কমতে শুরু করেছে যমুনার পানি
প্রকাশ : ২০ জুলাই ২০১৯, ১৬:২৬
কমতে শুরু করেছে যমুনার পানি
টাঙ্গাইল প্রতিনিধি
প্রিন্ট অ-অ+

টাঙ্গাইলে যমুনা নদীতে গত কয়েকদিনে অস্বাভাবিক হারে পানি বৃদ্ধি পেলেও শুক্রবার (১৯ জুলাই) বিকেলের পর থেকে তা কমতে শুরু করেছে।


ভুঞাপুর যমুনা নদীর পানি দুই সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ৯৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এর আগের দিন যমুনা নদীর পানি বিপদসীমার ৯৯ সেন্টিমিটার ছিল।


পানি বৃদ্ধির ফলে তারাকান্দি-ভূঞাপুর সড়ক ভেঙে সব ধরণের যানবাহন চলাচল বন্ধ ও যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। বন্যানিয়ন্ত্রন বাঁধ হিসেবে ব্যবহৃত এই সড়কটি ৬০ মিটার অংশ ধসে গেছে। বৃহস্পতিবার রাত ৮টার সময় ওই সড়কের ভূঞাপুর উপজেলার টেপিবাড়ি নামক স্থানে এ ভাঙনের ঘটনা ঘটে। শুক্রবার সকাল থেকেই রাস্তাটি মেরামত কাজ করে যাচ্ছে সেনাবাহিনীর একটি দল।


জেলা প্রশাসনের দেয়া তথ্যানুযায়ী গতকাল পর্যন্ত বন্যায় জেলার ৬টি উপজেলায় নদী তীরবর্তী ৩৪টি ইউনিয়নের প্রায় ২১০টি গ্রাম প্লাবিত হয়েছে। এর মধ্যে ২টি ইউনিয়ন ও ২টি পৌরসভা সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়েছে। আর এতে প্রায় তিন লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। উপজেলাগুলো হলো, টাঙ্গাইল সদর, ভূঞাপুর, গোপালপুর, কালিহাতী, নাগরপুর ও মির্জাপুর।


চলতি বন্যায় এ পর্যন্ত এক হাজার ৩৩০টি বাড়ি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে। এছাড়াও ২১ হাজার নয় ৯৭৪টি বাড়ি আংশিক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তিন হাজার ৩৬ হেক্টর জমির ফসল পানিতে ডুবে গেছে। চারটি ব্রিজ ও কালভার্ট ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।এছাড়াও জেলার ৬টি উপজেলার ১০২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এদের মধ্যে ৮৬টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বন্যার পানি ঢুকেছে। আর ১৬টিতে আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।বন্যার্তদের সাহায্যার্থে জেলায় মোট ১৬টি আশ্রয় কেন্দ্র খোলা হয়েছে।এর মধ্যে ১৪টি ভূঞাপুরে এবং ২টি গোপালপুরে। এই সব আশ্রয় কেন্দ্রে দুই হাজার ৪০০ লোক আশ্রয় নিয়েছেন।


তবে বন্যা দুর্গত এলাকায় প্রশাসনের পক্ষ থেকে ১৬৫ টন চাউল ও নগদ তিন লাখ টাকা ত্রাণ সহায়তা দেয়ার কথা বলা হলেও অনেক এলাকাতেই এখনো ত্রাণ সহায়তা পৌঁছায়নি বলে দাবি করছে বন্যা দুর্গতরা।


বিষয়টি নিশ্চিত করে টাঙ্গাইলের পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম জানান, গত কয়েকদিনের অস্বাভাবিক পানি বৃদ্ধি পেলেও শুক্রবার বিকেলের পর থেকে যমুনা নদীর পানি কিছুটা হ্রাস পেয়েছে।শনিবার দুই সেন্টিমিটার কমে যমুনার বিপদসীমার ৯৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ধারনা করা হচ্ছে শনিবার (২০ জুলাই) পানি আরো হ্রাস পাবে।


বিবার্তা/মোল্লা তোফাজ্জল/জাই

সর্বশেষ খবর
সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক : বাণী ইয়াসমিন হাসি

ময়মনসিংহ রোড, শাহবাগ, ঢাকা-১০০০

ফোন : ০২-৮১৪৪৯৬০, মোবা. ০১৯৭২১৫১১১৫

Email: [email protected], [email protected]

© 2016 all rights reserved to www.bbarta24.net Developed By: Orangebd.com