সাক্ষাতকার
রেমিটেন্সের বড় মাধ্যম হতে পারে ফ্রিল্যান্সিং: মনির হোসেন
প্রকাশ : ০৪ জুন ২০২২, ১০:১৫
রেমিটেন্সের বড় মাধ্যম হতে পারে ফ্রিল্যান্সিং: মনির হোসেন
উজ্জ্বল এ গমেজ
প্রিন্ট অ-অ+

ফ্রিল্যান্সিংয়ে সবচেয়ে সম্ভাবনার দেশ বাংলাদেশ। আইটিতে ফ্রিল্যান্সিং বাংলাদেশের জন্য আশির্বাদ। কেননা বিদেশ থেকে রেমিটেন্স আনার জন্য সবচেয়ে বড় মাধ্যম হতে পারে এই ফ্রিল্যান্সিং। আমাদের দেশেও যে বিশ্বমানের ফ্রিল্যান্সার আছে, বিষয়টি অনেকেরই অজানা। বিশ্ব মানের কাজ করা সত্ত্বেও পৃষ্ঠপোষকতা ও স্বীকৃতির অভাবে অনেকেই এই সেক্টর থেকে হারিয়ে যাচ্ছে। আর যারা কাজ করছেন, তাদের মধ্যেও অনেকেই উৎসাহ হারিয়ে ফেলছেন। এর জন্য প্রয়োজন সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা।


বিবার্তা২৪ডটনেটের সাথে একান্ত আলাপে কথাগুলো বলেছেন ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান মনির হোসেন।


এক যুগ আগে আইটি প্রফেশনাল তৈরির উদ্দেশ্যে ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিটের যাত্রা শুরু হয়েছিল। গত ১২ বছরে ৫০ হাজারেরও বেশি আইটি প্রফেশনাল তৈরি করেছে। সারাদেশে প্রতিষ্ঠানটির চারটি শাখা রয়েছে। এক যুগে আইটি সেক্টরে অসামান্য অবদানের জন্য প্রতিষ্ঠানটি অর্জন করে নানা সম্মাননা ও পুরস্কার।



সম্প্রতি রাজধানীর ধানমন্ডিস্থ ক্রিয়েটিভ আইটির কার্যালয়ে বিবার্তার মুখোমুখি হন প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান মনির হোসেন। আলাপে উঠে আসে বাংলাদেশ ও বিশ্ব আইটি মার্কেটের প্রেক্ষাপট, আইটি ক্যারিয়ারের হালচাল, সম্ভাবনাসহ নানান বিষয়। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন বিবার্তার প্রধান প্রতিবেদক উজ্জ্বল এ গমেজ।


বিবার্তা: ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউটের পথচলার শুরুটা কীভাবে?


মনির হোসেন: সময় ও যুগের চাহিদা মেটাতে ২০০৮ সালের জুন মাসে যাত্রা শুরু করে আইটিতে প্রফেশনাল তৈরির প্রতিষ্ঠান ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউট। প্রতিষ্ঠার শুরু থেকে এখন পর্যন্ত দেশের ক্রমবর্ধমান জনশক্তিকে আইটি সেক্টরে দক্ষ করে গড়ে মানবসম্পদে রূপান্তরের জন্যে অবিরাম কাজ করে যাচ্ছে। প্রতিষ্ঠানটি ISO 9001:2008 সার্টিফায়েড। এই পর্যন্ত ক্রিয়েটিভ আইটির সফল শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫০ হাজারের বেশি। এই প্রতিষ্ঠানেই তৈরি হয়েছে তিনশ’র বেশি ইন্ডাস্ট্রি এক্সপার্ট। যারা নিজেদের আত্মকর্মসংস্থানের পাশাপাশি ডিজিটাল বাংলাদেশ নির্মাণে বিশেষ ভূমিকা রাখছে।



বিবার্তা: ক্রিয়েটিভ আইটি ইনস্টিটিউটের বিশেষত্ব কী?


মনির হোসেন: দেখুন, আমি নিজে উদ্যোক্তা হবার পূর্বে গ্রাফিক ডিজাইনার হয়েছি। আমি জানি এবং বুঝতে পারি শিক্ষার্থীদের কী ধরনের প্রশিক্ষণ দিতে হবে। ইংরেজিতে একটি প্রবাদ রয়েছে, ‘Jack of all Trades Masters in none’- অর্থাৎ আপনি অনেক কিছু পারেন, জানেন, কিন্তু সুনির্দিষ্ট কোন কাজে পারদর্শী নন। কিন্তু ইন্ডাস্ট্রি খুঁজছে এক্সপার্ট কাউকে। লোকাল ও ইন্টারন্যাশনাল মার্কেটপ্লেসও শুধুমাত্র এক্সপার্টদের সাথে কাজ করতে আগ্রহী। ভালো কাজের চাহিদা সব জায়গায় আছে। ফ্রিল্যান্সিং ও আউটসোর্সিং করতে হলেও দক্ষতার কোন বিকল্প নেই।