা বলেন, ‘যে ব্যক্তি আমার কোনো বন্ধুর সঙ্গে শত্রুতা পোষণ করে আমি তার সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করি। আমার নৈকট্য অর্জন করতে বা বন্ধু হতে বান্দা যত কাজ করে তন্মধ্যে সে কাজকে আমি সবচেয়ে বেশি ভালবাসি যে কাজ আমি ফরজ করেছি। (ফরয কাজ পালন করাই আমার নৈকট্য অর্জনের জন্য সর্বপ্রথম ও সবচেয়ে প্রিয় কাজ)। এরপর (ফরজ ইবাদত পালনের পর) বান্দা যখন নিয়মিত নফল ইবাদত পালনের মাধ্যমে আমার নৈকট্য অর্জনের পথে অগ্রসর হতে থাকে তখন আমি তাকে ভালবাসি। আর যখন আমি তাকে ভালবাসি তখন আমি তার শ্রবণযন্ত্রে পরিণত হয়, যা দিয়ে সে শুনতে পায়। আমি তার চোখে পরিণত হই, যা দিয়ে সে দেখতে পায়। আমি তার হাত হয়ে যাই, যা দিয়ে সে ধরে বা আঘাত করে এবং আমি তার পা হয়ে যাই, যা দিয়ে সে হাঁটে। সে যদি আমার কাছে কোনো কিছু চায়, তাহলে আমি অবশ্যই তাকে তা দান করি। সে যদি আমার কাছে আশ্রয় চায় তাহলে আমি অবশ্যই তাকে আশ্রয় প্রদান করি।’ (মুয়াত্তা মালেক)


সুতরাং আল্লাহ তাআলার প্রতি পরিপূর্ণ বিশ্বাস স্থাপন করে তাঁকে সবচেয়ে বেশি ভয় করার মাধ্যমে নিষিদ্ধ বিষয়মূহ থেকে নিজেদেরকে বিরত রাখাই হলো আল্লাহর বন্ধু হওয়ার চূড়ান্ত উপায়।


বিবার্তা/এসবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com