রাস্তায় পাওয়া ১০ লাখ টাকার স্বর্ণালঙ্কার ফিরিয়ে দিলেন অটোচালক
প্রকাশ : ২৩ জুলাই ২০২১, ২০:৩৬
রাস্তায় পাওয়া ১০ লাখ টাকার স্বর্ণালঙ্কার ফিরিয়ে দিলেন অটোচালক
ভোলা প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

সততার এক অনন্য নজির স্থাপন করলেন অটোরিকশাচালক মহিউদ্দিন। তিনিরাস্তায় কুড়িয়ে পাওয়া একটি ভ্যানিটি ব্যাগে প্রায় ১০ লাখ টাকার স্বর্ণালঙ্কার মালিককে ফিরিয়ে দিয়েছেন।


মহিউদ্দিন ভোলার চরফ্যাশন উপজেলার আছলামপুর ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের খোদেজাবাগ গ্রামের (বর্তমান ওমরপুর ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড) বাসিন্দা।


বৃহস্পতিবার রাতে আছলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান একেএম সিরাজুল ইসলামের ব্যক্তিগত কার্যালয়ে হারিয়ে যাওয়া স্বর্ণালংকারের মালিক আয়েশা বেগমের কাছে তার হস্তান্তর করা হয়।


এ সময় অটোরিকশার চালক মহিউদ্দিনের হাতে সততার পুরস্কার হিসেবে নগদ ৫০ হাজার টাকা তুলে দেন আয়েশা বেগম।


সংশ্লিষ্টরা জানান, ঈদের দিন বুধবার বিকালে আয়েশা বেগম স্বামীর বাড়ি লালমোহন উপজেলার রমাগঞ্জ থেকে বোরাকযোগে (অটোরিকশা) বাবার বাড়ি চরফ্যাশন উপজেলার শশিভূষণ এলাকায় যাচ্ছিলেন। এ সময় আছলামপুর ইউনিয়নের ভুঁইয়ার হাটের দক্ষিণ পাশে পৌঁছলে সাত ভরি স্বর্ণালঙ্কার, মোবাইল ফোন ও দামি মালামালসহ অটোরিকশা থেকে নিজের অজান্তেই সঙ্গে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগটি রাস্তায় পরে যায়।


সেখান দিয়ে যাওয়ার সময় স্থানীয় অটোরিকশা চালক মো. মহিউদ্দিন ব্যাগটি রাস্তায় পরে থাকতে দেখে তুলে নিজের কাছে রেখে দেয়। পরে ব্যাগের মালিক ব্যাগটি অনেক খোঁজাখুঁজি করে না পেয়ে ওই এলাকায় মাইকিং করে ব্যাগের সন্ধান দাতাকে ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেয়ার ঘোষণা দেন।


পরে রাত ১০টার দিকে মহিউদ্দিন ব্যাগের মধ্যে স্বর্ণালঙ্কারসহ দামি মালামাল থাকা সত্ত্বেও ব্যাগটি স্থানীয় চেয়ারম্যান একেএম সিরাজুল ইসলামের কাছে জমা দেন। চেয়ারম্যান বিষয়টি রমাগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে জানালে তিনি লোক পাঠিয়ে ব্যাগের মালিক আয়েশা বেগমকে ব্যাগের সন্ধান নিশ্চিত করেন।


বৃহস্পতিবার রাতে এসে আয়েশা বেগম আছলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যানসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে উপযুক্ত প্রমাণ দিয়ে ব্যাগটি বুঝে নেন। এরপর খুশি হয়ে অটোরিকশার চালক মহিউদ্দিনকে নগদ ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেন আয়েশা।


আছলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এ.কে.এম সিরাজুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘মহিউদ্দিন বুধবার রাতে ব্যাগটি আমার কাছে নিয়ে এলে আমি মাইকিংয়ের বিষয়টি জেনে আয়েশা বেগমের ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে ফোনে জানাই। পরে তার মাধ্যমে আয়েশা বেগম বিষয়টি জানতে পেরে আমার কাছে এসে উপযুক্ত প্রমাণ দেখান।’


চেয়ারম্যান বলেন, ‘ব্যাগটি তার, এটা নিশ্চিত হওয়ার পরে স্থানীয় লোকজনের উপস্থিতিতে আয়েশা বেগমের কাছে ব্যাগে থাকা মালামালসহ ব্যাগটি হস্তান্তর করি। মহিউদ্দিনের সততায় খুশি হয়ে সবার সামনে মহিউদ্দিনকে নগদ ৫০ হাজার টাকা পুরস্কার দেন আয়েশা।’


স্বর্ণালঙ্কারসহ নিজের ব্যাগ বুঝে পেয়ে আয়েশা বেগম বলেন, ‘মহিউদ্দিন ও চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলামের মতো ভালো লোকের কারণে কোনো প্রকার ঝামেলা ছাড়াই আমি আমার ব্যাগটি বুঝে পেয়েছি। এজন্য আমি অনেক খুশি। মহিউদ্দিনের মতো লোকেরা হাজার বছর বেঁচে থাকুক, আল্লাহ তায়ালার কাছে এই দোয়া করি।’


সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘পৃথিবীতে মহিউদ্দিনের মতো সৎ লোক থাকার কারণে পৃথিবী এখনও টিকে আছে। ব্যাগের ভিতরে স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় ১০ লাখ টাকার মালামাল থাকার পরও মহিউদ্দিন ব্যাগটি ফিরিয়ে দিয়েছেন, এটা সত্যিই প্রশংসনীয় কাজ। মহিউদ্দিনের মতো সৎ লোক আমার এলাকার বাসিন্দা, এটি নিয়ে আমি গর্বিত।’


বিবার্তা/আরকে

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com