বাঙালি জাগরণের মহাজাদুকর শেখ মুজিব (পর্ব ১৫)
প্রকাশ : ০২ সেপ্টেম্বর ২০২২, ০৯:২৩
বাঙালি জাগরণের মহাজাদুকর শেখ মুজিব (পর্ব ১৫)
এফ এম শাহীন
প্রিন্ট অ-অ+

"Who are you? You are nobody." হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর এই কথার উত্তরে শেখ মুজিবুর রহমান বলেন, 'If I am nobody, then why you have invited me? You have no right to insult me. I will prove that I am somebody. Thank you sir. I will never come to you again.' এই হলেন শেখ মুজিবুর রহমান। হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সামনে দাঁড়িয়ে যখন লোকে কথা বলতে ভয় পেত কিংবা সুবিধা ভোগের জন্য তাঁর কথায় সায় দিতো সেই জায়গায় শেখ মুজিবুর রহমান এমন কথা বলার মতো সাহস রাখতেন। আসলে সত্য ও ন্যায়ের পক্ষে দৃঢ় অবস্থানে থাকতেন বলে তিনি কাউকে বা কোনকিছুকেই ভয় পেতেন না। এবার আসল ঘটনাটা বলা যাক, কী প্রেক্ষিতে এমন বাক্য বিনিময়।


১৯৪৪ এর দিকে শেখ মুজিবুর রহমান ছাত্রলীগ মুসলিম লীগ দুটোতেই সমান তালে কাজ করেন। তাঁর জনপ্রিয়তা এমন পর্যায়ে ছিল যে তাঁর বিপক্ষে কথা বলার কেউ ছিল না। এসময় অল বেঙ্গল মুসলিম লীগের অস্থায়ী সাধারণ সম্পাদক হন তাঁরই বন্ধু নূরুদ্দিন। আনোয়ার সাহেব যক্ষ্মা রোগে আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।


ছাত্রলীগের বাৎসরিক সম্মেলনের আগে আনোয়ার সাহেব ও হাশিম সাহেবের মধ্যে এক ধরনের রেষারেষি তৈরি হয়। মিটমাট করার জন্য দুই দলকে ডাকেন। সোহরাওয়ার্দী সাহেবের সাথে কথা কাটাকাটি হয় শেখ মুজিবুর রহমানের। শহীদ সোহরাওয়ার্দী আনোয়ার সাহেবকে পদ দিতে চাইলে বিরোধিতা করেন শেখ মুজিবুর রহমান আর তখনই রাগে শহীদ সাহেব তাকে এমন কথা বলেন। কিন্তু দলের সিনিয়র বলে শহীদ সাহেবের অন্যায় কথা তিনি মেনে নিবেন তা কখনোই নয়। তিনি বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে এলেন, এটাকে সাংগঠনিক ভাবার কোন কারণ নেই।



সত্য আর ন্যায়ের পক্ষে শেখ মুজিবুর রহমানের বলিষ্ঠ অবস্থান এই ঘটনার দ্বারাই অনুমান করা যায়। দলের স্বার্থে উচিত কথা বলতে পারা শেখ মুজিবকে ডাকার জন্য কিছুক্ষণের মধ্যেই লোক পাঠালেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী। আদর করে তাকে ঘরে নিয়ে শহীদ সাহেব বললেন, 'তুমি বোকা, আমি তো আর কাউকেই একথা বলি নাই, তোমাকে বেশি আদর ও স্নেহ করি বলে তোমাকেই বলেছি।' এ কথা বলেই শেখ মুজিবুর রহমানের মাথায় তিনি হাত বুলিয়ে দিলেন। শহীদ সাহেব শেখ মুজিবুর রহমানকে সবসময়ই খুব স্নেহ করতেন, জীবনের শেষদিন পর্যন্ত শেখ মুজিবুর রহমান সেই স্নেহ-ভালোবাসার প্রমাণ পেয়েছেন বলে তাঁর আত্মজীবনীতে উল্লেখ করেছেন।



হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী তাকে বৈঠকে সবার সামনে অপমান করেছেন, এই ভেবে তিনি শহীদ সাহেবের ডাকে ফেরত নাও যেতে পারতেন। এখনকার দিনের দলীয় কর্মী হলে সেই আচরণই দেখা যেত। কিন্তু এই মানুষটি তো শেখ মুজিবুর রহমান। তার চিন্তার বিস্তৃতি উন্মুক্ত আকাশের মতোই সুবিশাল। সংকীর্ণ মনোভাব নিয়ে তিনি কখনোই দল কিংবা দেশের ক্ষতি করেননি।


হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী সম্পর্কেই তিনি বলেছেন, 'শহীদ সাহেব ছিলেন উদার, নীচতা ছিল না, দল মত দেখতেন না, কোটারি করতে জানতেন না, গ্রুপ করারও চেষ্টা করতেন না। উপযুক্ত হলেই তাকে পছন্দ করতেন এবং বিশ্বাস করতেন। কারণ, তাঁর আত্মবিশ্বাস ছিল অসীম। তাঁর সাধুতা, নীতি, কর্মশক্তি ও দক্ষতা দিয়ে মানুষের মন জয় করতে চাইতেন। এজন্য তাঁকে বারবার অপমানিত ও পরাজয়বরণ করতে হয়েছে। উদারতা দরকার, কিন্তু নীচ অন্তঃকরণের ব্যক্তিদের সাথে উদারতা দেখালে ভবিষ্যতে ভালোর থেকে মন্দই বেশি হয়, দেশের ও জনগণের ক্ষতি হয়।'



শেখ মুজিবুর রহমান প্রসঙ্গক্রমে দারুণ কিছু কথা বলেছেন, 'আমাদের বাঙালির মধ্যে দুটো দিক আছে। একটা হলো, 'আমরা মুসলমান, আর একটা হলো, আমরা বাঙালি।' পরশ্রীকাতরতা এবং বিশ্বাসঘাতকতা আমাদের রক্তের মধ্যে রয়েছে। বোধহয় দুনিয়ার কোন ভাষায়ই এই কথাটা পাওয়া যাবে না, 'পরশ্রীকাতরতা'। পরের শ্রী দেখে যে কাতর হয়, তাকে 'পরশ্রীকাতর' বলে। ঈর্ষা, দ্বেষ সকল ভাষায়ই পাবেন, সকল জাতির মধ্যেই কিছু কিছু আছে, কিন্তু বাঙালিদের মধ্যে আছে পরশ্রীকাতরতা। ভাই, ভাইয়ের উন্নতি দেখলে খুশি হয় না। এই জন্যই বাঙালি জাতির সকল রকম গুণ থাকা সত্ত্বেও জীবনভর অন্যের অত্যাচার সহ্য করতে হয়েছে। সুজলা, সুফলা বাংলাদেশ সম্পদে ভর্তি। এমন উর্বর জমি দুনিয়ায় খুব অল্প দেশেই আছে। তবুও এরা গরিব। কারণ, যুগ যুগ ধরে এরা শোষিত হয়েছে নিজের দোষে। নিজকে এরা চেনে না, আর যতদিন চিনবে না এবং বুঝবে না ততদিন এদের মুক্তি আসবে না।



অনেক সময় দেখা গেছে, একজন অশিক্ষিত লোক লম্বা কাপড়, সুন্দর চেহারা, ভাল দাড়ি, সামান্য আরবি ফার্সি বলতে পারে, বাংলাদেশে এসে পীর হয়ে গেছে। বাঙালি হাজার হাজার টাকা তাকে দিয়েছে একটু দোয়া পাওয়ার লোভে। ভাল করে খবর নিয়ে দেখলে দেখা যাবে এ লোকটা কলকাতার কোন ফলের দোকানের কর্মচারী অথবা ডাকাতি বা খুনের মামলার আসামি। অন্ধ কুসংস্কার ও অলৌকিক বিশ্বাসও বাঙালির দুঃখের আর একটা কারণ।'


http://www.bbarta24.net/literature/196533


বিবার্তা/এসবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com