বিরোধী দলগুলোকে নিয়ে একদফা আন্দোলনে যেতে চায় বিএনপি
প্রকাশ : ২৪ মে ২০২২, ২২:৫৫
বিরোধী দলগুলোকে নিয়ে একদফা আন্দোলনে যেতে চায় বিএনপি
কিরণ শেখ
প্রিন্ট অ-অ+

বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলতে সরকার বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোকে এক সুতোয় গাঁথতে সংলাপ প্রক্রিয়া শুরু করেছে বিএনপি। এই সংলাপের মাধ্যমে সবার মতামত নিয়ে একটা একক দাবিতে রাজপথে যৌথভাবে আন্দোলনের সূচনা করতে চাচ্ছে দলটি। তবে সেই একক একটি দাবি কি হবে তা এখনও নির্ধারণ করা হয়নি। দলটি বলছে, আনুষ্ঠানিকভাবে তারা প্রথমে দেশের সকল রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করে তাদের মতামত এবং সিদ্ধান্তের কথা জানাবেন। এরপর পুনরায় রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক করবেন। সেই বৈঠকের একক একটা দাবি চূড়ান্ত করা হবে। ওই দাবিতেই জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির মধ্যদিয়ে রাজপথে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলবেন তারা।


ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের রূপরেখা প্রণয়ন করতে ২৪ মে, মঙ্গলবার নাগরিক ঐক্যের সাথে প্রথম সংলাপ করেছে বিএনপি। এই সংলাপে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার, নির্বাচনকালীন নিরপেক্ষ সরকার এবং নতুন নির্বাচন কমিশন গঠনের বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। আলোচ্য এই তিনটি বিষয়েই সংলাপে অংশগ্রহণকারী দুটি রাজনৈতিক দলই একমত পোষণ করেছেন।


তবে বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, আন্দোলনের ভিত্তি কী হবে তা নিয়ে বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। প্রাথমিক পর্যায়ে সব রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে বৈঠক শেষে আবারও নাগরিক ঐক্যের সঙ্গে বিএনপি বসবে। ওই সময় অপরাপর বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।


নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক বৈঠকে উপস্থিত এক নেতা বিবার্তাকে বলেন, বৈঠকে বৃহত্তর আন্দোলন গড়ে তুলতে বিএনপির পক্ষে থেকে বেশ কিছু মতামত চাওয়া হয়েছে। কিন্তু সেগুলো এখনো ঠিক হয়নি। এসব মতামত নাগরিক ঐক্য ঠিক করে পরবর্তী সংলাপে বিএনপিকে জানাবে। আর একইভাবে বিএনপি তাদের মতামতগুলো সুনির্দিষ্ট করে নাগরিক ঐক্যেকে জানাবে।


বৈঠকের বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দেশের মানুষ আশা করছে, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো একটা ঐক্যের মধ্যদিয়ে সফল ও কার্যকরী আন্দোলন গড়ে তুলবে। সেই আন্দোলনের মধ্যদিয়ে পরিবর্তন আসবে। এই পরিবর্তনের মধ্যদিয়ে জনগণের সরকার ও সংসদ গঠন হবে। সেই লক্ষ্যে আমরা বৈঠকে কথা বলেছি।



নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না বলেন, আন্দোলনকে যৌক্তিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য, বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর সমস্যা এবং রাজনৈতিক সঙ্কট নিয়ে বৈঠকে কথা হয়েছে। আর বিএনপি বলেছে, এটা শুরু। এটাকে পরবর্তী ধাপে নিয়ে যাওয়ার জন্য আবারও তারা সবার সাথে কথা বলবে।


এদিকে আলাদাভাবেই বিএনপি নেতৃত্বে ২০ দলীয় জোটে আছে। এই জোট সৃষ্টির শুরু থেকেই ২০ দলের শরীক দলগুলো বিএনপির সাথে থেকেই বিভিন্ন রাজনৈতিক কর্মসূচি পালন করছে। কিন্তু নতুন এই ঐক্যে ২০ দলীয় জোটকে রাখতে চাচ্ছে দলটি। তাই রাজনৈতিক মহলে গুঞ্জন উঠেছে, বিএনপি ২০ দলীয় জোট ভেঙে দিচ্ছে। তবে ২০ দলীয় জোটকে ভাঙার বিষয়ে এখনো কোন সিদ্ধান্ত নেয়নি দলটি। তারা বলছে, জাতীয় ঐক্য গড়ার প্রক্রিয়ার মধ্যদিয়ে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।


এ বিষয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, জাতীয় ঐক্য নিয়ে আলোচনা সবার সাথেই হবে। আর ২০ দলীয় জোট তো এখন পর্যন্ত আমরা বিলুপ্ত করি নাই। এই জোট কি হবে, সেটা জাতীয় ঐক্যের আলোচনার মধ্যদিয়েই চূড়ান্ত করা হবে।


জানতে চাইলে ২০ দলীয় জোটের অন্যতম শরীক দল বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বিবার্তাকে বলেন, বিএনপির সাথে আমাদের কয়েকটি বিষয়ে ঐক্যমত রয়েছে। গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার এবং ভোটাধিকার ফিরিয়ে আনার দাবিতে আমরা একসাথে আন্দোলন করছি। এখন তারা যদি আমাদের জোটে না রাখে এবং তারা যদি মনে করে আন্দোলনে আমাদেরকে প্রয়োজন নেই তাহলে আমরা আমাদের মতো করে পথ চলবো।


জাতীয় ঐক্যের সংলাপের বিষয়ে কি বিএনপি আপনাদের সঙ্গে কথা বলেছে- জানতে চাইলে মোস্তাফিজুর রহমান ইরান বলেন, এখনো কথা বলেনি। আর ফোনও দেননি।


২০১৮ সালের ১৩ অক্টোবর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামে সরকারবিরোধী নতুন রাজনৈতিক জোট গঠন করে বিএনপি। এই জোট করেও সফলতা পায়নি দলটি। আর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর থেকেই মূলত ঐক্যফ্রন্টের কোন কার্যক্রম নেই। এখন ফ্রন্ট শুধুই কাগজে আছে, কাজে নেই।


তবে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টির লক্ষ্যে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনৈতিক দলগুলোর সাথে সংলাপের সময় জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃবৃন্দের সঙ্গেও বসবে বিএনপি। আর এই আলোচনার মধ্যদিয়েই ঐক্যফ্রন্টের ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করবে দলটি।


জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ঐক্যফ্রন্টের কি হবে সেটা জাতীয় ঐক্যের আলোচনার মধ্যদিয়ে চূড়ান্ত করা হবে।


জানতে চাইলে গণফোরামের একাংশের সাধারণ সম্পাদক ও ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা অ্যাডভোকেট সুব্রত চৌধুরী বিবার্তাকে বলেন, বিএনপি বলেছে তারা আলাদা-আলাদাভাবে সবার সঙ্গে বসবে। সেই অনুযায়ী তারা পরিকল্পনা করছেন। সুতরাং তারা কিভাবে এগোচ্ছে, সেটা আগে দেখতে হবে। আর ঐক্যফ্রন্ট এখনো আছে। কারণ আমরা তো জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে এখনো বের হয়ে যাইনি।



জাতীয় ঐক্যফ্রন্টকে ভেঙে দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে সুব্রত চৌধুরী বলেন, ঐক্যফ্রন্টকে ভাঙা হবে না। হয়তো এর পরিধি বাড়িয়ে কিছু একটা করা হবে।


২০২০ সালে ২০ জুলাই বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক বৈঠকে জামায়াতকে ছাড়তে চেয়েছিল দলটি। ওই সময় জামায়াতের সাথে সম্পর্ক রেখে লাভ ও ক্ষতির হিসেবও করেছিল বিএনপি। তবে এখন পর্য‌ন্ত জামায়াত ছাড়েনি তারা। আর বিএনপি জামায়াতকে ছাড়বে না বলেও মনে করছেন দলটির তৃণমূলের নেতারা। তারা বলছেন, জামায়াতকে ছাড়বে না বলেই জাতীয় ঐক্য নিয়েও তাদের সঙ্গে আলোচনা করবে বিএনপি।


জাতীয় ঐক্য নিয়ে জামায়াতের সঙ্গে আলোচনার বিষয়ে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, জামায়াতের সঙ্গে অবশ্যই আলোচনা করা হবে। তাদের (জামায়াত) সঙ্গে কথা না বলে কেমন করে হবে? সকলের সঙ্গেই তো কথা বলা হবে।


বিবার্তা/কিরণ/জেএইচ


সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com