সুন্দরের আলয় মেঘালয়ে...
প্রকাশ : ২৬ নভেম্বর ২০২২, ০৯:১৮
সুন্দরের আলয় মেঘালয়ে...
পর্যটন ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

মেঘালয় অর্থ "মেঘের আবাসস্থল" সংস্কৃত মেঘা মানে "মেঘ" + আ-লয়া মানে "আবাস"। এটি উত্তর-পূর্ব ভারতের একটি রাজ্য। ১৯৭২ সালের ২১ জানুয়ারি আসাম রাজ্য থেকে দুটি জেলা নিয়ে মেঘালয় গঠিত হয়েছিল: ইউনাইটেড খাসি হিলস এবং জৈন্তিয়া হিলস এবং গারো পাহাড়।


মেঘালয় পূর্বে আসামের অংশ ছিল, কিন্তু ১৯৭২ সালের ২১ জানুয়ারি খাসি, গারো এবং জৈন্তিয়া হিলস জেলাগুলি মেঘালয়ের নতুন রাজ্য হয়ে ওঠে।


এই রাজ্যের উত্তর ও পূর্ব দিকে আসাম রাজ্য এবং দক্ষিণ ও পশ্চিম দিকে বাংলাদেশ রাষ্ট্র অবস্থিত। মেঘালয়ের রাজধানী শিলং। ব্রিটিশ ভারতের সময় একে "প্রাচ্যের স্কটল্যান্ড" বলা হতো।


রাজ্যটি ভারতের সবচেয়ে আর্দ্র অঞ্চল, দক্ষিণ খাসি পাহাড়ের সবচেয়ে আর্দ্র অঞ্চলে বছরে গড়ে ১২,০০০ মিমি (৪৭০ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। রাজ্যের প্রায় ৭০ শতাংশ বনভূমি। মেঘালয় উপ-ক্রান্তীয় বন ইকোরিজিয়ন রাজ্যটিকে ঘিরে রেখেছে; এর পর্বত অরণ্যগুলি উত্তর ও দক্ষিণে নিম্নভূমি ক্রান্তীয় বন থেকে পৃথক। স্তন্যপায়ী প্রাণী, পাখি এবং উদ্ভিদের জীববৈচিত্র্যের জন্য বনগুলি উল্লেখযোগ্য।


মেঘালয় উত্তর-পূর্ব ভারতের সেভেন সিস্টার রাজ্যগুলির অন্যতম । এর দক্ষিণেবাংলাদেশের ময়মনসিংহ আর সিলেট, পশ্চিমে রংপুর, উত্তরে আর পূর্বে আসাম। প্রায় ২২,৪৩০ বর্গকিলোমিটার এলাকা জুড়ে এর বিস্তৃতি।


উপত্যকা আর মাল্ভুমির মিশেলে পাহাড়ি,মেঘালয় ভূতাত্ত্বিকভাবে সমৃদ্ধ। এখানে মূলত আছে আর্কিয়ান শিলা যেখানে কয়লা, লাইমস্টোন বা চুনাপাথর, ইউরেনিয়াম আর সেলেমেনাইটের মত মূল্যবান খনিজ মজুদ।


মেঘালয়ে অনেক নদী রয়েছে । এদের অধিকাংশই বৃষ্টিনির্ভর ও মৌসুমি হয় ।গারো অঞ্চলের প্রধান নদীগুলোর মধ্যে রয়েছে গানোল, ডেরিং, সান্দা, বান্দ্রা, বুগাই, ডারেং, ভুপাই, নিতাই। মুলখন্ড আর পূর্বাংশে আছে খ্রি, উমতি, ডিগারি, উমিয়াম বা বড়পানি, কিনশি(জাদুকাটা),উমগি, উমগট, উমখেন, মাওপা, মিন্দু, মিনতেং, উমিয়াম খোয়ান।


কীভাবে যাবেন এবং খরচ কেমন?


প্রথমে ঢাকা থেকে যেকোনো এসি/নন-এসি বাসে চলে যান সিলেট। বাসগুলো রাত ১০টা থেকে ১২টার মধ্যে ছেড়ে যায় ও সকাল ৫টা থেকে ৬টায় পৌঁছে।


সিলেট বাসস্ট্যান্ড থেকে জাফলং এর বাস পাওয়া যায়। কদমতলি থেকে জাফলংগামী বাসে উঠে পড়ুন। সময় লাগবে দুই ঘণ্টার মতো।


এখান থেকে কেউ শিলং যেতে চাইলে স্থানীয়ভাবে শেয়ারড ট্যাক্সি আছে। রিজার্ভ ট্যাক্সি নিয়েও ঘুরে বেড়ানো যাবে। লোকেশন অনুসারে সারাদিনের জন্য ভাড়া ৩,০০০-৩,৫০০ রুপি।


ট্যাক্সির ঝামেলায় না গেলে মেঘালয় ট্যুরিজম বোর্ডের টুরিস্ট বাসে করেও ভ্রমণ করতে পারেন। এক্ষেত্রে জনপ্রতি ৩০০ থেকে ৫০০ রুপি লাগতে পারে।


কোথায় থাকবেন?


মেঘালয়ে ঘুরতে গেলে থাকলে পারে শিলংয়ে। এখানে ১৫০০-৩০০০ টাকার মধ্যে ভালো হোটেল পাবেন।


কী খাবেন, কোথায় খাবেন ?


সব জায়গায় মুরগী, ডিম, ভাত, নুডলস, পরোটা পাবেন। চলতি পথে লুচি, আলুদম চা, পানি, রুটি, বিস্কুট, ডিম ইত্যাদি পাবেন।


পরামর্শ


ঘুরতে গেলে প্রয়োজনীয় ওষুধপত্র সঙ্গে রাখুন। যথাসম্ভব নিজেরাই হোটেল ঠিক করুন। অনেক জায়গাতেই এন্ট্রি ফি ও ক্যামেরা ব্যবহারের জন্য ফি লাগতে পারে যে বিষয়ে সচেতন থাকুন।


কম খরচে ঘুরে আসতে পারেন ভারতের মেঘালয়ের শিলং, চেরাপুঞ্জি, ডাউকি থেকে। মেঘালয় বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী রাজ্য হওয়ায় যাতায়াত ভাড়া, থাকা-খাওয়ার খরচ বেশ কম।


চলুন তাহলে জেনে নিই মেঘলায়ে যেতে খরচ কেমন, কিভাবে যেতে হবে, থাকবেন কোথায়, খাবেন কি, পাসপোর্ট, ভিসা, যাতায়াত ভাড়া, বর্ডার ইমিগ্রেশন ও দর্শনীয় স্থান সম্পর্কে ,-


পাসপোর্ট ও ভিসা


বিদেশ ভ্রমণের জন্য বৈধ পাসপোর্ট ও সংশ্লিষ্ট দেশের ভিসা থাকা আবশ্যক। তাই আপনার যদি পাসপোর্ট না থাকে তাহলে পাসপোর্ট করে নিন। ভারতীয় ভিসার আবেদন করার সময় ভিসা এপ্লিকেশনের পোর্ট অব এন্ট্রি-এক্সিট অবশ্যই ‘BY ROAD DAWKI’ সিলেক্ট করুন।


ভ্রমণ কর/ট্রাভেল ট্যাক্স


স্থলপথে ভ্রমণ করের পরিমাণ ৫০০ টাকা। যা আগেই নির্ধারিত ব্যাংক বা বর্ডারে সোনালী ব্যাংকের বুথে জমা দিতে পারবেন।


ইমিগ্রেশনে যা করতে হবে


ডাউকি বর্ডারের বাংলাদেশ ইমিগ্রেশনে অন্যান্য বর্ডারের তুলনায় সহজ ও ভিড় কম থাকে। প্রথমেই ইমিগ্রেশনের কাজ সম্পন্ন করতে লাইন ধরে পুলিশের কাছ থেকে একটা বহিরাগমন কার্ড (Departure Card) সংগ্রহ করে পূরণ করে পাসপোর্টসহ জমা দিন।


ইমিগ্রেশন শেষ করে কাস্টমস অফিসে গিয়ে এন্ট্রি করতে হবে। এখানে ভ্রমণ করের রশিদ জমা দিতে হবে। কাস্টমসের কাজ শেষ হলে বিজিবি নাম এন্ট্রি করবে তাদের নির্ধারিত খাতায়।


বাংলাদেশ অংশের কাজ শেষ হয়ে গেলে ভারতের অংশে ঢুকতেই বিএসএফ পাসপোর্ট চেক করে ভিতরে ঢুকতে দেবে। পরে ভারতীয় ইমিগ্রেশন ও কাস্টমস অফিসে পাসপোর্ট জমা দিতে হবে। সেখানে Arrival Card পূরণ করে ইমিগ্রেশন শেষ করতে হবে।


বিবার্তা/এসবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com