মে দিবস উপলক্ষে শ্রমজীবী মানুষের প্রতি যুবলীগের শ্রদ্ধা
প্রকাশ : ০১ মে ২০২১, ২১:৪০
মে দিবস উপলক্ষে শ্রমজীবী মানুষের প্রতি যুবলীগের শ্রদ্ধা
বিবার্তা ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

মহান মে দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশসহ বিশ্বের সকল শ্রমজীবী মানুষকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ।


শনিবার (১ মে) তিনি বলেন, আজ মহান মে দিবস। সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও যথাযোগ্য মর্যাদায় দিবসটি পালিত হচ্ছে। আজকের এই দিন শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের দিন, প্রতিষ্ঠার দিন। বিশ্বব্যাপী শ্রমজীবী মানুষের আন্দোলন-সংগ্রামের অনুপ্রেরণার উৎস এই দিন। মালিক-শ্রমিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠা আর শ্রমিকদের শোষণ-বঞ্চনার অবসান ঘটানোর দিন এটি।


শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তার সারা জীবন এদেশের খেটে-খাওয়া, শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের জন্য সংগ্রাম করে গেছেন। বঙ্গবন্ধুই শ্রমজীবী মানুষের সম্মানে বাংলাদেশে মে দিবসকে সরকারি ছুটির দিন ঘোষণা করেন। সারা বিশ্বের শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছিলেন বলিষ্ঠ কন্ঠস্বর। ১৯৭৩ সালের ৯ সেপ্টেম্বর আলজেরিয়ার রাজধানী আলজিয়ার্সে অনুষ্ঠিত জোট নিরপেক্ষ সম্মেলনে সারা বিশ্বের নেতৃবৃন্দের সামনে মাথা উচু করে দীপ্ত কণ্ঠে উচ্চারণ করেছিলেন- বিশ্ব আজ দু’ভাগে বিভক্ত। এক দিকে শোষক, অন্য দিকে শোষিত। আমি শোষিতের পক্ষে।


আমরা বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে বিশ্বাসী। তার আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে যুবলীগের প্রতিটি নেতা-কর্মী পথ চলে। তাই শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের অধিকার আদায়ে যুবলীগ সব সময় রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনার শ্রমিকবান্ধব কর্মসূচি বাস্তবায়নে সোচ্চার ছিল, আছে, থাকবে। সভ্যতা বিনির্মাণ হয় যাদের হাত ধরে, যুবলীগ তাদের শ্রদ্ধা করে, সম্মান করে। আজকের এই দিনে সভ্যতা বিনির্মাণের কারিগর যারা, আমাদের শ্রমজীবী মানুষগুলোর প্রতি শ্রদ্ধা।


যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন- মহান মে দিবস আজ। মাঠে-ঘাটে, কলকারখানায় খেটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ে রক্তঝরা সংগ্রামের গৌরবময় ইতিহাস সৃষ্টির দিন। দীর্ঘ বঞ্চনা আর শোষণ থেকে মুক্তি পেতে ১৮৮৬ সালের এদিনে বুকের রক্ত ঝরিয়েছিলেন শ্রমিকরা।


শ্রমজীবী ও মেহনতি মানুষই হচ্ছে দেশের উন্নয়নের প্রধান চালিকাশক্তি। তাদের অক্লান্ত পরিশ্রমের মধ্যেই নিহিত রয়েছে দেশের সম্ভাবনাময় ভবিষ্যৎ বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়ন তথা ‘রূপকল্প-২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নে শ্রমজীবী মানুষের ভূমিকা তাই অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।


জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনা বাংলা বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধুকন্যা সফল রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা সকল শোষণ, বঞ্চনা ও বৈষম্যের অবসান ঘটিয়ে দেশের মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর লক্ষ্যে দিনরাত নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। আমরা যুবলীগ শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের কাঁধে কাঁধ রেখে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণে প্রিয় নেত্রী শেখ হাসিনা’র সারথি হবো। তাই আজকের এই দিনে সকল শ্রমজীবী মেহনতি মানুষের প্রতি যুবলীগের পক্ষ থেকে জানাই শ্রদ্ধা ও ভালবাসা।


প্রসঙ্গত, ১৮৮৬ সালের এই দিনে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের শিকাগো শহরের হে মার্কেটের শ্রমিকরা আট ঘণ্টা কাজের দাবিতে জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। ওই দিন তাদের আত্মদানের মধ্যদিয়ে শ্রমিক শ্রেণীর অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।শ্রমজীবী মানুষের অধিকার আদায়ের জন্য শ্রমিকদের আত্মত্যাগের এই দিনকে তখন থেকেই সারা বিশ্বে ‘মে দিবস’ হিসেবে পালন করা হয়।


বিবার্তা/আবদাল

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com