বন্ধুত্ব অটুট রাখার কী উপায়?
প্রকাশ : ০৭ আগস্ট ২০২২, ১৩:১০
বন্ধুত্ব অটুট রাখার কী উপায়?
লাইফস্টাইল ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

বন্ধু দিবসের প্রচলন শুরু বিভিন্ন কার্ড তৈরির প্রতিষ্ঠানের হাত ধরে। কার্ড বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান হলমার্কের প্রতিষ্ঠাতা জয়েস হল। ১৯১৯ সালে তিনিই আগস্টের প্রথম রোববার বন্ধু দিবস পালনের প্রস্তাব করেছিলেন। এই দিনে বন্ধু দিবস আনুষ্ঠানিকভাবে পালন শুরু হয় যুক্তরাষ্ট্রে, ১৯৩৫ সালে। তারপর ধীরে ধীরে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মানুষ দিবসটি সাদরে গ্রহণ করে। তবে এখনো অনেক দেশ তাদের নিজেদের পছন্দসই দিনে বন্ধু দিবস পালন করে। আমাদের দেশেও গত কয়েক বছরে বন্ধু দিবস জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে। জাতিসংঘ ২০১১ সালে সাধারণ অধিবেশনে ৩০ জুলাই দিনটি আন্তর্জাতিক বন্ধু দিবস ঘোষণা করে।


যুক্তরাষ্ট্রের মতো বাংলাদেশ, ভারত, মালয়েশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে আগস্টের প্রথম রোববার বন্ধু দিবস ধরে নেওয়া হয়।


আমরা অনেকেই বন্ধুত্বের অর্থ, মর্যাদা, গুরুত্ব না বুঝে সম্পর্কে জড়াই। এভাবে কিছু দিন যাবার পর বন্ধুত্বে চির ধরতে থাকে, যা একসময় ফাটলে রূপ নেয়। এ রকম পরিস্থিতিতে অনেকে কষ্টও পেয়ে থাকেন। তাই বন্ধু নির্বাচনে ভুল করলে জীবনে ছন্দ পতন ঘটাই আবশ্যক হয়ে দাঁড়ায়। এবার জেনে নেওয়া যাক কী কীকরলে বন্ধুত্ব ধরে রাখা সম্ভব...


দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তন


দৃষ্টিভঙ্গি ও মনোভাবসম্পর্ক ভাঙতেও পারে আবার গড়তেও পারে। তাই কখন একপেশে মনোভাব পোষণ করা উচিত নয়। অবস্থানগত দিক সম্পর্কে দু’জনেরই ধারণা থাকা ভালো। এতে দূরত্ব সৃষ্টি হওয়া থেকে বাঁচা যায়। অন্যের জরুরিকে মনে প্রাধান্য দিন। তাতে দু’জনই মনের দিক থেকে ভাল থাকবেন।


পারস্পরিক সমঝোতা


চাকরি বা বিয়ের আগে যে বন্ধু জুটিকে সর্বত্রই একসঙ্গে দেখা যেত, সেই ছবিটা বদলে যাওয়াই স্বাভাবিক। পরিস্থিতি এমনটার জন্য দায়ী হবে পারে, তবে পারস্পরিক সমঝোতা থাকলে এগুলো মানিয়ে নেওয়া কোন অসম্ভব নয়। পারস্পরিক সমঝোতা থাকলে কঠিনতম পরিস্থিতি সামলে নেওয়া যায়।


সম্পর্ককেসময় দিন


বন্ধুত্ব বাঁচিয়ে রাখতে হলে সময় দিন। সেটা দেখাসাক্ষাৎ হতে পারে, ফোন বা মেসেজ দিয়ে হতে পারে, উপহার দিয়ে হতে পারে। মোটকথা আপনার মন যে তার কথাই বলছে, এর একটি জানান দেওয়া।


দূরত্বও জরুরি


কথায় বলে, দূরত্বে আসলে সম্পর্কের টান বাড়ে। রোজ দেখা, ঘন ঘন ফোনে কথা কিংবা একে অপরের সমস্ত খুঁটিনাটি সম্পর্কে অবগত থাকলেও একটা সময়ের পরে বন্ধুত্বও সজীবতা হারায়। তখন দেখা হলে নতুন কিছু ভাগ করে নেওয়ার মতো অবশিষ্ট থাকে না। তাই কোন কারণে যদি দুই বন্ধুর মধ্যে সাময়িক দূরত্ব তৈরি হয়, সেটা কিন্তু আখেরেই ভাল। তখন দেখা করার টান বাড়বে।


বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সম্পর্কের রং যেমন বদলায়, তেমনই বাড়তে থাকে নিজেদের পরিসরও। আত্মীয়ের সংখ্যা যেমন বাড়ে তেমনি বাড়ে বন্ধুর সংখ্যাও। কিন্তু এর মাঝেও প্রিয়জনের জায়গা ঠিকই অটুট থাকে। তাই শঙ্কিত না হয়ে বরং ব্যক্তিগত সময়টুকু ভাল কাটানোর চেষ্টা করুন। তাতে বন্ধুত্ব দৃঢ় হবে আপনা থেকেই।


বিবার্তা/এসবি

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

পদ্মা লাইফ টাওয়ার (লেভেল -১১)

১১৫, কাজী নজরুল ইসলাম এভিনিউ,

বাংলামোটর, ঢাকা- ১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com