হামাসের রকেট হামলা, ইসরায়েলে জরুরি অবস্থা ঘোষণা
প্রকাশ : ১২ মে ২০২১, ১৪:১৫
হামাসের রকেট হামলা, ইসরায়েলে জরুরি অবস্থা ঘোষণা
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
প্রিন্ট অ-অ+

হামাসের সঙ্গে ইসরায়েলের নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষ কার্যত যুদ্ধের চেহারা নিয়েছে। একের পর এক রকেট হামলা চালিয়েছে হামাস। হামাস দাবি করেছে, ইসরায়েলের রাজধানী লক্ষ্য করে অন্তত ১১০টি রকেট ছোড়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, পার্শ্ববর্তী শহরগুলিতেও হামলা চালাচ্ছে হামাস। এ অবস্থায় ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু দেশে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন।


মঙ্গলবার রাতে রাজধানী শহরে সাইরেন বাজিয়ে সকলকে ঘুম থেকে তোলা হয়। সাধারণ নাগরিকদের নিরাপদ বাঙ্কারে পৌঁছে দেয়া হয়। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সেনা নামানো হয়েছে। বিশেষত যে সমস্ত অঞ্চলে ফিলিস্তিনি এবং আরবরা আছেন, সে সমস্ত অঞ্চলে হাঙ্গামা বন্ধ করার জন্য বিপুল পরিমাণ নিরাপত্তা বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।


রবিবার জেরুসালেম ঘিরে ব্যাপক সংঘর্ষ হয়েছিল ফিলিস্তিনের বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে ইসরায়েল পুলিশের। মৃত্যু হয়েছিল অন্তত সাত জনের। সোমবার সেই সংঘর্ষ আরো তীব্র হয়েছে।


রবিবার রাতে প্রথম রকেট হামলা চালিয়েছিল হামাস। জবাবে একের পর এক বিমান হামলা চালিয়েছিল ইসরায়েল। মঙ্গলবার তার প্রাবল্য আরো বাড়ে।


ইসরায়েল দাবি করেছে, প্রথমে ড্রোন দিয়ে ওয়ার্নিং ফায়ার করা হচ্ছে। কিন্তু বাস্তবে গাজায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সোমবার একটি ১৩ তলা বাড়ি সম্পূর্ণ ধুলোয় মিশে গিয়েছিল। মঙ্গলবার একটি নয়তলা বাড়িতে আঘাত করা হয়। ওই বাড়িতে ওষুধ কোম্পানির অফিস, চিকিৎসাকেন্দ্র ছিল। সব ভেঙে গুড়িয়ে গেছে। অ্যাসোসিয়েট প্রেস জানিয়েছে, ওই বাড়ি থেকে মাত্র দুশ মিটার দূরে তাদের অফিস। সেখানেও ধুলো ঢুকে যায়।


হামাসের দুই গুরুত্বপূর্ণ নেতার মৃত্যু হয়েছে বিমান হামলায়। ফিলিস্তিনও জানিয়েছে, দুই হামাস নেতার মৃত্যু হয়েছে। হামাসের দাবি গাজা স্ট্রিপে অন্তত ৩৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। তার মধ্যে শিশুও আছে। ইসরায়েল জানিয়েছে, পাঁচদিনে অন্তত পাঁচ জন ইসরায়েলির মৃত্যু হয়েছে।যদিও ইসরায়েলের দাবি, কেবলমাত্র হামাসের ক্যাম্প দেখেই আক্রমণ চালানো হচ্ছে।


ইসরায়েল জানিয়েছে, আয়রন ডোম ডিফেন্স সিস্টেমের সাহায্যে একের পর এক রকেট হামলা প্রতিরোধ করা হচ্ছে। তা সত্ত্বেও আক্রমণ পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। মঙ্গলবার রকেটের আঘাতে দুইজনের মৃত্যু হয়েছে। গাড়িতে রকেটের সরাসরি আঘাত লাগায় এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। ৪০ বছরের এক ব্যক্তিকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল, পরে তারও মৃত্যু হয়।


মানবাধিকার সংগঠনগুলিও জানিয়েছে, গাজায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বহু সাধারণ মানুষের মৃত্যু হয়েছে। সোমবারের পর মঙ্গলবারও বিশ্বের নেতারা এই সংঘর্ষ দ্রুত বন্ধ করার আবেদন জানিয়েছেন।


এসজি/জিএইচ (রয়টার্স, এপি, এএফপি)


বিবার্তা/এনকে

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2021 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com